শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার বরুড়ায় জমিদার আমলের দৃষ্টিনন্দন মসজিদটি অরক্ষিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২, ২০২১
news-image

 

এমডি. আজিজুর রহমান:

কুমিল্লা জেলার বরুড়া উপজেলার ভাউকসার গ্রামে জমিদার আমলের দৃষ্টিনন্দন মসজিদটি অরক্ষিত ও অবহেলায় নষ্ট হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরী রাণী জন্মগ্রহণ করেন কুমিল্লা জেলার হোমনাবাদ পরগনার (বর্তমানে লাকসামের) অন্তর্গত পশ্চিমগাঁয়ে। তিনি জমিদার আহমেদ আলী চৌধুরী আর মা আরাফান্নেসা চৌধুরাণীর ঘরে ১৮৩৪ সালে প্রথম কন্যা সন্তান হিসেবে জন্মগ্রহণ করেন।

সে সময়ের বরুড়ার আরেক স্বনামধন্য জমিদার সৈয়দ মোহাম্মদ গাজীর সাথে ১৮৬০ সালে তার বিয়ে হয়। তিনি ছিলেন মোহাম্মদ গাজীর দ্বিতীয় স্ত্রী। তৎকালিন সময়ে তিনি বরুড়া উপজেলার ভাউকসার ইউনিয়নের ভাউকসার গ্রামে তার শশুর বাড়িতে দৃষ্টি নন্দন তিন গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তী তার দুই মেয়ে বদরেন্নেছা চৌধুরী রাণী ও আজিজুন্নেছা চৌধুরী রাণী দুইটি মসজিদসহ প্রায় ৭ একর সম্পত্তি ওয়াক্ফ করে দিয়েছিলেন।

জমিদারের প্রথা শেষ হয়ে গেলেও কালের স্বাক্ষি হয়ে দাড়িয়ে আছে এ নান্দনিক মসজিদটি। ধারণ করছে নবাব ফয়জুন্নেছার ছন্দময় ইতিহাস। মসজিদটির বাহিরে ছোট ছোট অনেকগুলো গোম্বুজ রয়েছে। ভেতরে ও বাহিরের দেওয়ালে রয়েছে নকশা ও কারো কাজ। এ দৃষ্টিনন্দন নির্মাণ শৈল্পিক যে কাউকে আকৃষ্ট করবে।

সম্প্রতি নবাব ফয়জুন্নেছার দুই মেয়ের ওয়ক্ফকৃত সম্পত্তি প্রায় ৭ একরের মতো হলেও বাস্তবে তা নেই। অনেক সম্পদ বেদখল হয়ে গেছে। সব-শেষে মসজিদ কমিটির সভাপতি ছিলেন সৈয়দ এনায়তুল হক। তিনি ভাউকসার ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাশরুর হকের বাবা। ওনার মৃত্যুর পরে প্রস্তাবিত কমিটি মসজিদটি পরিচালনা করছেন। একই স্থানে আরেকটি মসজিদ পরিচালনা করছেন ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাশরুর হক।

সম্প্রতি তিনি আজিজুন্নেছা চৌধুরী রাণী ওয়াক্ফকৃত বেদখল হওয়া সম্পদ দখলমুক্ত করতে আদালতে একাধিক মামলা দায়ের করেছেন। জমিদার আমলের ইতিহাসের স্বাক্ষী নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরী রাণীর নির্মিত মসজিদটির বর্তমানে ভেতরে ও বাহিরে আস্তর খসে পড়ছে। রাষ্ট্রিয়ভাবে সংস্কার ও রক্ষনাবেক্ষণের উদ্যোগ না নিলে জমিদার আমলের ইতিহাস বিলিন হয়ে যাবে। চলবে… …।

আর পড়তে পারেন