মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার তিতাসে ৫০ টি ঘরে ভাংচুর, হামলা ও লুটপাট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৭, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৫০ টি ঘর ভাংচুর, হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এর আগে ১৯ জুলাই শহিদুল্লাহ গ্রুপ ও হারুণ গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

১৬ আগস্ট দুপুর ১২ টার সময় প্রতিপক্ষ শহীদুল্লাহ গ্রুপের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী এই নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞ চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়,  প্রতিটি ঘরে তান্ডবলীলা চালায় শহিদুল্লাহ বাহিনী। শহিদুল্লার নেতৃত্বে বাড়ি ঘরে ভাংচুর, হামলা ও লুটপাট করে আক্তার, মনি, ফয়সাল, বাদশা, ফরহাদ, জামাল, মেহদী, শাকিল, তসলিম, সাহা, রুবেল, বাবু, ইয়াসমিন, সুমন, ফারুক, আলমগীর ও সাইফুল সহ ৭০-৮০ জনের একটি দল। তারা ঘরে থাকা দামী জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায় এবং মহিলাদেরকে মারধর করে বলে অভিযোগ করেন আহত হারুণসহ অন্যান্য প্রত্যক্ষদর্শী। এ সময় আহত হন হালিমের স্ত্রী শিখু (৪০) সাদেকর স্ত্রী আমেনা (২৭) রুমানের স্ত্রী রত্না (২৫),আঃ রাজ্জাকের ছেলে আঃ হাকিম (৬৫), মৃত আয়েব আলীর ছেলে আলাউদ্দিন (৪০) ও আঃ সালামের ছেলে শেখ ফরিদ (৪৫) প্রমুখ।

শহিদুল্লাহ গ্রুপের মধ্যে আহত হন মৃত আসাদ মিয়ার ছেলে জামাল (৩০), মুকবুল হোসেনের ছেলে ইয়ামিন ও শহিদুল্লাহর কলেজ পড়ূয়া মেয়ে রাহিমা (২০) প্রমুখ। আহতরা তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন বলে জানান শহিদুল্লাহর স্ত্রী মলেকা বেগম।

জানা যায়, ওই গ্রামের মসজিদ নিমার্ণকে কেন্দ্র করে প্রথমে এক দফা ঝগড়া হয়। পরে ঘটনা মোড় নেয় অন্যদিকে। জায়গা জমিন নিয়ে শুরু হয় বিরোধ। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ায় এবং মামলা হয়। সাড়ে ২২ শতক জায়গাটি বর্তমানে দখলে আছে হারুণগংরা এবং তারা দীর্ঘদিন যাবত ভোগ দখলে আছেন।  পরে জায়গাটি মৃত নুর মোহাম্মদ এর ছেলে শহিদুল্লাহ গংরা তাদের বলে দাবী করেন।

শহীদুল্লাহর স্ত্রী মালেকা বেগম বলেন, জায়গাটি আমার শ্বশুরের। আরএস, সিএস আমাদের নামে আছে।

তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ মোহাম্মদ আহসানুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি শুনেছি এবং পরিস্থিতি শান্ত রাখার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শহিদুল্লাহসহ ২ জন আটক আছে। এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

আর পড়তে পারেন