মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় নিরাপত্তার জন্য পর্দার আড়ালে ওরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৭, ২০১৯
news-image

 

সেলিম সজীবঃ
নিজেদের পর্দার আড়াল করে নিল ওরা। চারদিকে রঙিন পর্দা দিয়েই ঢেকে নিল শরীরের চারপাশ। তবে এই পর্দা জড়ানো থাকে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত। এই পর্দা কোনো নারীর শরীরের পর্দা নয় এই পর্দা হলো রমজান উপলক্ষে চা স্টোল, হোটেল, রেস্তরাঁসহ বিভিন্ন খাবারের দোকান ঘরে জড়ানো পর্দা।

জানা গেছে, প্রতিবারের ন্যায় কুমিল্লায় এবারও রমজানের শুরু থেকে সকল টি স্টোল, হোটেল, রেস্তরাঁসহ সকল খাবারের দোকানের চারপাশ (দোকানের শরীর) ভালো ভাবেই পর্দা দিয়ে ঢেকে নিয়েছে দোকানিরা। তবে এই পর্দা কিন্তু ঢাকা থাকে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত।

কুমিল্লায় বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে পহেলা রমজান থেকেই উপজেলা সকল চা স্টোল, হোটেল, রেস্তারাঁসহ বিভিন্ন খাদ্যের দোকান মালিকগণ নিজেদের দোকানগুলো সুন্দর সুন্দর রং বেরং কাপড় দিয়ে দোকানগুলোর শরীর অর্থাৎ দরজা, জানালাসহ বিভিন্ন স্থানে পর্দা টানিয়ে নিজেদের ব্যবসাও চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে এই পর্দা খাবার ঢেকে রাখার জন্য নয় এই পর্দা হলো কিছু সংখ্যক রোজা বিহীন মানুষের নিরাপত্তার জন্য। কিন্তু এই হোটেল বা রেস্তরাঁগুলোর সামনে কোনো ভিড় বা আড্ডা নেই কিন্তু পর্দা ঠেলিয়ে ভিড়তে গেলেই বোঝা যায় ভিতরে চলছে খাবার আর গল্পের আড্ডা।

অপরদিকে কুমিল্লায় সর্বস্তরে এই পর্দা নিয়েও চলছে আলোচনার ঝড় সারা বছরের চলে খোলামেলা আর ঢুলাবালি। আর রমজান এলেই যেন হোটেলগুলো হয়ে পড়ে পর্দানিশিনী। এলাকার কয়েকজন মুরব্বি এ ব্যাপারে মন্তব্য করে বলেন কি আর কমু রে বাবা কিছু মানুষ আছে বাড়িতে বলে রোজা আর এই হোটেলে এসে পর্দা আড়ালে ঠিক মতো খেয়েও নেয়। নাম না জানা সর্তে রনি হোটেলে খেতে আশা এক ব্যক্তি বলেন ভাই রোজা তো থাকতে পারি না বাড়িতেও খাবার দেয় না তাই বাধ্য হয়ে পর্দার ভিতরে হোটের মোটেলে খেয়ে নিই। হোটেল মালিক বলেন পর্দা না থাকলে অনেকে লজ্জায় হোটেলে এসে খেতে চায় না তাই পর্দা লাগিয়েছি।

আর পড়তে পারেন