শনিবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার কৃতি সন্তান রফিকুল্লাহ আফসারী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৮, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ওয়াজ হলো মানুষকে সদুপোদেশ দেয়া ও তাদের কল্যাণের পথে ডাকা। ইসলামের সূচনাকাল থেকে ওয়াজ সাধারণ মানুষের মাঝে ইসলাম ও ইসলামের বিধি-বিধান প্রচারের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। নবী-রাসুল আ. সাধারণ মানুষকে সত্যের পথে যে আহবান জানাতেন তারই প্রচলিত একটি রূপ ওয়াজ।

নবীর উত্তরসূরী হিসেবে আলেমগণ; বিশেষত বুজুর্গ আলেমগণ যুগ যুগ ধরে ওয়াজ-নসিহত করছেন এবং তা ইসলামি শিক্ষা বিস্তারের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। বিশেষত ইসলামি শিক্ষায় পিছিয়ে থাকা মুসলিম সমাজে ওয়াজ বিশেষভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। কেননা সাধারণ শিক্ষিত, অর্ধ-শিক্ষিত ও মূর্খ মানুষরা ওয়াজের মাহফিলে ইসলামের মৌলিক বিষয়গুলো জানতে পারে খুব সহজে।

এক সময় শুধু সমাজের বুজুর্গ ও সাধক আলেমগণই ওয়াজ করতেন। কিন্তু এখন ওয়াজে পেশাদারিত্ব এসেছে। সুরেলা ব্যক্তিরা ওয়াজকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করছেন।

কেউ বেছে নেন মনগড়া কিচ্ছা-কাহিনী, কেউ আশ্রয় নেন জ্ঞানহীন সুর ও গান আবার কেউ বেছে নেন হাসি-কৌতুক। তাদের হাসি-কৌতুক থেকে রক্ষা পান না কুরআন-হাদিস থেকে নবী-রাসুল কেউ-ই।

এমনই একজন কৌতুকপ্রবণ বক্তা নোয়াখালীর মাওলানা রফিকুল্লাহ আফসারী। তার প্রধান বৈশিষ্ট্যই হলো হাস্য-কৌতুকে শ্রোতাকে আমোদিত করা। তিনি কুরআন ও হাদিসের আলোচনা করেন কৌতুকের ছলে। মাওলানা রফিকুল্লাহ আফসারী বাড়ি কুমিল্লা লাকসামে।

রফিকুল্লাহ আফসারীর ওয়াজের মানুষ কতটা শুদ্ধ হয় সেটা জানা না গেলেও অনেককে বলতে শোনা যায়, দারুণ রস আছে তার ওয়াজে। বেশ মজা পাওয়া যায়।

ইউটিউবে ছাড়া তার ওয়াজের ভিডিওর শিরোনামগুলো দেখলেও ব্যাপক বিনোদিত হন ভিজিটররা। কয়েকটা শিরোনাম এমন, ‘বিয়া যে এত মজা আগে জানলে আব্বার আগে বিয়ে করতাম!’, ‘নোয়াখালী হুজুরের চরম হাসির ওয়াজ, হাসিতে বাধ্য থাকবেন’, ‘টেলিভিশন শরীফ বাই রফিকুল্লাহ আফসারী’, ‘নোয়াখালী ভাষায় চরম হাসিও ওয়াজ তোরা ভেটকাস কেনু’, ‘দিল ঠাণ্ডা না হলে এমবি ফেরত’।

যদিও ওয়াজের এসব উদ্ভট শিরোনাম বক্তারা দেন না। তবে দেখার পর প্রতিবাদ করেন কিনা সে বিষয়টি ভাবনীয়।

আর পড়তে পারেন