রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লাসহ ৬ জেলার জন্য ১৯ ট্যুরিস্ট পুলিশ!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৮, ২০২১
news-image

 

আমিনুল হক :
নানা সমস্যা সংকটে ট্যুরিস্ট পুলিশ কুমিল্লা জোন। বৃহত্তর কুমিল্লা ও বৃহত্তর নোয়াখালীর ছয় জেলা নিয়ে গঠিত এ ট্যুরিস্ট জোনে রয়েছে সর্বমোট ১৯ জন জনবল। ভাড়া কার্যালয়ে কার্যক্রম, একটি পুলিশ পিকআপ আর একটি মোটরসাইকেলই ছয় জেলার ট্যুরিস্ট পুলিশের ভরসা।

ট্যুরিস্ট পুলিশের তথ্যমতে, ২০১৭ সালে চালু হয় ট্যুরিস্ট পুলিশ কুমিল্লা জোন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক কুমিল্লা অংশের দুর্গাপুর এলাকার একটি ভাড়া ভবনে কার্যক্রম পরিচালনা করছে প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমানে ছয়জন কনস্টেবল, দুইজন নায়েক, ছয়জন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই), চারজন উপ-পরিদর্শক (এসআই), একজন পুলিশ পরিদর্শক (ইনচার্জ) এ জোনে কর্মরত আছেন।

সূত্রমতে, কুমিল্লা, চাঁদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ফেনী, নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর এ ছয় জেলা নিয়ে ট্যুরিস্ট পুলিশ কুমিল্লা জোন। কুমিল্লায় শালবন বিহার, কুটিলা মুড়া, চন্দ্রমুড়া, রূপবন মুড়া, ইটাখোলা মুড়া, সতেরো রতœমুড়া, রাণীর বাংলার পাহাড়, আনন্দ বাজার প্রাসাদ, ভোজ রাজদের প্রাসাদ, চণ্ডিমুড়া, রাজবাড়ি, নজরুল ইনস্টিটিউট, ময়নামতি ওয়্যার সিমেট্রি , পল্লী উন্নয়ন একাডেমি, গোমতী নদী,কুমিল্লা চিড়িয়াখানা ও বোটানিক্যাল গার্ডেন, ধর্মসাগর পার্ক, কুমিল্লা টাউন হল, ধর্মসাগর, লালমাই পাহাড়, লালমাই উদ্ভিদ উদ্যান, রাজেশপুর ইকোপার্ক, রাণীর কুঠি, নানুয়া দিঘি, রূপসাগর পার্ক ছাড়াও অর্ধশতাধিক বিনোদন কেন্দ্র ও দর্শনীয় স্থান রয়েছে। এছাড়াও বৃহত্তর কুমিল্লায় রয়েছে সরকারি বেসরকারি প্রায় দুইশত বিনোদন কেন্দ্র ও দর্শনীয় স্থান।

কোটবাড়ি শালবন বিহার এলাকায় কথা হয় স্কুল শিক্ষক মীর শাহ আলমের সাথে। তিনি বলেন, ‘গাজীপুর থেকে পরিবার নিয়ে কুমিল্লায় এসেছি, দুই দিন ছিলাম। এখানে খাবারের দাম তুলনামূলক বেশি। অভিযোগ করার জায়গা নেই। কোন সমস্যা হলে ট্যুরিস্ট পুলিশকে যে কল দেবো, সড়কের পাশে কোথাও নম্বর দেখি না। এখানে যে পুলিশ আছে আমরা জানিও না’।

এখানে ট্যুরিস্ট পুলিশ আছে কিনা? এমন প্রশ্নে স্থানীয় ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন আকাশ বলেন, কুমিল্লায় ট্যুরিস্ট পুলিশ নেই। থাকলে নিশ্চয় দেখতাম।

ময়নামতি জাদুঘর ও শালবন বিহারের কাস্টোডিয়ান হাসিবুল হাসান সুমি বলেন, করোনার কারণে বিগত বছরের তুলনায় দর্শনার্থী কম। সাধারণ সময়ে প্রতি মাসে ৮০ হাজার থেকে এক লক্ষ ভ্রমণপিপাসু এখানে আসে। মাসিক রাজস্ব আয় ছিলো ১৩ থেকে ১৭ লক্ষ টাকা। বিদেশি পর্যটক ৫-৭ শতাংশ। তাই এখানে ট্যুরিস্ট পুলিশের কার্যক্রম আরও বাড়ানো দরকার।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক ড. মো. আতাউর রহমান বলেন, কুমিল্লা একটি সম্ভাবনার পর্যটন কেন্দ্র। শুধু শালবন নয়, কাছাকাছি আরও পঞ্চাশটি রিসোর্ট তৈরি হয়েছে। তবে সে তুলনায় ট্যুরিস্ট পুলিশ খুবই কম। আসলে এখানে পর্যপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই। আমি আশা করি, ট্যুরিস্ট পুলিশ তাদের সংখ্যা আরও বাড়াবে, সাথে সাথে নিরাপত্তা আরও বাড়াবে। তখন দেশি-বিদেশি দর্শনার্থী আরও বাড়বে। সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুমিল্লা জোন ইনচার্জ মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, কুমিল্লা ও পার্শ্ববর্তী ছয় জেলা নিয়ে কুমিল্লা জোন। একটি পিকআপ আর একটি মোটরসাইকেল আছে কুমিল্লা জোনের। স্থায়ী কার্যালয়ের জন্য পদুয়ার বাজার বিশ্বরোডের সাথে জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। যে ১৯ জন এ জোনে কর্মরত আছেন, তাদের পাঁচ-ছয় জন ভিআইপি ডিউটিতে আছেন। কেউ ছুটিতে, একজন ভ্রাম্যমাণ ও অফিসের দায়িত্বে থাকেন। এখানের সুবিধা-অসুবিধা যা আছে, সব কিছু কর্তৃপক্ষ অবগত আছেন। আমাদের নিয়মিত ডিউটি হলো কোটবাড়ি, শালবন বিহার ও জাদুঘর এলাকায়।

আর পড়তে পারেন