মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার এজলাসে আসামি খুন, ঘাতকের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৮, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

কুমিল্লার আদালতে বিচারকের খাস কামরায় ছুরিকাঘাতে এক আসামিকে হত্যার দায়ে মো. হাসান (২৪) নামের আরেক আসামিকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার ( ৮ মার্চ) কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আতাব উল্লাহ এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মো. হাসান জেলার লাকসাম উপজেলার ভোজপাড়া গ্রামের লাকসাম উপজেলার ভোজপুর গ্রামের শহিদুল্লাহর ছেলে ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এড. জহিরুল ইসলাম সেলিম।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৫ জুলাই কুমিল্লা আদালত ভবনের তৃতীয় তলায় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৩য় আদালতে জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার কান্দি গ্রামের হাজী আবদুল করিম হত্যা মামলার হাজিরা দিতে আসেন ওই মামলার দুই আসামি জেলার লাকসাম উপজেলার ভোজপুর গ্রামের শহিদুল্লাহর ছেলে মো. হাসান এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার কান্দি গ্রামের অহিদুল্লাহর ছেলে মো. ফারুক। এ মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলাকালে ওই দিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আসামি হাসান একই মামলার আসামি মো. ফারুককে বিচারকের সামনে প্রকাশ্যে আকস্মিকভাবে ছুরিকাঘাত করেন। একপর্যায়ে আত্মরক্ষার্থে ফারুক বিচারকের খাস কামরায় ঢুকে পড়লে সেখানে গিয়ে তাকে এলোপাথারিভাবে ছুরিকাঘাত করে জখম করেন হাসান। পরে গুরুতর অবস্থায় ফারুককে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে জেলার বাঙ্গরা বাজার থানার এএসআই ফিরোজ আহম্মেদ রক্তমাখা ছুরিসহ হাসানকে আটক করেন। তিনি বাদী হয়ে ওইদিন রাতে হাসানের বিরুদ্ধে কোতয়ালী মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়। তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ডিবির পরিদর্শক প্রদীপ মন্ডল একই বছরের ২৬ আগষ্ট ওই আসামির বিরুদ্ধে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত নং-১ এ চার্জশিট দাখিল করেন। এ মামলায় আদালতের এপিপি, পেশকার ও অফিস সহকারীসহ ১৪ জনকে স্বাক্ষী করা হয়। মামলার শুনানি শেষে সোমবার আদালত হাসানকে মৃতুদণ্ডের আদেশ দেন।

ফাঁসির রায় ঘোষণার পর আসামি মো. হাসানের মা নয়ন বেগম জানান, তার ছেলে মাদকাসক্ত ছিলেন। পূর্বের শত্রুতায় আদালতে ফারুককে দেখে তার মাথা ঠিক ছিল না। তার ছেলে ন্যায্য বিচায় পায়নি। তিনি উচ্চ আদালতে যাবেন বলেও জানান।

আর পড়তে পারেন