শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার এক মেয়ের সাথেও পরকীয়া ছিল এসপি বাবুলের, এছাড়াও আরো ৩ বিয়ে !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৩, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট :

মাহমুদা খানম মিতু হত্যার পর আরও তিনটি বিয়ে করেন তার স্বামী পু’লিশের সাবেক এসপি বাবুল আকতার। এর মধ্যে দুজনের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে, বর্তমানে একজনের সঙ্গে সংসার করছিলেন তিনি।

মিতুর মা শাহিদা মোশাররফ বুধবার দুপুরে এ ত’থ্য জানান। তিনি বলেন, ‘মিতু মারা যাওয়ার আগে বাবুর (বাবুল আকতার) সঙ্গে ভারতের এক নারীর স’ঙ্গে সম্পর্ক ছিল। মিতু কৌশলে সেটা জেনে যায়। শুধু ওই নারী নয়, আরও কয়েক জনের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল।

যাদের মধ্যে দুই জনকে নিয়ে মিতুর মৃত্যুর পর সে সংসার করেছে। আরেকটি বিয়ে করেছে পারিবারিকভাবে।’ মিতুর মা জানান, চট্টগ্রামে থাকার সময় ওয়েল ফুডে চাকরি করা এক নারীর স’ঙ্গে বাবুলের পরিচয় হয়। মিতু মারা যাওয়ার পর ওই নারীকে ঢাকায় এনে একসঙ্গে থাকতে শুরু করেন বাবুল। এক পর্যায়ে ওই না’রী বাবুলকে ছেড়ে চলে যান।

এরপর খুলনার এক মেয়েকে বিয়ে করেন বাবুল। তবে ওই সংসারও বেশি দিন টেকেনি। সবশে’ষ ৪-৫ মাস আগে কুমিল্লার এক মেয়েকে তিনি বিয়ে করেন। মিতুর মায়ের অ’ভিযোগ কুমিল্লার মেয়েটির সঙ্গেও বাবুলের আগে থেকেই সম্পর্ক ছিল।

ওই মেয়ের স’ঙ্গে রাজধানীর মোহাম্ম’দপুরের বাবর রোডে থাকছিলেন তিনি। ২০১৬ সালের ৫ জুন মিতুকে হ’ত্যার পর বাবুল আকতার দুই স’ন্তানকে নিয়ে খিলগাঁওয়ের মেরাদিয়ায় শ্বশুরের বাসায় ওঠেন। মিতুর মা বলেন, সে সময় বাবুলের কা’ন্না ও ‘নিখুত অ’ভিনয়’ তাদেরকে বি’ভ্রান্ত করেছিল। তবে সময় যাওয়ার স’ঙ্গে স’ঙ্গে বাবুল স’ম্পর্কে তাদের ভু’ল ধারণা ভা’ঙতে শুরু করে।

শাহেদা মোশাররফ বলেন, ‘তিন বছর আগে হ’ঠাৎ করেই সে (বাবুল) আমাদের বাসা ছেড়ে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর আমার দুই নাতিকে নিয়ে চলে যায়।’ মিতুর মা শাহেদা মোশাররফ অ’ভিযোগ করেন, তাদের বাসা ছেড়ে চলে যাওয়ার পর বাবুল তার দুই ছেলে-মেয়েকে নানা-নানির কাছ থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছে। তিন বছরে এক বারের জন্যও মিতুর বাবা-মার স’ঙ্গে তাদের দেখা করতে দেয়া হয়নি।

মিতুর ছেলে রাজধানীর একটি স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ছে বলে জানান শাহেদা মোশাররফ। আর মে’য়েকে সম্প্রতি স্কুলে ভর্তি করা হয়েছে। শাহেদা বলেন, ‘আমার মেয়ে মা’রা যাওয়ার পর তার দুই সন্তানকে নিয়ে জীবনের বাকি সময় পার করতে চেয়েছিলাম।

কিন্তু বাবুল ওদের আমাদের কাছ থেকে সরিয়ে রাখছে। আমাদের স’ঙ্গে দেখা করতে দেয় না, কথা বলতে দেয় না, আমাদের ফোন রিসিভ করে না। বাসায় গেলে দারোয়ান দিয়ে তাড়িয়ে দেয়। ‘অথচ মিতুর বিয়ের পর ওর থাকা-খাওয়া সবকিছুর ব্যবস্থা করতাম আমরা।

ওরা অন্যের বাসায় যাতে না থাকে সেজন্য আমরা ঢাকায় বাসা করে দিলাম। বিসিএসে পু’লিশ হওয়ার আগ পর্যন্ত সেখানেই ওরা থাকত।’ মিতুকে হ’ত্যার অ’ভিযোগে গ্রে’প্তার হয়েছেন বাবুল আকতার। বাবুল-মিতু দম্পতির দুই স’ন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন মিতুর বাবা-মা।

মিতুর মা বলেন, ‘এখন ওদের কী হবে? এই দুইটা মুখে দিকে তাকিয়ে কটা দিন বাঁ’চতে চাইছিলাম। বাবু আমাদের স’ঙ্গে ওদের থাকতে দিলো না। আলাদা করে দিছে। বাচ্চাগুলো সৎ মার কাছে আছে। আমরা ওদের লালন-পালন করতে চাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানাব, এই দুই শিশুকে আমাদের কাছে থাকতে দেয়া হোক।’

বাবুল আকতারের বি’রুদ্ধে মা’মলার পর নিজেদের নি’রাপত্তা নিয়ে শ’ঙ্কা জানিয়েছেন মিতুর মা শাহেদা মোশাররফ। তিনি বলেন, ‘পরশু দিন (সোমবার) মিতুর বাবাকে পিবিআইয়ের ঢাকা অফিসে যেতে বলা হয়। আমরা এই মা’মলা নিয়ে আশা ছেড়ে দিছিলাম।

বিকেলে মিতুর বাবা বাসায় ফিরে এসে, শুধু বলল, মিতুর জন্য দোয়া করো, ভালো খব’র আছে। আমাকে চট্টগ্রাম যেতে হবে। এরপর ভোররাতে সেহরি করে তিনি চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা হন। কিন্তু এই খবরটা আমরা কাউকে জানতে দেইনি। ভ’য় ছিল, বাবুল বা বাবুলের লোকজন জানতে পারলে কোনো ঝা’মেলা হতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘বাবুলকে পু’লিশ হেফাজতে নেয়ার পর থেকেই ভ’য়ে আছি। গেট এখন ব’ন্ধ করে রাখি। বাসায় আমার আরেক মে’য়ে ও মে’য়ের স্বামী তাদের স’ন্তানসহ থাকে। তাদের নি’রাপত্তা নিয়েও ভ’য় হচ্ছে।’

মা’মলাটি নাটকীয়ভাবে মোড় নেয়ায় এবার সঠিক বি’চারের আশা দেখছেন মিতুর মা। তিনি বলেন, ‘বাবুলের অ’বৈধ সম্পর্ক মিতু জেনে গিয়েছিল, এটা কি তার অ’পরাধ। ওকে নিয়ে সংসার না করতে চাইলে আমাদের কাছে পাঠিয়ে দিত। কিন্তু ওকে কেন হ’ত্যা করল? ও (বাবুল) প’রিকল্পিতভাবে আমার মে’য়েকে মে’রেছে, আমরা সঠিক বি’চার চাই।’

বুধবার বাবুল গ্রে’ফতার হওয়ার পর তার স’ম্পর্কে চা’ঞ্চল্যকর ত’থ্য বেরিয়ে আসে। পু’লিশে চাকরি হওয়ার পর তার যে নৈতিক স্খলন ঘ’টে সেটি প্র’কাশ্যে আসছে। মিতুর বাবা ও মায়ের জ’বানিতে এই অ’ভিযোগ স্প’ষ্ট হয়ে উঠেছে যে, প’রকীয়ায় বা’ধা হওয়ায় মিতুকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেন বাবুল আকতার।

এমনকি হোটেলে না’রীর স’ঙ্গে বাবুলকে দেখে ফেলেন মিতু। মিতুর মা সাহেদা মোশাররফ বলেন, বিয়ের প্রথম দিকে বাবুলের স’ঙ্গে মিতুর সম্পর্ক ভালোই ছিল। আমার দুই মে’য়ে, কোনো ছেলে নেই। বাবুলকে নিজের ছেলের মতো করে দেখেছি। বিয়ের পর দিনের পর দিন বাবুল আমার বাসায় থেকেছে।

চাকরির জন্য লেখাপড়া করেছে। বেকার বাবুলের ব্যাংকে চাকরি হয়েছে। সেই চাকরি থাকা অবস্থায় বাবুল বিসিএস দিয়ে পু’লিশ কর্মক’র্তা হয়। এই যে বাবুল পু’লিশ অফিসার হয়ে গেল, এরপর তার মধ্যে পরিবর্তন আসা শুরু হলো। আমার মেয়ে মিতুকে অবহেলা করত।

পু’লিশের দাপট ও টাকার জো’রে বিভিন্ন না’রীর স’ঙ্গে প’রকীয়ায় জ’ড়িয়ে পড়েন বাবুল। এমনটি জানিয়ে মিতুর মা বলেন, ‘আমার মে’য়ে একদিন রাত ৩টার সময় ফোন দিয়ে বলেছিল, মা, আমি কালই ঢাকায় চলে আসব। তখন আমি মিতুর কাছে জানতে চেয়েছিলাম, কী হয়েছে?

মিতু তখন বলেছিল, কক্সবাজারের একটি হোটেলে একজন না’রীর স’ঙ্গে বাবুলকে দেখেছে মিতু। বহুবার আমার মে’য়ে আমাকে বলেছিল। শুধু দুই স’ন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে সে বাবুলের স’ঙ্গে সংসার করেছে। কিন্তু শে’ষ পর্যন্ত মেয়ে আর বাঁচতে পারল না। ওরা আমার নাতির সামনে আমার মে’য়েকে খু’ন করে ফেলল।’

বুধবার বাবুলকে প্রধান আ’সামি করে মিতুর বাবা মোশারফ হোসেন যে মা’মলা করেছেন তাতেও সাবেক পু’লিশ কর্মক’র্তার বি’রুদ্ধে পর’কীয়ার অ’ভিযোগ আনা হয়েছে। এজাহারে মোশাররফ হোসেন লেখেন, জাতিসংঘে কর্মরত একজন না’রীর স’ঙ্গে প’রকীয়ার কারণে তার মে’য়ের স’ঙ্গে জামাইয়ের দাম্পত্য ক’লহ চরমে পৌঁছেছিল।

মোশাররফ লেখেন, ‘হত্যাকাণ্ডে নেতৃত্ব দা’নকারী ২ নং বিবাদী মো. কামরুল ই’সলাম শিকদার ওরফে মুসা তার (বাবুল আক্তারের) দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত ও পারিবারিকভাবে পরিচিত সোর্স হওয়া সত্ত্বেও সুকৌশলে তাকে শ’নাক্ত না করে জ’ঙ্গিদের দ্বারা হত্যাকাণ্ডটি সংঘ’টিত হয়েছে ম’র্মে দা’বি করে হ’ত্যাকা’ণ্ডের ঘ’টনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার অ’পচে’ষ্টা করে।

আর পড়তে পারেন