মঙ্গলবার, ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার চান্দিনায় বিয়ে করতে না পারায় প্রেমিকাকে গণধর্ষণ করালেন প্রেমিক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লার চান্দিনায় প্রেমিকাকে বিয়ে করতে ব্যর্থ হয়ে সাত যুবককে দিয়ে ধর্ষণ করিয়েছেন সুমন মিয়া (২৭) নামে এক প্রেমিক। এ ঘটনায় সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে নির্যাতনের শিকার প্রেমিকা বাদী হয়ে প্রেমিকসহ আটজনকে আসামি করে মামলা করেছেন। রাতেই অভিযান চালিয়ে সাতজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে গ্রেফতারদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

চান্দিনা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার সূত্রে জানা যায়, চান্দিনার একটি টেক্সটাইল মিলের ওই নারী শ্রমিকের সঙ্গে সুমন মিয়া নামে এক যুবকের পরিচয় হয়। দুইজনের মধ্যে প্রায় তিন মাস প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এরই মধ্যে অন্যত্র বিয়ে করেন ওই নারী। কিন্তু প্রেমিকার অন্যত্র বিয়ে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছিলেন না সুমন মিয়া। গত শুক্রবার (৫ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে সুমন মিয়া তার প্রেমিকার মোবাইলে ফোন করে জানান তার স্বামীকে আটক করে রাখা হয়েছে। খবর পেয়ে ওই নারী চান্দিনা হাড়িখোলা মাজার এলাকায় পৌঁছে সুমন মিয়ার সঙ্গে দেখা করেন।

এ সময় তিনি তার স্বামীর খোঁজ জানতে চাইলে সুমন পূর্বপরিকল্পিতভাবে ৭ যুবকের হাতে তাকে তুলে দিয়ে সটকে পড়েন। পরে সাত যুবক পুকুরপাড়ের একটি নির্জন স্থানে নিয়ে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা করার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রেমিকসহ সাতজনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে- কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বেলাশহর গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে সুমন মিয়া (২৭), একই উপজেলার তেগরিয়া গ্রামের মৃত জাকির হোসেনের ছেলে হোসাইন মিয়া (১৯), পশ্চিম বেলাশহর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে জাহিদ হাসান (১৯), একই গ্রামের আসম আলীর ছেলে নাজমুল (২৭), মনু মিয়ার ছেলে সোহেল (৩০), হাড়িখোলা মাজার বাড়ির আবু শাহীনের ছেলে আবু মুছা (১৯) এবং মোহনপুর গ্রামের মোতালেব মিয়ার ছেলে সানাউল্লাহ (৩৫)।

ওসি শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন, এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে প্রেমিক সুমন মিয়া ও সাত ধর্ষকসহ মোট আটজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন। আমরা অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাতেই প্রেমিক সুমনসহ সাতজনকে গ্রেফতার করি। ফারুক নামে অপর এক আসামি পলাতক রয়েছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতাররা ওই নারীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

আর পড়তে পারেন