মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুবিতে সকল নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩০, ২০১৭
news-image

 

শাহাদাত বিপ্লব, কুবিঃ

তিন সপ্তাহ ধরে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে আন্দোলনের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে সকল ধরণের নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এদিকে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে এক কর্মচারীর ব্যক্তিগত প্রোফাইল থেকে কটুক্তিমূলক মন্তব্য করায় তার শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে প্রগতিশীল শিক্ষকদের সংগঠন বঙ্গবন্ধু পরিষদ, কর্মচারী সমিতি ও বঙ্গবন্ধু কর্মচারী পরিষদ। এছাড়াও শিক্ষা ছুটিতে থাকা এক শিক্ষককে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারী নিয়োগ বোর্ডে অবৈধভাবে সদস্য করায় এর প্রতিকার চেয়ে রেজিস্ট্রার বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছে শিক্ষক সমিতি।
জানা যায়, ২৯ অক্টোবর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে প্রেরিত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব হাবিবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি-২০১৭ হতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফ এর বিরুদ্ধে প্রাপ্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নিয়োগ কার্যক্রম পরবর্তী সিদ্ধান্ত না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশক্রমে নির্দেশনা প্রদান করা হলো।’
এদিকে গত ২৫ অক্টোবর শিক্ষক সমিতি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনে শিক্ষা মন্ত্রনালয়কে অভিযোগ পাঠায়। শিক্ষক সমিতি উপাচার্যের বিরুদ্ধে নিয়োগে বানিজ্য, আর্থিক দুর্নীতি, শিক্ষক লাঞ্ছনা, বিচারহীনতার সংস্কৃতি চালু, বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ অত্মসাৎ করাসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনে। শিক্ষক সমিতি চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে দফায় দফায় উপাচার্যের পদত্যগের দাবিতে আন্দোলন করে আসছে।
এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অবৈধভাবে নিয়োগ বোর্ডে সদস্য নিয়োগ প্রদানের প্রতিকার চেয়ে শিক্ষক সমিতি গত রোববার রেজিস্ট্রার বরাবর একটি স্বারকলিপি দিয়েছে। স্বারকলিপিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির বিভিন্ন পদের নিয়োগ বোর্ডে ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জি. এম. আজমল আলী কাওছার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি প্রোগ্রামে শিক্ষা ছুটিতে থাকাকালীন নিয়মবহির্ভূতভাবে নিয়োগ বোর্ডে বসতেন। এমনকি বিদেশে স্কলারশীপ নিয়ে শিক্ষা ছুটিতে থাকাকালীন সময়েও নিয়োগ বোর্ডে বসেন। যেখানে শিক্ষা ছুটিতে থাকাকালীন সময়ে পরীক্ষা কমিটি, প্ল্যানিং কমিটিসহ কোনো কমিটিতেই একজন শিক্ষকের থাকার সুযোগ নেই।
স্বারকলিপিতে আরো বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ে রেল নাশকতা মামলার চার্জশীটভূক্ত আসামী ও শিবির ক্যাডার খলিলুর রহমানকেও অফিস সহকারী কাম ডাটা প্রসেসর পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। উক্ত কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশ দান করা হলেও আতা¥ীয় হওয়ার কারণে উপাচার্য কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনেিরাববার শিক্ষক সমিতি।
এ দিকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফের বিরুদ্ধে নিয়োগে বানিজ্য, আত্মীয়করণ, আর্থিক দুর্নীতি, বিচারহীনতার সংস্কৃতি চালু, শিক্ষক লাঞ্ছনাসহ বেশ কয়েকটি দাবিতে তার বিচার ও অপসারণের দাবিতে শিক্ষকদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। শিক্ষকরা গত ১৬ অক্টোবর উপাচার্যের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়। শিক্ষকদের এ ক্ষুব্ধ অবস্থানের কারনে উপাচার্য ১৫ অক্টোবর থেকে কার্যালয়ে আসেননি।
এ সকল বিষয়ে কথা বলতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন তুলে, ‘ব্যাস্ত আছি’ বলে রেখে দেন।

আর পড়তে পারেন