মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার মুরাদনগরে বাবা-মাসহ একই পরিবারের ৪ জনের মৃত্যু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৮, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বৃদ্ধ দম্পতির চার ছেলে ও এক মেয়ে। ছেলেরা সবাই থাকেন প্রবাসে। মেয়ে থাকেন শ্বশুর বাড়িতে। ট্রাকের চাকায় পৃষ্ট হয়ে একই পরিবারের নিহত চার জনের মধ্যে বৃদ্ধ পিতা-মাতাকে হারিয়ে বার বার মূর্ছা যাচ্ছেন একমাত্র মেয়ে রোমানা আক্তার (২৫)। গতকাল শুক্রবার বিকেলে বিয়ের দাওয়াত খেতে ছেলের স্বশুর বাড়িতে যাওয়ার পথে একই পরিবারের চার জন নিহত হয়। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সকলের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর গ্রামে। এ ঘটনায় আহত অপর দুজন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এলাকায় গিয়ে জানা যায়, যাত্রাপুর গ্রামের নাবালক মিয়া শুক্রবার তার চতুর্থ ছেলে রাসেল মিয়ার শ্বশুরবাড়ি ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ায় বিয়ের অনুষ্ঠানে রওয়ানা দেন। সিএনজি যোগে যাওয়ার পথে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের কসবা উপজেলার সৈয়দাবাদ এলাকায় পৌঁছালে কুমিল্লাগামী ট্রাক ও প্রাইভেটকারের সাথে সিএনজির ত্রিমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে গাড়িতে থাকা ছয়জনের মধ্যে চারজনই ঘটনাস্থলে মারা যায়। নিহতরা হলেন- নাবালক মিয়া (৭২), তার স্ত্রী আয়শা খাতুন (৬০), ছোট ভাইয়ের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৫৫) ও ছেলে আল-আমিনের মেয়ে নাদিয়া আক্তার (৫)। এ ঘটনায় আহত নিহত নাবালক মিয়ার ছোট ভাই খুরশিদ আলম (৬০) ও নাতনি জান্নাত আক্তারকে (৪) ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

যাত্রাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস ছালাম ভূঁইয়া সেলিম বলেন, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানার ওসি মাহবুবুর রহমানের ফোন পেয়ে বিলম্ব না করেই আমি ঘটনাস্থলে যাই, যেহেতু তার পরিবারে কোনো পুরুষ সদস্য নাই। সব ধরনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে রাতেই লাশগুলো বাড়িতে আনার ব্যবস্থা করি। এ হৃদয় বিদারক দৃশ্য আমাকে তাড়া করছে। সারাক্ষণ শুধু আমার চোখে তাদের মৃত্যু দেহগুলো ভাসছে।

যাত্রাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, একই পরিবারের চারজনের এমন মর্মান্তিক মৃত্যু এলাকা জুঁড়ে শোকের বাতাস বইছে। একমাত্র মেয়ের আহাজারিতে দেখতে আসা প্রতিবেশীদের চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছে। দাওয়াত খেতে গিয়ে পরিবারের ছয়সদস্যের মধ্যে চারজনের ঘটনাস্থলে মৃত্যুর এমন ঘটনা এই গ্রামে আর ঘটে নাই।
সূত্র: কালের কণ্ঠ

আর পড়তে পারেন