সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় বাড়ির ক্ষতি না হলেও রেলওয়ে থেকে প্রায় ৪৩ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ নিল মানিক ভৌমিক !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১২, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লায় দৈয়ারা দক্ষিণপাড়া জামে মসজিদের সভাপতি মোঃ খোরশেদ আলমের বিরুদ্ধে মসজিদের দান ও ক্রয়কৃত জায়গায় মসজিদ নিমার্ণের বিষয়ে মানিক ভৌমিক মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে মুসলমান ও হিন্দুদের বিভ্রান্ত করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে মসজিদ কমিটি ও এলাকাবাসী।

শনিবার দুপুরে নগরীর টাউন হল মুক্তিযোদ্ধা কর্ণারে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক গাজী মোঃ জহিরুল ইসলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মসজিদ কমিটির সভাপতি মোঃ খোরশেদ আলম, যুগ্ম-সম্পাদক মোঃ আমির হোসেন ছিদ্দিক, সদস্য মোঃ কবির আহমেদ, উপদেষ্টা মোঃ আলী আশ্রাফসহ মসজিদ কমিটির সদস্য ও এলাকাবাসী।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, রেলরাস্তা ডাবল লাইন হওয়ার কারণে দৈয়ারা দক্ষিণপাড়া জামে মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার পর দান ও ক্রয়কৃত জমির উপর মসজিদ নিমার্ণের উদ্যোগ নেয়া হয়। এই জমিতে মানিক ভৌমিকের কোন জমি না থাকার পরও সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করার জন্য সে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করতেছে। মিথ্যাবাদী মানিকের শাস্তি দাবী করেন বক্তারা।

সংবাদ সম্মেলনে মসজিদ কমিটির সভাপতি মোঃ খোরশেদ আলম বলেন, মানিক ভৌমিক মসজিদের জায়গার কিছু অংশ দখল করে রেখেছে। ২০১৩ সালে পূর্বের মসজিদ কমিটির সাথে এ নিয়ে মামলা হয়েছে। মসজিদ কমিটি ২ বার মামলার রায় পেয়েছে। মানিক হাইকোর্টে তা স্থগিত করে রেখেছে। আবেগ দিয়ে কিছু হয়না। আপনারা দু পক্ষের কাগজ পত্র যাচাই বাছাই করলেই তা বুঝতে পারবেন কে কার জায়গা দখল করে রেখেছে। সম্প্রতি রেলওয়ের ডাবল লাইনের কাজ শুরু হলে আমাদের মসজিদের জায়গা পড়ে। পরে আমাদের মসজিদটি স্থানান্তরিত করতে বলা হয়। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ থেকে ৩২ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ পেয়ে আমরা সরকারের নির্দেশনা ও আইন মেনে মসজিদটি স্থানান্তর করি পাশের একটি জায়গা ক্রয় করে। অথচ একই স্থানে মানিকের বাড়িটি স্থানান্তর করা হয়নি। মানিক রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ থেকে ক্ষতি পূরণ নিয়েছেন ৪২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা। অথচ সে বাড়িটি স্থানান্তর তো দূরে থাক তার বিল্ডিংয়ের প্লাষ্টারে একটি আচড়ও পড়তে দেয়নি। তা হলে সরকার থেকে কেন ৪২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ক্ষতি পূরণ নিল। আমরা আল্লাহর ঘর সরিয়ে নিতে পারলাম আর মানিক আমাদের সামনে থেকেও তার বিল্ডিং সরালো না। তার খুটির জোড় কোথায়, কেন বা কোন বাবদ সরকারের এতগুলো টাকা সে আতসাৎ করলো। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ নিশ্চুপ কেন, নাকি এ অর্থ আতসাৎ এর সাথে রেলওয়ের কর্মকর্তারা জড়িত? বিষয়টি তদন্ত করার জন্য সরকারের দৃষ্টি আর্কষন করছি।

সংবাদ সম্মেলনে মোঃ খোরশেদ আলম আরো বলেন, মানিক ভৌমিক তার ফেসবুক আইডিতে বিভিন্ন সময় ধর্মীয় উত্তেজনা ছড়িয়ে হিন্দু মুসলমানদের মধ্যে সম্প্রতি নষ্ট করছে। আপনারা তার ফেসবুক আইডিতে তা দেখতে পাবেন। মানিক তার বিভিন্ন অপকর্ম ঢাকতে ধর্মীয় বিষয়টি ব্যবহার করে ফায়দা লুটার চেষ্টা করে।

সংবাদ সম্মেলনে খোরশেদ আলম বলেন, দৈয়ারা দক্ষিণ পাড়া রেল গেইট জামে মসজিদের জায়গা নিয়ে মানিক ভৌমিক ঢাকায় জাতীয় হিন্দু মহাজোট, কুমিল্লা জর্জকোট প্রাঙ্গনে হিন্দু বৌদ্ধ খিষ্ট্রান ঐক্য পরিষদ, আইনজীবি মহাজোটসহ বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে সভা ও মানববন্ধন করেছে। যা সম্পূর্ন ভিত্তিহীন, মিথ্যা, বানোয়াট ও ষড়যন্ত্রমূলক । আমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।

 

আর পড়তে পারেন