বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় আদালতের এজলাসে বিচারককে হত্যার চেষ্টা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের বিচারককে হত্যা চেষ্টা চালিয়েছে একই আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মো. কাউছার অপু (২৭)।

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারী) জনাকীর্ণ আদালতে ছুরি নিয়ে সে ওই আদালতের বিচারক মো. আজীজ আহম্মেদ ভূঁইয়াকে হত্যা চেষ্টা করে। এ সময় ওই আদালতের কর্মকতা-কর্মচারীরা তাকে নিবৃত করতে গেলে সে হামলা চালিয়ে দুইজনকে আহত করে। এ ঘটনায় অপুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই আদালতের বিচারক বিচার কাজে ব্যস্ত ছিলেন। এমন সময় পিপি’র ছেলে অপু একটি ধারালো ছুরি হাতে নিয়ে আদালতের কক্ষে ঢুকে এজলাসের কাছে গিয়ে দাঁড়ায়। এ সময় সে অপ্রকৃতিতস্থ ও অত্যন্ত উত্তেজিত ছিল। তার হাতে ছুরি দেখে তাকে ধরতে গেলে সে আদালতের পেশকার মো. গোলাম রসুল, পিয়ন মহিউদ্দিনকে ঘুষি মেরে আহত করে। এতে পেশকারের চোখে গুরুতর জখম হয়। এ সময় অপুর বাবা পিপি ছিদ্দিকুর রহমান তাকে ধরতে গেলে সে তার বাবাকেও ঘুষি-লাথি মেরে আহত করে মেঝেতে ফেলে দেয়। এরপর সে ছুরি নিয়ে আদালতের বিচারককে হত্যার উদ্দেশ্যে দ্রুত এজলাসের দিকে যেতে থাকলে বিচারক এজলাসের পার্শ্বস্থ তাঁর খাস কামরায় ঢুকে আত্মরক্ষা করেন। আদালতের পুলিশ অপুকে আটক করতে গেলে সে তাদের উপরও হামলা চালায়। এক পর্যায়ে তাকে আটক করে আদালতের হাজতখানায় নিলে সেখানেও সে অন্য আসামিদের ওপর হামলা করে আহত করে। এরপর তাকে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার হাজতে নেয় পুলিশ। রাত ৯টায় কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া জানান, সন্ধ্যায় অপুকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। আদালতের পেশকার গোলাম রসুল জানান, গত কয়েক মাস আগেও অপু আদালতে ছুরি নিয়ে ঢুকেছিল। পিপির ছেলে বলে সে সময় তাকে সমঝোতার মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল। অপর একটি সূত্র জানায়, অপু একজন শিক্ষানবিশ আইনজীবী। তার উগ্র স্বভাব ও অশালীন আচরণের কারণে তাকে শিক্ষানবিশ আইনজীবীর কাজ করতে দেয়া হয় না। মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে সে এমন ঘটনা সংঘটিত করেছে। এ বিষয়ে অপুর বাবা পিপি ছিদ্দিকুর রহমান সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

আর পড়তে পারেন