শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার কারখানাগুলোতে তৈরি হচ্ছে ভেজাল খাবার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৪, ২০২১
news-image

দেলোয়ার হোসাইন আকাইদ:

কুমিল্লাতে ছোট বড় ৩ শতাধিকের বেশি বিস্কুট, চানাচুর, পাউরুটি, চিপস্ এর কারখানা রয়েছে। এর বেশিরভাগ কারখানায় অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অধিক মুনাফার লক্ষে পণ্যে ভেজাল মিশিয়ে ভোক্তা সাধারণকে প্রতারিত করছে অভিযোগ রয়েছে। এতে স্বাস্থ্যহানিসহ বিভিন্ন জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে জন সাধারণ। শিশু খাদ্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যে ভেজাল মেশানো হচ্ছে। ভেজালকারীদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা থাকা সত্তে¡ও সঠিকভাবে আইন প্রয়োগ না হওয়ার কারনে দিন দিন বেড়েই চলছে অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরত্ব। ভোক্তা অধিদপ্তর বলছে বিগত মাসে ভেজাল বিরোধী অভিযানে ৬৭টি প্রতিষ্ঠানকে ২ লক্ষ ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বিএসটিআই কুমিল্লা অফিস সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লাতে ছোট বড় ৩৯৬টি বিস্কিট, চানাচুর, পাউরুটি, চিপস এর কারখানার আবেদন রয়েছে এর মধ্যে প্রায় ২ শতাধিকের উপর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বাকিগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

বিএসটিআইয়ের অনুমোদন ছাড়াই নগরীসহ জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় এসব বেকারি অস্বাস্থ্যকর পণ্য তৈরি করে দেদারে বাজারজাত করছে। এসব পণ্য নানা কৌশলে বিভিন্ন ব্র্যান্ডে নামে মোড়ক তৈরি ও প্যাকেট করে বিক্রয় করা হচ্ছে। কুমিল্লা নগরীসহ জেলার সর্বত্রই বাজারে যেসব বেকারি পণ্য পাওয়া যাচ্ছে অধিকাংশই স্থানীয়ভাবে তৈরি হচ্ছে। যত্রতত্র গড়ে ওঠা বেকারিগুলোতে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছে খাদ্যসামগ্রী।

জানা যায়, কুমিল্লা নগরীসহ আশপাশের জনসাধারণের বিস্কুট ব্রেডসহ নানা প্রকারের বেকারি পণ্যের চাহিদা পূরণের জন্য শহরতলীর আশপাশে অসংখ্য বেকারি গড়ে উঠেছে। সরকারি অনুমতি ছাড়াই জেলায় এমন ছোট-বড় বেকারি মানহীন পণ্য উৎপাদন করে বাজারজাত করছে। নগরীর বড় বড় সুপার স্টোরসহ মুদি ও স্টেশনারি মালের দোকানদাররা দেখতে চকচকা এবং দামে সস্তা মানহীন এসব পণ্য দেদারে বিক্রি করছে। নগরীতে বিভিন্ন সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত ও বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হলেও বেকারিতে তৈরি এসব পণ্য আওতামুক্ত থাকছে।

শহরতলীর আশপাশে এসব বেকারিতে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছে বিস্কুট, চানাচুর, কেক, পাউরুটি, মিষ্টি, সন্দেশ। পাড়া-মহল্লার দোকান থেকে শুরু করে নামি-দামি দোকানেও বিক্রি হচ্ছে এসব বেকারির বাহারী মুখরোচক খাবার। কখনও কেউ ভেবে দেখেছে না এই খাবারগুলো কোথা থেকে আসছে। কোথায় তৈরি হচ্ছে? কী দিয়ে তৈরি হচ্ছে? এসব খাদ্য পণ্যের মাননিয়ন্ত্রণ ও যাচাই করার দায়িত্বে যারা আছেন তারা সঠিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে।

জেলার সদর উপজেলা, সদর দক্ষিণ, চৌদ্দগ্রাম, বুড়িচং, ব্রাহ্মণপাড়া, চান্দিনা, দাউদকান্দি, তিতাস, মেঘনা, হোমনা, দেবিদ্বার, মুরাদনগর মনোহরগঞ্জ, নাঙ্গলকোট, বরুড়াসহ বিভিন্ন উপজেলার এলাকার আনাচে কানাচে এ ধরনের অসংখ্য বেকারি গড়ে উঠেছে। কয়েকটি বেকারিতে গিয়ে দেখা যায় স্যাঁতসেঁতে নোংরা পরিবেশে ভেজাল ও নিুমানের উপকরণ দিয়ে অবাধে তৈরি করা হচ্ছে বেকারির পণ্যসামগ্রী। আশপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে নানা ধরনের তৈরি পণ্য। শ্রমিকরা খালি পায়ে এসব পণ্যের পাশ দিয়ে হাঁটাহাঁটি করছে। আটা-ময়দা প্রক্রিয়াজাত করানো কড়াইগুলোও রয়েছে অপরিস্কার ও নোংরা। ডালডা দিয়ে তৈরি করা ক্রিম রাখা পাত্রগুলোতে ঝাঁকে ঝাঁকে মাছি ভন ভন করছে। উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ ছাড়াই বাহারি মোড়কে বনরুটি, পাউরুটি, কেক, বিস্কুটসহ বিভিন্ন ধরনের বেকারিসামগ্রী উৎপাদন ও বাজারজাত করা হচ্ছে।
নগরীর বাইরে এসব বেকারির অবস্থান হওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নজরদারি নেই এসব বেকারিতে। মোড়কের গায়ে উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণ লেখা নেই। কত তারিখে উৎপাদন হয়েছে বা মেয়াদ কবে শেষ হবে তার কোনো উল্লেখ নেই।

নগরীর কান্দিরপাড় টাউন হল মাঠের চা দোকানদার সোলায়মান জানান, ভ্রাম্যমান দোকানে বিভিন্ন মানুষ খেতে আসে। আর যারা খেতে আসে তারা এসব দেখেনা। আবার অনেকের এ বিষয়ে জানাও নেই। উৎপাদনের তারিখ দেখার সময় নেই। কাস্টমাররা তো আর এসব জিজ্ঞাসা করে না। তারাও অনায়াসে খেয়ে চলে যায়। আর এসব পন্য দিনে দিনেই বেচা হয়ে যায়।

কুমিল্লা নগরীর পাথুরিয়াপাড়ার এক বেকারীর কর্মচারী জানান, বেশির ভাগ বেকারীতে শ্রমিকরা রাতে কাজ করে। দিনের বেলায় তারা কোনো পণ্য উৎপাদন করেন না। রাতে শুরু করে ফজরের আগেই পণ্য উৎপাদন শেষ হয়ে যায়। ফজরের আযানের পর পরই ভ্যান গাড়িতে করে সব দোকানে পন্য সরবরাহ করা হয়। রাতে কোন ভ্রাম্যমাণ আদালত ও পুলিশের ঝামেলা থাকেনা।

ইসমাইল হোসেন নামে এক বেকারীর মালিক জানান, লাইসেন্স এর জন্য আবেদন করেছেন। তিনি সবসময় স্বাস্থ্যসম্মতভাবে পন্য উৎপাদনের চেষ্টা করেন।

১৮৬০, ১৯৭৪, ১৯৮৫, ২০০৩, ২০০৫, ২০০৯, সর্বশেষ ২০১৭ সালে সংশোধিত আইন সহ ভেজালকারীদের ৩ লক্ষ টাকা ও ১ বৎসর সশ্রম কারাদন্ড দোকান বা কারখানার যন্ত্রপাতি বাজেয়াপ্ত করার বিধান রয়েছে। সংশোধিত আইনসহ ভেজাল প্রতিরোধে প্রয়োগ না থাকার কারনে দিন দিন বেড়ে চলছে অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরত্ব।

কুমিল্লা নাগরিক ফোরামের সভাপতি কামরুল আহসান বাবুল জানান, বেকারীর পণ্যতে যেভাবে ভেজাল মেশানো হচ্ছে তাতে শিশুদেরসহ আমাদের স্বাস্থ্যহানি ঘটছে। এসবের বিরুদ্ধে ভেজাল বিরোধী অভিযান আরো বৃদ্ধি করতে হবে।

ডাঃ শারমিন রহমান (পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়) জানান, ভেজাল কেমিক্যাল ও নিন্মমানের উপকরণ দিয়ে তৈরি করা এসব খাবারসামগ্রী খেলে মারাত্বক স্বাস্থ্যঝুঁকি হতে পারে। পেট ব্যথা, শরীর দুর্বলসহ জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি রয়েছে। মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর এসব ভেজাল খাদ্য উৎপাদন বন্ধ করতে সবাইকে আরো সোচ্চার হতে হবে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, কুমিল্লার সহকারী পরিচালক, মোঃ আছাদুল ইসলাম জানান, জেলার বিভিন্ন স্থান এসব ভেজাল পন্য উৎপাদন হয়। বিভিন্ন ক্ষতিকারন দ্রব্য দিয়ে নোংরা পরিবেশে এসব তৈরী হয়। যা আমাদের ব্যবসায়ীদের নৈতিক পরাজয় মনে করি। আমরা সবসময় এ বিষয়ে তদারকি করছি। এ বিষয়ে কোন ছাড় নেই । নিয়মের বাহিরে গিয়ে কোন ব্যবসা করার সুযোগ নাই। বিগত মাসে ভেজাল বিরোধী অভিযানে ৬৭টি প্রতিষ্ঠানকে ২ লক্ষ ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। কোথায় কোন অনিয়ম পেলে সাথে সাথে ব্যবস্থা নিচ্ছি আর এর বিরুদ্ধে সব সময় অভিযান চলমান থাকবে।

 

 

আর পড়তে পারেন