শুক্রবার, ২২শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় ভাসমান হাঁসের খামার করে ফিরেছে সুদিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৩, ২০১৯
news-image

লুৎফুর রহমানঃ
হাঁসের খামার করে বেকার যুবকদের সুদিন ফিরছে।  দূর হচ্ছে বেকারত্ব। অল্প পুঁজি আর শ্রমেই ভাগ্য পরিবর্তন হচ্ছে কুমিল্লার যুবকদের।

কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলা এলাকার বাসিন্দা সুজাত আলী, সোহেল মিয়া ও ফারুক হোসেনসহ ৬ যুবক জানান, ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে এবং নিজেদের জমানো কিছু টাকায় হাঁস কিনে চার বছর ধরে জলাশয়ে পালন করে আসছি। আমরা ‘ভাসমান হাঁস খামারী’। প্রতি বছর এক ঝাঁক হাঁস নিয়ে হবিগঞ্জ থেকে কুমিল্লায় চলে আসি। বর্ষা মৌসুমে আগে থেকেই হাঁস পালনের জন্য কুমিল্লার উঁচু এলাকার জলাধারগুলো বেছে নেই। এই হাঁস পালনের মাধ্যমে সংসারের অভাব দূর করতে পেরেছি, আমাদের সুদিন ফিরেছে।  প্রাকৃতিক জলাশয়ে হাঁস পালন করে ভাগ্য বদলের পথ পেয়েছি।  হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার বানিয়াচং গ্রাম থেকে এক ঝাঁক হাঁস নিয়ে এসে আমরা ভাসমান খামার করেছি।

ভাসমান খামারী সুজাত আলী, সোহেল মিয়াসহ যুবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ বছর জুন মাসের প্রথম দিকে তারা ৬জন মিলে দেশীয় জাতের ৪ থেকে সাড়ে ৪ মাস বয়সের সাড়ে ৪ হাজার হাঁসের ঝাঁক নিয়ে দুই থেকে আড়াই মাসের জন্য কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলা এলাকায় এসেছেন। তারা তিনটি ভাগে ভাগ হয়ে উপজেলার কালখাড়পাড়, কাটানিসার ও বাঁশমঙ্গল এলাকায় জলাশয়ে হাঁস পালন করছেন। রাতে হাঁসগুলো রাখার জন্য টিন ও নেট (জাল) দিয়ে বেষ্টনী গড়ে তুলেছেন এবং এর পাশে ছোট্ট টিনের চালা নির্মাণ করে রান্না ও খাওয়াসহ তারা রাত যাপন করেন। এজন্য কাউকে টাকা দিতে হয় না। তারা প্রতিদিন হাঁসগুলো খাবার খাওয়ার জন্য পার্শ্ববর্তী জলাশয়ে ছেড়ে দিয়ে দেখভাল করেন এবং সময়মত ওই জলাশয় থেকে নিয়ে আসেন। জলাশয়ে আনা-নেয়ার সময় এসব হাঁসের অপরুপ দৃশ্য যে কারো চোখ জুড়িয়ে যায়।

তারা জানান, সবগুলো হাঁস ডিম দেয় না। সাড়ে ৪ হাজার হাঁসের মধ্যে এখন ১৮শ হাঁস প্রতিদিন ডিম দিচ্ছে। তারা আশা করছেন, আগামী সপ্তাহ খানেকের মধ্যে ৪ হাজার হাঁস এক সাথে ডিম দিবে। এখন প্রতিদিন পাইকাররা এসে একশ ডিম আটশ টাকা দরে কিনে নিয়ে যাচ্ছে। হাসিমুখে তারা জানান, বছর শেষে সব খরচ বাদ দিয়ে তাদের ১৮ লাখ টাকার মতো মুনাফা হবে। এতে প্রতিজনের লাভ হবে ৩ লাখ টাকা করে।

আর পড়তে পারেন