সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনা প্রতিরোধে মাস্কই প্রধান অস্ত্র

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৪, ২০২১
news-image

 

লে. কর্ণেল নাজমুল হুদা খান:

চীনের উহানে কোভিড-১৯ আবির্ভাবের পর থেকেই সতর্ক ছিল বাংলাদেশ। দ্রুত ৩৬৩ জন বাংলাদেশি নাগরিককে দেশে ফিরিয়ে এনে কোয়ারেন্টাইন ও চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। কিন্ত এ বৈশ্বিক মহামারী বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই ছড়িয়ে পরে বাংলাদেশে। ৮ মার্চ ২০২০ তারিখে প্রথম করোনা আক্রান্ত শনাক্তের পর এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধ ঘোষণা করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণে কোয়ারেন্টাইন, শনাক্তকরণ, আইসোলেশন, কন্ট্রাক্ট ট্র্যাসিং, লকডাউন থেকে শুরু করে চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার সব কার্যক্রম গ্রহণ করে বাংলাদেশ।

করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে জনগণকে সচেতন ও উদ্বুদ্ধকরণ, দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়ানো, দেশের মানুষের জীবনযাত্রাকে সচল রাখা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির মতো চ্যালেঞ্জিং কার্যক্রমগুলো সফলতার সঙ্গে পাশাপাশি চলছে অদ্যাবধি। দেশের করোনা চিকিৎসার সক্ষমতা বৃদ্ধিতে হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধি, নতুনভাবে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল স্থাপন, গুরুতর অসুস্থ রোগীদের নিবিড় পরিচর্যার জন্য আইসিইউর সংখ্যা বৃদ্ধির প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। দেশের সবাইকে করোনা সুরক্ষায় গণটিকা প্রদানের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বিশ্বের সম্ভাব্য সব উৎস থেকে ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও প্রদান শুরু হয়েছে।

করোনা প্রতিরোধ যুদ্ধে আমরা আইসিইউ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও ভ্যাকসিনের নানাবিধ বিষয় নিয়ে সদা সোচ্চার। প্রকারান্তরে কোভিড-১৯ প্রতিরোধের মূলমন্ত্র স্বাস্থ্যবিধি মানা, বিশেষ করে সর্বাত্মক মাস্ক ব্যবহারের প্রচলনটি অনেকটাই উপেক্ষিত। এ বিষয়ে যথাযথ সচেতন হলে এ মরণঘাতী ব্যাধির বিরুদ্ধে যুদ্ধটা অনেকটা সহজতর হতো।

আইসিইউ বিশ্বব্যাপী অত্যন্ত জটিল ও ব্যয়বহুল চিকিৎসা ব্যবস্থা। আর্থিক সমৃদ্ধি থাকলেও রাতারাতি নতুনভাবে এ ব্যবস্থা সংযোজন করা সময় সাপেক্ষও দুরূহ। স্বাধীনতার পরবাংলাদেশে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে হৃদরোগীদের সেবায় আইসিইউ (ইনসেন্টিভ কেয়ার ইউনিট) বা নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের যাত্রা শুরু। সারাদেশে এর সংখ্যা ৪০০ তে উপনীত হতে সময় লেগেছে প্রায় ৩০ বছর। দেশে বর্তমানে সরকারি/বেসরকারি হিসেবে আইসিইউ শয্যা সংখ্যা ১২৮৭টি। বিভিন্ন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের এসব আইসিইউ বেডসমূহ মেডিকেল, সার্জিক্যাল, ট্রমা, বক্ষব্যাধি , স্নায়ুরোগ, বার্ণ, হৃদরোগ, হৃদশল্য চিকিৎসা ইত্যাদি শ্রেণীর রোগীদের জন্য নির্ধারিত। এসব আইসিইউর প্রায় ৬৫% মেডিকেল ও সার্জিক্যাল, ২০% হৃদরোগী, ১০% হৃদশল্য, ২% বার্ণ, স্নায়ু ও অন্যান্য জটিল রোগীদের জন্য ব্যবহৃত হয়। কোভিড-১৯ অতিমারি শুরুর পর থেকে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীদের জন্য এ সব আইসিইউ ব্যবহৃত হচ্ছে। ফলে সংশ্লিষ্ট জটিল রোগীরা আইসিইউ সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমাদের দেশে আইসিইউ তে দক্ষ চিকিৎসক ও নার্সেরও অভাব রয়েছে। দেশের ৬০ ভাগ আইসিইউ অবেদন বিশেষজ্ঞ কর্তৃক পরিচালিত হয়। ১০ ভাগ নিবিড় পরিচর্যা বিশেষজ্ঞ এবং বাকি ৪০ ভাগ হৃদরোগ, স্নায়ুরোগ বা মেডিসিন বিশেষজ্ঞরা পরিচালনা করে থাকেন। ফলে স্বাভাবিকভাবেই এসব ক্ষেত্রে চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় কিছুটা বিঘ্ন ঘটে। প্রকৃতপক্ষে নিবিড় পরিচর্যা বিশেষজ্ঞরাই এসব রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা প্রদানে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। সারাদেশে বর্তমানে এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞের সংখ্যা মাত্র ৪৩ জন। তবে বর্তমানে প্রতি বছর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ১৮ জন চিকিৎসক এ বিষয়ে ৫ বছরের উচ্চতর প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের ব্যবস্থা রয়েছে। আইসিইউতে ভর্তি রোগীদের ২৪ ঘণ্টা সেবায় নিয়োযিত থাকে নার্সরা। আইসিইউতে নার্স/রোগীর অনুপাতও চাহিদার তুলনায় অনেকগুণ কম। এসব নার্সদের বেশিরভাগ নিবিড় পরিচর্যার ওপর একাডেমিক প্রশিক্ষণ নেই। এ নার্সদের মাত্র ৪০ ভাগ বেসিক লাইফসাপোর্ট (ইখঝ) এবং সিপিআর এর ওপর প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত।

আইসিইউতে ব্যবহৃত মেডিকেল যন্ত্রপাতি সব ক্ষেত্রেই বিদেশনির্ভর। এসব যন্ত্রপাতি আমদানি করতে কমপক্ষে ৬ মাস থেকে ১ বছর প্রয়োজন হয়। অকার্যকর হয়ে পড়লে মেরামতও দুষ্কর। দেশের হাসপাতালের আইসিইউ সমূহে অর্ধেকেরও বেশি ক্ষেত্রে ইসিজি মেশিন, ইকো মেশিন, আল্ট্রাসনোগ্রাফি মেশিন ও ল্যাব সুবিধা নেই। স্থাপনাসহ সব সুবিধা থাকার পরও নতুন একটি সাধারণ মানের ১০ শয্যাবিশিষ্ট আইসিইউ স্থাপন করতে কমপক্ষে ২০ কোটি টাকার প্রয়োজন। সুতরাং দেশের আর্থসামাজিক অবস্থা, দক্ষ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী, দুর্লভ যন্ত্রপাতির অপর্যাপ্ততার কারণে সদিচ্ছা থাকলেও পর্যাপ্ত পরিমাণে আইসিইউ সেবা চালুর বাস্তব অবস্থা কঠিন।

তদপুরী এআইএসপিওর তথ্যমতে, বাংলাদেশের হাসপাতালসমূহের শয্যা সংখ্যার ৬% আইসিইউ শয্যার সুবিধা রয়েছে; যেখানে চীনে ৩%, জাপানে ৩%, যুক্তরাষ্ট্রে ৯% ও সৌদি আরবে ১০% মাত্র।

পক্ষান্তরে স্বাস্থ্যবিধির প্রধানতম হাতিয়ার সর্বাত্মক যথাযথভাবে মাস্ক পরিধান। মাস্ককে কোভিড-১৯ প্রতিরোধের অন্যতম অস্ত্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (ঈউঈ)। ২০২০ সালের জুন মাসে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা এবং জুলাই মাসে সিডিসি করোনা প্রতিরোধে মাস্ককে মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে বর্ণনা দিয়ে বিশ্ববাসীকে সর্বাত্মক মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা দেন। সিডিসি মাস্ককে একটি অত্যন্ত সহজলভ্য ও কার্যকরী করোনা প্রতিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করে।

মাস্ক করোনা সংক্রমণ থেকে ৯০ ভাগ সুরক্ষা দেয়। আক্রান্ত ও সুস্থ্য ব্যক্তি যদি দুজনের মাস্ক পরিধাণরত থাকে তাহলে সংক্রমণের হার মাত্র ১.৫%। ২০২০ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্রের মিসৌরী প্রদেশের এক স্যালুনে দুজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হেয়ার স্টাইলিস্ট মাস্ক পরিধানরত অবস্থায় ১৩৯ জন সুস্থ মানুষের চুল কাটার পর পরীক্ষায় দেখা যায় যে, তাদের কেউই করোনায় আক্রান্ত হননি। চীনের বেশ ক’টি গবেষণায় দেখা যায়, মাস্ক পরিধানের কারণে প্রায় ৮০% লোক করোনা আক্রান্ত হওয়া থেকে রেহাই পেয়েছে।

যুক্তরাজ্যের ৮টি বাণিজ্যিক বিমানে গবেষণায় দেখা যায় যে, কর্তৃপক্ষের মাস্ক ব্যবহারে কড়াকড়ির কারণে দুই হাজার যাত্রীর মধ্যে কেউই করোনায় আক্রান্ত হয়নি। অথচ অপর একটি বিমানে মাস্ক পরার ব্যপারে ঢিলেঢালা নীতির কারণে ২৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়। থাইল্যান্ডে ৮৩৯ জনের মধ্যে এক গবেষণায় দেখা যায়, শুধুমাত্র মাস্ক পরার কারণে তাদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ শতকরা ৭০ ভাগ হ্রাস পায়। মাস্ক পরার কারণে পূর্ব এশিয়ায় ৭০%, জার্মানিতে ৯০% করোনা সংক্রমণ কমে যায়। কানাডার ওয়ান্টারিও শহরের ৩৫টি জনস্বাস্থ্য অঞ্চলে মাস্ক ব্যবহারের অভ্যাসের কারণে প্রতিদিন ২৫-৩৫% করোনা সংক্রমণ হ্রাস পায়।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, মাস্ক করোনা সংক্রমণ ইন্ডেক্স জ কে ১ এর নিচে কমাতে সক্ষম। যার অর্থ হলো করোনা সংক্রমণ স্থায়ীভাবে নিম্নমুখী হয়। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. মনিকা বলেন, মাস্ক শুধু সংক্রমণই কমায় না; এটি কোভিড-১৯ রোগের তীব্রতা ও মৃত্যু হারও কমায়। তারা যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কটি প্রদেশে মাস্কের ওপর পরীক্ষায় এ সিদ্ধান্তে উপনীত হন।

আন্তর্জাতিক গবেষণায় দেখা যায় যে, চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের মাত্র ৫% রোগীর আইসিইউ সেবার প্রয়োজন হয় এবং একটি আদর্শ আইসিইউ সেবা ভর্তি রোগীদের শতকরা প্রায় ৫০ ভাগ মৃত্যু হ্রাস করতে সক্ষম; অর্থাৎ মোটের ওপর শতকরা ২.৫% মৃত্যু কমাতে ভূমিকা রাখে। কিন্তু আইসিইউ স্থাপন, বিশেষজ্ঞ জনবল তৈরি, প্রশিক্ষণ, যন্ত্রপাতি স্থাপন ও মেরামত একটি জটিল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হয়; যা অত্যন্ত দীর্ঘসূত্র ও ব্যয়বহুল।

অথচ বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা, সিডিসিসহ অন্যান্য গবেষণা প্রতিষ্ঠানসমূহ সহজেই প্রমাণ করেন, কোভিড-১৯ সফল প্রতিরোধ যে কোন দেশের জন্য অত্যন্ত সহজলভ্য ও কার্যকরী করোনা প্রতিরোধী অস্ত্র হচ্ছে মাস্ক। এটি বায়ু, শ্বাস ও ধুলিকণা বাহিত করোনাভাইরাসসহ শ্বাসনালীর মাধ্যমে অন্যান্য সংক্রামক রোগও প্রতিরোধ করে। মাস্ক আমাদের হাতের সংস্পর্শে আসা জীবাণু অসচেতনভাবে নাকে মুখে প্রবেশে বাধা দেয়।

শেষ কথা, দেশের মানুষকে সুরক্ষিত করতে ইতোমধ্যে গণটিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে এবং দেশের মোট জনসংখ্যার ২.৬ শতাংশ পূর্ণ ডোজ এবং ৩.৬ শতাংশ প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে। পুরো জনসংখ্যাকে এর আওতায় আনতে সময়ের প্রয়োজন। স্বাস্থ্য খাতের একটি বিশাল জনবল এ টিকা প্রদান কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত রয়েছে এবং থাকতে হবে। স্বাভাবিকভাবে অন্যান্য রোগের রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা ব্যহত হবে। স্বাস্থ্যবিধির ব্যত্যয় কোভিড-১৯ সংক্রমণের তীব্রতা ও দ্রুততা বৃদ্ধি আশঙ্কাজনক অবস্থায় উপনিত করবে; দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার উপক্রম হবে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য সচেতন নাগরিক হিসেবে সার্বজনীনভাবে আমরা সহজলভ্য করোনা প্রতিরোধী অস্ত্র মাস্কের সর্বাত্মক ব্যবহারে নিজে উদ্বুদ্ধ হই এবং অন্যকে সচেষ্ট করে তুলে দেশকে করোনা মুক্ত করতে আত্মপ্রত্যয়ী হই।

[লেখক : সহকারী পরিচালক, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল]

আর পড়তে পারেন