সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় নিমসার-বরুড়া সড়কের আড়াই কি.মি সড়কে যত দুর্ভোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৩, ২০২১
news-image

 

সাকিব আল হেলালঃ

কুমিল্লার বুড়িচংয়ের নিমসার -বরুড়া সড়কের নিমসার বাজার থেকে কেদারপুর পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার সড়কের বিভিন্ন অংশে সৃষ্টি হয়েছে খানখন্দকে। বৃষ্টির পানি জমার পর দূর থেকে দেখলে এসব গর্তকে ছোটখাটো ডোবা মনে হয়। দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত এ সড়ক এখন স্থানীয়দের কাছে ‘মরণ ফাঁদ’ নামে পরিচিত। ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে স্থানীয় লোকজন ও বিভিন্ন ছোট-বড় যানবাহন। যদিও সওজ কর্তৃপক্ষ বলছে, এ সড়কের টেন্ডার হয়ে কাজ চলমান আছে।

সওজ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দেশের অন্যতম বৃহৎ পাইকারি কাঁচাবাজার বুড়িচং উপজেলার নিমসার বাজার থেকে বরুড়া উপজেলা সদর পর্যন্ত রাস্তা আছে সাড়ে ১৩ কিলোমিটার। সওজ এরই মধ্যে ১১ কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজ শেষ করেছে। কিন্তু নিমসার কাঁচাবাজারের দক্ষিণে কেদারপুর পর্যন্ত প্রায় আড়াই কিলোমিটার রাস্তা দীর্ঘদিন ধরে অবহেলায় পড়ে আছে। সড়কের এই অংশ এখন মরণ ফাঁদে রূপ নিয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সবজি ক্রয়-বিক্রয় করতে এই সড়ক দিয়ে আশপাশের এলাকা থেকে ছোট-বড় বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে থাকে। কিন্তু প্রায় দুই বছর ধরে সড়কটির বেশ কিছু অংশ মেরামত না করায় দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। শুকনো মৌসুমে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করলেও বর্ষায় চলাচলের সময় ট্রাক, রিকশা, ভ্যানগাড়িসহ বিভিন্ন পণ্য ও যাত্রীবাহী যানবাহন গর্তে উল্টে ঘটছে অহরহ দুর্ঘটনা।

স্থানীয় ব্যবসায়ী কবির আহাম্মদ জানান, নিমসার সংলগ্ন মোকাম, কেদারপুর, পাচকিত্তা, হালগাঁও গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ চলাচল করে এই সড়ক দিয়ে। প্রতিদিন এ পথে শত শত ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, পিকআপ, অটোরিকশা, মাইক্রোবাস চলাচল করলেও সড়কটি এখন খানাখন্দে ভরপুর থাকায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।

মোকাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক মুন্সি বলেন, সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় আছে। এ পথে চলাচলকারী মানুষের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। অত্যন্ত ব্যস্ত এ সড়ক সওজের আওতাধীন হওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে কিছু করার নেই। তবে উপজেলা মাসিক সমন্বয় কমিটির সভায় বিষয়টি তোলা হবে”।

কুমিল্লা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রেজা-ই রাব্বী বলেন, সাড়ে ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কের অধিকাংশের সংস্কারকাজ শেষ হয়ে গেছে। বৃষ্টির কারণে অবশিষ্ট কাজ শেষ করতে সমস্যা হচ্ছে। তবে অবশিষ্ট কাজ কম সময়ে শেষ করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে”।

আর পড়তে পারেন