সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় আবাসিক এলাকা ও ফসলি জমিতে ইপিজেডের বিষাক্ত বর্জ্য !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৩, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা ইপিজেডের শিল্প-কারখানার বিষাক্ত বর্জ্য কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন স্থানে ফেলছে এক শ্রেণীর অসাধু চক্র । এর ফলে দূষণ ছড়িয়ে পড়ছে আশেপাশে। রাসায়নিক  বর্জের  কারণে পানি দূষিত হওয়ার পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়ছে জীব বৈচিত্র্য। স্থানীয় পর্যায়ে বাড়ছে রোগব্যাধি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,কুমিল্লার নগরীর ২১ নং ওয়ার্ডের জাঙ্গালিয়া আবাসিক এলাকায় কোন প্রকার পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম-নীতি না মেনে ইপিজেডের বিষাক্ত ক্যামিক্যাল বর্জ্য ফেলছে একটি অসাধু চক্র।

স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, আদর্শ সদর উপজেলার সুজানগর গ্রামের মিজান হোসেন কুমিল্লা ইপিজেডের শিল্প-কারখানার বর্জ্য পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো নিয়ম নীতি না মেনে আবাসিক এলাকায় ফেলছে । যদিও পরিবেশ অধিদপ্তরের বর্জ্য ফেলার জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা রয়েছে। এই নিয়ে এলাকাবাসীরা প্রতিবাদ করলেও তিনি হুমকি দিয়ে স্থানীয় রাজনৈতিক আশ্রয় নেন বলে জানা যায় । এছাড়া বিভিন্ন ফসলি জমিতে এসব বর্জ্য স্তুপ করছেন তিনি । এই নিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরে স্থানীয়রা অনেকেই অভিযোগ করলেও মিলেনি কোনো সুফল ।

বিষাক্ত এসব বর্জ্য আবাসিক এলাকার মধ্যে ফেলায় আশপাশে বসবাসকারী বাসিন্দারা পড়েছেন মহাবিপাকে। ময়লা-আবর্জনার পুঁতিগন্ধে ঘনবসতিপূর্ণ ওই এলাকার পরিবেশ ক্রমেই বিষাক্ত হয়ে উঠছে। এর ফলে এলাকার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন নানান রোগে।

স্থানীয় বাসিন্দা কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বাবলু বলেন, ‘তারা কিভাবে আবাসিক এলাকায় একটি স্থানে কোনো প্রকার অনুমোদন না নিয়ে স্থায়ীভাবে বিষাক্ত বর্জ্য ডাম্পিং করলো। আমি একজন জনপ্রতিনিধি ও আমার জমির পাশে তারা এসব বিষাক্ত বর্জ্য ডাম্পিং করছে। আমি নিজে জমির মালিকদের কাছে অনুরোধ করছি যাতে আবাসিক এলাকায় কোনো প্রকার ময়লা আবর্জনার ডাম্পিং করতে না পারে। যদি এটা বন্ধ না হয় তাহলে আমরা এই বিষয়ে মাননীয় সংসদ সদস্য ও জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করবো।

এই বিষয়ে জানতে কুমিল্লা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শওকত আরা কলির মুঠোফোনে একাধিক বার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেননি ।

আর পড়তে পারেন