শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার খান সাহেব হাছানুজ্জামান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১২, ২০২১
news-image

আজিম উল্যাহ হানিফ:
কুমিল্লা জেলার তৎকালীন লাকসাম থানার অধীন নাঙ্গলকোট ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে ১৯০০ খ্রিষ্টাব্দে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন খান সাহেব হাজী মৌলভী হাসানুজ্জামান । পিতা-মো: আরিফুর রহমান, মাতা সৈয়দেন্নেছা বেগম। ওনাদের ওই প্রথম সন্তানের নাম রাখলেন হাসানুজ্জামান। অর্থ্যাৎ যুগের আলো। পিতা-আরিফুর রহমান সাহেব ছিলেন জ্ঞানী ও গুনি ব্যক্তি এবং পরম ধর্মানুরাগী। তিনি চট্টগ্রামের ইসলামিয়া মাদরাসায় সেই যুগে দীক্ষিত হন। তিনি ব্যতীত তৎকালীন আর কেহ তদাঞ্চলে বিশেষ লেখাপড়া করার সুযোগ পাননি। তিনি ইসলামি শিক্ষার আলোকে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে হাসানুজ্জামান খানের বাবা আরিফুর রহমান সাহেব ১৮৯২ সালের ৫ এপ্রিল তার গ্রাম হরিপুরে প্রথম মাদ্রাসা স্থাপন করেন এবং পরিচালনার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন। শুধু মাদ্রাসা স্থাপনই নয় তদুপরি তিনি গ্রামে গ্রামে ঘুরে ঘুরে জনসাধারণের কাছে ইসলামি শিক্ষার বক্তব্য রাখতেন। তার স্ত্রী সৈয়দেন্নেছা স্থানীয় কাজী বংশের কণ্যা ছিলেন। তিনিও ছিলেন অত্যন্ত গুনবতী রমনী এবং মহিলারা তার কাছ হতে ইসলামের অনেক প্রেরণা পেতেন। ১৯২৩ সালে আরিফুর রহমান ইন্তেকাল করেন।

শৈশবে হাসানুজ্জামান তার বাবার সান্নিধ্যে থেকে শিক্ষায় দিক্ষিত হন এবং তিনি বাবার কাছে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করে পরে স্থানীয় উচ্চ প্রাইমারী কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় কৃতিত্বের সহিত পাশ করেন। পরে চট্টগ্রাম সিনিয়র মাদ্রাসায় পড়ার জন্য উদগ্রীব হন ও ভর্তি হন। চট্টগ্রাম হতে তৎকালীন এন্ট্রান্স পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করে সবার প্রশংসার সৌভাগ্য অর্জন করেন। শিক্ষানুরাগী হাছান,খান বাহাদুর ওয়াজউদ্দিন (তৎকালীন সিরাজগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ) সাহেবের নজরে পড়েন এবং ঐ কলেজে আই এ ক্লাশে ভর্তি হন। পরিবারের প্রথম সন্তান হিসেবে তার উপর পরিবারের দায়িত্ব বর্তিত হয়। কাজেই উপায়ান্তর না দেখে সিরাজগঞ্জের মাননীয় স্যার আজিজুল হক সাহেবের বাড়িতে থেকে একটি জুনিয়র মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক হিসাবে প্রথম কর্ম জীবনে পর্দাপন করেন। স্যার আজিজুল হক সাহেবের সান্নিধ্যে থেকে তার রাজনৈতিক জীবনের প্রেরণা লাভ করার সুযোগ হয় ও হাতে খড়ি নেন। তখন থেকে হাসানুজ্জামান খানের বলিষ্ঠ ব্যক্তিত্বের প্রকাশ ঘটতে থাকে তার জ্ঞানগর্ভ বক্তৃতার মাধ্যমে।

১৯২৬ সালে তিনি চাকুরি ছেড়ে দিয়ে বাড়ী আসেন এবং ১৯২৭ সনে শ্রদ্ধেয় পিতার স্মরণে নাঙ্গলকোটে আরাফিয়া জুনিয়র মাদরাসা স্থাপন করেন।

তিনি শিক্ষা প্রসারের জন্য মিলাদুন্নবী উপলক্ষ্যে অনেক মান্যগণ্য লোকদের আমন্ত্রণ জানান। তার মধ্যে মাওলানা কান্তর আলী তুতী ছিলেন অন্যতম। তার কর্মতৎপরতা ও সমাজ সেবার অনুরাগ সহসা ছড়িয়ে পড়তে থাকে। ১৯২৮ সালে কুমিল্লা সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ এর ডাইরেক্টর হিসাবে কর্তপক্ষ ওনাকে মনোনীত করেন। সমস্ত মহকুমার একটি মাত্র ব্যাংক কুমিল্লায় অবস্থিত থাকায় জনসাধারণের খুব অসুবিধা হতো। তাই তিনি লাকসামে ১৯২৯ সালে আরো একটি শাখা খোলার ব্যবস্থা করেন। ব্যাংকের টাকা অনাদায় হেতু অচলাবস্থার সৃষ্টি হয় এবং হাছানুজ্জামান তৎকালীন কো-অপারেটিভ রেজিষ্টার খান বাহাদুর এরশাদ আলী সাহেবকে নাঙ্গলকোটে আমন্ত্রণ করে আনেন এবং জনসাধারণের পক্ষ হতে ওনার কাছে ঋণ গ্রস্থ লোকদের কষ্ট লাঘবের জন্য অনুরোধ জানান এবং রেজিষ্ট্রার সাহেব তৎকালীন সুদ এক লক্ষ ছয়ষট্ট্রী হাজার টাকা মওকুফ করে দেন।
১৯৩৪ সালে তিনি লাকসাম কো-অপারেটিভ ব্যাংকের সেক্রেটারি পদে অধিষ্ঠিত হন। তিনি বহু চেষ্টা করে দ্বিতল বিশিষ্ট সুরম্য অট্রালিকা লাকসাম কো-অপারেটিভ ব্যাংকের জন্য নির্মাণ করার গৌরব অর্জন করেন। তখনকার দিনে এই অট্রালিকাই ছিল লাকসামের সুন্দরতম বাস। ইতিমধ্যে ১৯২৯ সালে তিনি কুমিল্লা জিলা বোর্ডের সদস্য হন। ১৯৩২ সালে স্থানীয় ইউনিয়ন বোর্ডের প্রেসিডেন্ট হন এবং তিনি ইউনিয়নের বহুবিধ উন্নতিকল্পে আত্মনিয়োগ করতে শুরু করেন। তিনি প্রতি গ্রামে ওলামা কমিটি গঠন করেন এবং নারীর পর্দা,রোজা,নামাজ ইত্যাদি ইলামিক কাজে তৎপর হয়ে পড়েন। ৩ বছর কর্মব্যস্থতায় তার খ্যাতি ক্রম বিকাশ লাভ করে এবং ১৯৩৫ সালে আবার নির্বাচন করার প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করেন। এই নিবার্চনকে কেন্দ্র করে স্বার্থান্বেষী মহল একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনার সৃষ্টি করে। ১৯৩৫ সালের বাংলা ফাল্গুন মাসের অমাবস্যার রাতে মক্রবপুর সতীশ চন্দ্র কর জমিদারের তহশিল কাছারী থেকে হরিপুরের বাড়িতে সঙ্গী মনসুর আহমেদ, মৌলভী আবদুল গণি ও তার ছোট ভাই মৌলভী আলী আহমেদসহ আসার পথে দুর্বৃত্তদের দ্বারা আক্রান্ত হন। সঙ্গের লোকজন আক্রমনে বিভ্রান্ত হইয়া পালাইয়া যান এবং দুর্বৃত্ত দস্যুরা তাকে খালের মধ্যে প্রচন্ড মারপিট ও ধারালো অস্ত্র দিয়া আঘাত হানতে থাকে। সাহসী,বলিষ্ঠ ও আল্লাহ ভক্ত হাছানের একক শক্তির সঙ্গে লড়াই করে। এতে হাছানুজ্জামান যথেষ্ট জখম হন। ইতিমধ্যে ছোট ভাইসহ দুইজনের চিৎকারে সাড়া দিয়ে বেশ কয়েকজন মানুষ ছুটে আসতে থাকে ঘটনাস্থলে। দুর্বৃত্তরা পালিয়ে গেল আর রক্তে রক্তাক্ত হাছানুজ্জামানকে নিয়ে এক হৃদয়বিদারক পরিবেশ সৃষ্টি হয়। অনেকেই ভেবেছেন হাছানুজ্জামান সাহেব মৃত্যুবরণ করতে পারেন। কিন্তু রাখে আল্লাহ মারে কে। হাছানুজ্জামান খান প্রাথমিক চিকিৎসার পর কুমিল্লা হাসপাতালে ৩২ দিন থাকার পর আল্লাহর অশেষ কৃপায় আরোগ্য লাভ করেন। ১৯৩৭ সালের এপ্রিল মাসে বঙ্গীয় ব্যবস্থাপনা পরিষদের নির্বাচনে লাকসাম-চৌদ্দগ্রাম-হাজীগঞ্জ আসন হতে বিপুল ভোটে সদস্য নির্বাচিত হন। এসময় তিনি শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের প্রতিষ্ঠিত কৃষক প্রজা পার্টিতে যোগদান করে দেশ ও দশের কাজে ব্রত হন। ১৯৩৮ সালে তিনি আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে বোর্ডের সদস্য নিযুক্ত হন। বাঙ্গালীর মধ্যে এই হাসানুজ্জামান খানই সর্বপ্রথম এই বোর্ডের সদস্য হয়েছিলেন। ১৯৩৯ সালে রজত জুবিলী উপলক্ষে সরকার বাহাদুর তার প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে খান সাহেব উপাধিতে ভূষিত করেন। ১৯৪১ সালের ১৭ ই জানুয়ারি তিনি তার আব্বাজানের নামে নাঙ্গলকোট আরিফুর রহমান (বর্তমানে নাঙ্গলকোট এ আর মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় নামে পরিচিত) স্থাপন করেন এবং শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের সহযোগিতায় সেই বৎসরই মঞ্জুরী ও পরীক্ষা দেওয়ার অনুমতি পান।

১৯৪৩ সালে দুর্ভিক্ষে হাজার হাজার লোক প্রাণ হারাতে বসেছিল তখন হাসানুজ্জামান খান সমবায় বিভাগের মাধ্যমে তৎকালীন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এ এম মার্টিন সাহেবকে নাঙ্গলকোটের পল্লীতে নিয়ে আসেন। ১৯৪৬ সালে নিবার্চনে অকৃতকার্য হওয়ার পর তিনি হজ্জব্রত পালনে যান এবং তার বলিষ্ঠ ব্যক্তিত্বে খুশি হয়ে কতৃপক্ষ ওনাকে আমিরুল হজ¦ উপাধিতে ভূষিত করেন। পবিত্র হজ¦ পালন শেষে দেশের ফেরার পথে তিনি করাচীতে পাকিস্তান সমবায় বিভাগের ভাইস চেয়ারম্যান মনোনীত হন। হজ¦ থেকে ফেরার পরেও হাছান্জ্জুামান বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবন থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করেননি এবং তিনি সমাজ সেবার মাধ্যমে ধর্মসেবার কাজকে আরও জোরদার করেন। ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের দেশব্যাপী জয়ের মুখে মুসলিম লীগের প্রার্থী থাকাতে ওনাকে পরাজয় বরণ করতে হল।কিন্তু তিনি অন্যান্য সামাজিক প্রতিষ্ঠানে জড়িত থাকলেন। তিনি বহুবিধ সংস্থা করপোরেশন বা সমিতির সঙ্গে বিভিন্ন স্তরে আবদ্ধ ছিলেন। তারপর ১৯৬২ সালে প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের আমলে তিনি তৎকালীন লাকসাম-চৌদ্দগ্রাম-হাজিগঞ্জ আসন থেকে আবারও জাতীয় পরিষদের সদস্য নিবার্চিত হন। ১৯৬২ থেকে ১৯৬৫ এই তিনটি বছর ওনার রাজনৈতিক জীবনের সর্বোজ্জল সময়। তিনি তৎকালীন গর্ভণর গোলাম ফারুকী সাহেবের আমলে ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রনালয়ের পালার্মেন্টারী সেক্রেটারি ( বর্তমানে প্রতিমন্ত্রী সমতুল্য) ছিলেন ও হুইপ নিযুক্ত হন। ১৯৬৩ সালে তিনি ভূমি সংস্কার কমিটির সদস্য নিযুক্ত হন।

তিনি প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের SUNSET LAW ৩০ শে চৈত্র আইনের বিরুদ্ধে সরকার বিরোধী বক্তৃতা পার্লামেন্টে উপস্থাপন করেন এবং প্রয়োজনবোধে নিজস্ব আসন ছেড়ে দিতে দ্বিধাবোধ করবেন না বলে ভাষন দেন। এই আইন অনুসারে ৩০ শে চৈত্রের মধ্যে খাজনা না দিলে জমি নিলাম হয়ে যেত) তিনি দেশে গাজা,মদ, জুয়াও অন্যান্য অনৈসলামিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও আইন প্রণয়নের জন্য বক্তৃতা রাখেন। তিনিই প্রথম পার্লামেন্টে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ভূখন্ডে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি স্থাপনের কথা বলেন। ১৯৬৩,৬৪ ও ৬৫ সালের পর পর তিন বছর তিনি শর্ষিনার বার্ষিক অধিকার ও সম্পদ এর সুষম বন্টনের কথা জোরালোভাবে ব্যক্ত করেন। ১৯৬৩-৬৪ সনের বন্যাদূর্গত বরিশাল ও কক্সবাজার এলাকায় তিনি সাহায্য দানের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। ১৯৬৫ সালের নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য হতে অকৃতকার্য হন। ১৯৬৫ সালের পর থেকে তার শরীরও মন বিভিন্ন কারণে ভেঙ্গে পড়ছিল। তদুপরি বহুমূত্র রোগ ও হৃদযন্ত্রের অসুস্থতা দেখা দিল। ১৯৬৮ সালের ১৪ এপ্রিল তিনি ওনার ছেলে একে এম রফিকুজ্জামানের বসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হন। এরপর ওনাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (পিজিতে) ভর্তি করা হয়। ১৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ভোর ৭টায় শেষ নি:শ^াস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি ৪ ছেলে ৪ মেয়ে রেখে যান। সন্তানরা হলেন, ক্রমিক অনুসারে মিসেস মাহমুদা বেগম,মিসেস ছালেহা বেগম, ডা. একে এম কামারুজ্জামান খান, একিএম শামছ্জ্জুামান খান, একে এম রফিকুজ্জামান খান, মিসেস রোকেয়া বেগম, একেএম মাহবুব-উজ-জামান খান, মোসাম্মৎ উম্মে কুলছুম।

মৃত্যুকালীন তার শেষ কথা ছিল এক. নাঙ্গলকোটে একটা কলেজ স্থাপন করা,যাতে স্থানীয় গরীব ছেলে মেয়েরা উচ্চ শিক্ষায় অগ্রসর হতে পারে। দুই. নাঙ্গলকোট হাইস্কুলকে একটা আদর্শ স্কুলে পরিণত করা। তিন. তার সর্বকনিষ্ঠ ছেলে একেএম মাহবুব উজ জামানের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া সুষ্ঠুভাবে শেষ করা। চার. সর্বকনিষ্ঠ মেয়ে উম্মে কুলছুমকে সুপাত্রে অর্পণ করা।

হাছানুজ্জামান খানের ব্যক্তিত্ব ছিল বলিষ্ঠ। সততা,ন্যায়নিষ্ঠা ও ধর্ম পরায়ন মনোবৃত্তির জন্য তিনি সুপরিচিত ছিলেন। তার সদাশয় মনোভাবের জন্য তিনি অনেকের খুব প্রিয়ভাজন ছিলেন এবং সেই হেতুই ওনার আবদার অনেকেই উপেক্ষা করতে পারতেন না এবং সেই কারণে অনেক বিশেষ ব্যক্তিত্ব নাঙ্গলকোটে (তৎকালীন হোমনাবাদ পরগণার লাকসাম জনপদ) পদার্পন করেছিলেন। যাদের মধ্যে এরা ছিলেন অন্যতম শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, খাজা নাজিম উদ্দিন, তমিজউদ্দিন, মফিজউদ্দিন, তফাজ্জল আলী, আবিদুর রেজা চৌধুরী, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, জিএন মন্ডল, মুকুন্দ মোহন প্রমুখ। রাজনৈতিক মহলে তিনি নানা হিসাবে পরিচিত ছিলেন। আজ ও কিছু প্রবীন রাজনীতিবিদ সেই নানা নাম নিয়েই ওনাকে স্মরণ করেন। মরহুম মফিজউদ্দিন, মরহুম সাজেদুল হক,মরহুম আবদুল হাকিম, মাওলানা আবদুল মান্নান ওনার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন। হাছান্জ্জুামান খানের চালচলন সাধারণ, সাদাসিধে সাধারণত সাদা-পায়জামা পাঞ্জাবী ও সাদা টুপি (ধবধবে ধোয়া) পরিধান করতেন। তাকে বহুসময় নিজ বাড়িতে/বাসস্থানে তালি দেওয়া জামা পড়তে দেখা যেত। তার অফুরন্ত টাকা বা ধনসম্পদ ছিল না এবং এই জন্য তাকে কখনো উদগ্রীব হতে দেখা যায়নি। গরীবের জন্য তার খুব দরদ ছিল এবং দয়াশীল ছিলেন তবে সক্ষম ভিক্ষুকদের ভিক্ষাবৃত্তি পছন্দ করতেন না। তাকে কেহ কখনও নামাজ কাজা করতে দেখেন নি। তিনি গুরুজনকে ভক্তি ও শ্রদ্ধা করতেন। তাকে কখনও তার আব্বাজানের কবর জেয়ারত ছাড়া বাড়ির বাইরে হাটবাজারেই হোক বা দূরে কোন গন্তব্য স্থানেই হোক যেতে দেখা যায়নি। তিনি অত্যন্ত সাহসী,স্পষ্টভাষী ও খুব মেজাজী ছিলেন। আবার অন্যত্র খুব ঠান্ডা,সরল,খোলামেলা লোক ছিলেন। মিথ্যা,বাটপারী, মোনাফেকী,লোক ঠকানো, ধূর্তামী, প্রবঞ্চনা ইত্যাদি চরিত্র বর্হিভূত ছিল। পরনিন্দা খুব অপছন্দ করতেন এবং যারা বিরোধীতা বা শক্রতামি করতেন তাদের কে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে আপন করে নিতে চেষ্টা করতেন। তবে ভাল খাওয়ার প্রতি দূর্বলতা ছিল তবে এর ছেড়ে বেশী ছিল ওনার আতিথেয়তার মনোভাব।

সূত্র:
১. হাছান-জামিলা ফাউন্ডেশন কর্তক প্রকাশিত তৃতীয় সংস্করণ স্মরণিকা-১৮ এপ্রিল ২০১৮ ইং।
২. কবি এস এম আবুল বাশার রচিত নাঙ্গলকোটের ইতিহাস (অপ্রকাশিত) গ্রন্থ থেকে।

লেখক:

আজিম উল্যাহ হানিফ, উন্নয়নকর্মী।

আর পড়তে পারেন