রবিবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় ধর্ষক নিজেই মাইকিং করে আটক!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৬, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ও আল্লাহ তুমি আমার জানডা নিয়া আমার মাইয়ার জানডা ফিরাইয়া দাও। ও আল্লাহ তুমি কই আল্লাহ। এমন আর্তনাদে ভারি হয়ে আছে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের গজারিয়া এলাকা। এমন লোমহর্ষক কান্ডে প্রতিবেশীরাও হাউমাউ করে কাঁদছে। কে কাকে সান্তনা দিবে। শোকে বিহব্বল পুরো এলাকা।

গত শুক্রবার গজারিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনীর শিক্ষার্থী তাহিদা ইসলাম ইলমা (৯) কে প্রতিবেশী নেশাগ্রস্থ যুবক বাপ্পি ও মিজান মিলে ধর্ষণ শেষে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ঘরের ভেতর মাটি চাপা দিয়ে রাখে। পরে ভোররাতে ইলমার নিথর দেহটি পাশ্ববর্তী একটি খালে ফেলে রাখে আসে।

শনিবার সকাল সাড়ে সাতটায় খালে বিবস্ত্র অবস্থায় ইলমার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে অভিভাবকদের খবর দেয় স্থানীয় এক বৃদ্ধা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় জড়িত দুই যুবক বাপ্পি ও মিজানকে আটক করে পুলিশ।

বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজু রহমান জানান আটক দুই ধর্ষককে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। প্রাথমিক জ্ঞিাসাবাদে ধর্ষণ ও হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছে ধর্ষক বাপ্পি।

সরেজমিনে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায় এক শোকবহুল অবস্থা। কারো মুখে কথা নেই। ফল ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেনের ঘরে প্রবেশের আগে স্বজনদের কান্নার আওয়াজ পাওয়া যায়। সংবাদকর্মীদের উপস্থিতি দেখেই ইলমার মা-স্বজন ও প্রতিবেশীরা হু হু করে কেঁদে উঠেন। কান্নাজড়িত কন্ঠে ইলমার মা ও স্বজনরা জানান, গতকাল শুক্রবার স্কুল ছুটি থাকায় বেলা প্রায় ৩ টায় দুপুরের ভাত খেয়ে ইলমা তার প্রিয় ভেড়ার ছানাকে দেখতে খালপাড়ে যায়। এ সময় প্রতিবেশী নেশাগ্রস্থ যুবক মিজান ও বাপ্পি মেয়েটিকে ফুসলিয়ে তাদের ঘরে নিয়ে যায়। পরে ইলমাকে না পেয়ে তার স্বজনরা খুঁজতে থাকে। এ সময় নেশাগ্রস্থ যুবক সে নিজেও তার অটোরিক্সায় মাইক লাগিয়ে চারদিকে মাইকিং করতে থাকে। পরে সকালে বাড়ীর অদূরে বিবস্ত্র অবস্থায় ইলমার লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা।

স্থানীয়া জানান ইলমার বাবা দেলোয়ার হোসেন কাশিনগর বাজারে ফলের ব্যবসায়ী মা হাসিনা ইসলাম গৃহিনী। তাদেও এক ছেলে এক মেয়ের মধ্যে ইলমা বড়।

এ ঘটনায় সন্দেহভাজন যুবক বাপ্পি ও মিজানকে আটক করলে বাপ্পি ধর্ষন ও হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে বলে ইলমা ধর্ষণরত অবস্থায় মারা যায়। পরে ঘরের ভেতর মাটি চাপা দিয়ে অস্বস্থিতে ভুগতেছিলো ধর্ষক বাপ্পি। পরে ভোররাতে ইলমার লাশটি পাশের খালে ফেলে আসে। এমন লোমহর্ষক ঘটনা শুনে ধর্ষক বাপ্পি ও মিজানের বসতভিটায় আগুন লাগিয়ে দেয়।

স্থানীয় চৌদ্দগ্রাম থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) ত্রিনাথ সাহা জানান,সকাল সাড়ে ৯ টায় খবর পেয়ে আমি ও এসআই নাসিরসহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা ও কন্সটেবল নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনি। পরে ধর্ষকদের ঘরে মাটি খুড়ে রাখা ইলমার রক্তাত্ব পোষাকসহ অন্যান্য আলামত জব্দ করি। পরে উত্তেজিত জনতার হাতে আটক ধর্ষক বাপ্পি ও মিজানকে আটক করে থানায় নিয়ে আমি।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বাপ্পী ধর্ষণ ও খুনের বিষয়টি স্বীকার করে। তবে মিজান সাথে ছিলো বলে জানায়।

স্থানীয়রা জানান, বাপ্পি ও মিজান নেশাগ্রস্থ যুবক। বেশ কয়েকদিন আগেও তারা একটি মেয়ের শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করলে স্থানীয় জনতার কারনে তা সম্ভব হয় নি।

ঘটনার বিষয়ে শ্রীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জানান, আটক দুই বখাটে গজারিয়া এলাকায় সরকারি জমি লিজ নিয়ে বসবাস শুরু করে। তাদেও বিরুদ্ধে মাদক সেবনসহ নানান অপরাধের অভিযোগ পাওয়া যায়। আজ যে ঘটনা তারা করেছে তা ক্ষমার অযোগ্য। আমি তাদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানাই।

আর পড়তে পারেন