সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনার যত ভ্যারিয়েন্টস, তত ভয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১২, ২০২১
news-image

 

লে. কর্ণেল নাজমুল হুদা খান :

করোনা ভাইরাসের পূর্ব পুরুষদের উৎপত্তি ঘটে আনুমানিক খ্রীষ্টপূর্ব ৮০০০ সালে। আলফা করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ত¡ মিলে খ্রীষ্টপূর্ব ২৪০০, বেটা ৩০০০, গামা ২৮০০ এবং ডেলটা ভাইরাস ধারা তৈরি হয় খ্রীষ্টপূর্ব ৩০০০ সালে। এ ক্রমধারায় ২০০৩ সালে সার্স- কোভি-১, ২০১২ সালে মার্স কোভি এবং সর্বশেষ ২০১৯ সালে সার্স কোভি ২ এর উৎপত্তি ঘটে যা নোবেল করোনা ভাইরাস-২০১৯ নামে বিশ^ব্যাপী পরিচিত।

গত ১৫মে’র পরিসংখ্যান অনুযায়ী কোভিড-১৯ এ বিশ^ ব্যাপী আক্রান্ত হয়েছে ১৬০.৮ মিলিয়ন, মৃত্যু ৩৩ লাখেরও বেশি। বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৭৯ হাজার, মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১২ হাজারের অধিক। বিশে^র তাবৎ দেশ, স্বাস্থ্য সংস্থা, মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য কর্মী, আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং সংবাদ কর্মীসহ সবাই এ রোগ প্রতিরোধ ও প্রতিকারে প্রায় দেড় বছরব্যাপী অবিরাম যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে।
এ পরিস্থিতিতে দ্রুতই বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেন এ রোগের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন। গত ০৮ মে পর্যন্ত বিশ^ব্যাপী প্রায় ৬৫ কোটি লোক প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন পেয়েছেন। ভ্যাকসিনের পুরো ডোজ পেয়েছেন এমন লোকের সংখ্যা ৩১ কোটিরও বেশি। বাংলাদেশে এ পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন পেয়েছেন ৫৮, ১৯,৮৫৪ জন এবং দুই ডোজ সম্পন্ন হয়েছে প্রায় ৩৬ লাখ ৫০ হাজারের বেশি সংখ্যাক লোক।

এ বিধ্বংসী ভাইরাসটিও বসে নেই। পূর্ব পুরুষদের মতোই ক্রমাগত বিবর্তনের ধারা বজায় রেখে চলেছে। এভাবেই করোনা ভাইরাসের হাজার হাজার ধরন বা ভ্যারিয়েন্ট সারা বিশ্বে ঘুরে বেড়াচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে দ্রুত বিস্তারমান এ ভাইরাসের নতুন নতুন স্ট্রেইন বা ভ্যারিয়েন্ট এবং এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ কৌশল নিয়ে গলদঘর্ম হচ্ছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানী, জনসংখ্যা বিশেষজ্ঞ ও স্বাস্থ্য সংস্থাগুলো।

কোভিড-১৯ ভাইরাসের জীবনচক্র:

সব প্রজাতির করোনা ভাইরাসের কোষে সাধারণত স্পাইক (এস), ইনভেলপ (ই), মেমব্রেন (এম) এবং নিউক্লিওক্যাপসিড (এন) নামক চার ধররের প্রোটিন থাকে। চারদিকের আচ্ছাদনটি একটি দ্বিস্তর বিশিষ্ট চর্বির আস্তর দিয়ে গঠিত। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয় ভাইরাসের স্পাইক এবং বাহক কোষের রিসেপ্টরের সংযুক্তির মাধ্যমে। সংযুক্তির পর শারীরবৃত্তিয় প্রক্রিয়ায় ভাইরাসটি বাহকের কোষের ভেতর প্রবেশ করে। বাহক কোষে প্রবেশের পর এটি আবরণমুক্ত হয় এবং ভাইরাল জিনোম সমূহ কোষের সাইটোপ্লাজমে প্রবেশ করে। এরপর ভাইরাসের RNA সমূহ ট্রান্সলেশনের জন্য বাহক কোষের রাইবোজোমের সঙ্গে সংযুক্ত হয়।

এ পর্যায়ে বিভিন্ন প্রোটিন কমপ্লেক্সের সহায়তার RNA সমূহের অনুলিপি তৈরি হতে থাকে। এন্ডেপ্লাজমিক রেটিকুলামের সহযোগিতায় RNA  ট্রান্সলেশন সম্পন্নের পর Spike (S), Envelope (E) এবং  Membrane(M) এর সংশ্লেষ ঘটে এবং ভাইরাসটি বাহক কোষের গলজি বডির প্রকোষ্টে অবস্থান করে। ইতিমধ্যে প্রয়োজনীয় নিউক্লিও ক্যাপসিড গঠিত হলে নতুন ভাইরাস সমূহ গলজি বডি থেকে বের হয়ে বাহক কোষে অবস্থান করে। এক পর্যায়ে কোষ থেকে বের হয়ে আন্তঃকোষীয় স্পেসে অবস্থান নেয় এবং আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি ও কাশির মাধ্যমে নির্গত হয়ে অপরাপর ব্যক্তির সংস্পর্শে আসে।

চিত্র: করোনা ভাইরাসের জীবনচক্র

মিউটেশন কিভাবে ঘটে:
করোনা ভাইরাস একটি RNA ভাইরাস এ সংক্রমনকালে একটি থেকে অনেক ভাইরাসের অনুলিপি সৃষ্টি হওয়ার সময় এর গঠনে যে পরিবর্তন ঘটে তাকে মিউটেশন বা রূপান্তর বলা হয়।
সংক্রমনের সময় করোনা ভাইরাসের ইনভেলপে থাকাস্পাইক প্রোটিনের মাধ্যমে বাহক কোষের রিসেপ্টরের সঙ্গে সংযুক্ত হয়। এ স্পাইকের একটি ক্ষুদ্র অংশের নাম রিসেপ্টর বাইন্ডিং ডোমেইন RBD। প্রকৃত পক্ষে (RBD ই বাহক কোষের এসি-২, রিসেপ্টরের (Angiotensin Converting Enzyme 2) সঙ্গে বন্ধন সৃষ্টি করে বাহক কোষে প্রবেশ করে। অনুলিপি তৈরি করার সময় মূলত এ রিসেপ্টর বাইন্ডিং প্রোটিনেই মিউটেশন ঘটে। যার ফলে ভাইরাসটির সংক্রমন ক্ষমতার পরিবর্তন ঘটে।

কেন মিউটেশন:
বিজ্ঞানী ও গবেষকদের মতে সময়, স্থান ও পাত্রের সঙ্গে সব ভাইরাসেরই পরিবর্তন ঘটে। সার্স কোভি-২ ভাইরাসেও এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নয়। করোনা ভাইরাস এক দেহ থেকে অন্য দেহে সংক্রমণের পর বাহক কোষে শরীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় অসংখ্য অনুলপি সৃষ্টি করে। নতুন ভাইরাস তৈরির সময় জিনোমে পরিবর্তন ঘটে এবং সৃষ্টি হয় নতুন নতুন স্ট্রেইন। প্রাকৃতিক কারণে ভাইরাসের যত বেশি বিস্তার ঘটবে তত বেশি নতুন স্ট্রেইনের আবির্ভার ঘটবে বলে বিজ্ঞানীদের মত।

মানুষের শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে চলার ক্ষমতা অর্জনের জন্যও ভাইরাস নতুন স্ট্রেইনের উৎপত্তি ঘটায়। এ ছাড়া স্পাইক প্রোটিনের মাধ্যমে দ্রুততার সাথে সংক্রমণ, বাহকের শরীরে উৎপন্ন এন্টিবডিকে অকার্যকর করণ, ডায়াগনষ্টিক পদ্ধতিকে ফাঁকি দেওয়া, প্রতিকার, প্রতিষেধক বা ভ্যাকসিনকে অকার্যকর করা ইত্যাদি কারণেও ভাইরাসের মধ্যে মিউটেশন ঘটে ।

তবে বিজ্ঞানীদের মতে নতুন স্ট্রেইন আগের তুলনায় বেশি ক্ষতিকর হবে কিনা তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। অনেক ক্ষেত্রে এ পরিবর্তন ভাইরাসটিকে দূর্বল করে দিতে পারে কিংবা ভাইরাসটির প্রকৃতিতে বেঁচে থাকার অন্তরায়ও হতে পারে।

মিউটেশনের ক্ষতিকর প্রভাব:
গবেষকদের তথ্য-উপাত্ত অনুযায়ী সার্স কোডি-২ এর মিউটেশনের কারণে নিম্নোক্ত ক্ষতিকর প্রভার দেখা দিতে পারে।
১. সংক্রমণ ক্ষমতা বৃদ্ধি।
২. অসুস্থতার তীব্রতা এবং মৃত্যুর হার বৃদ্ধি।
৩. প্রচলিত ডায়াগনষ্টিক পরীক্ষায় সনাক্ত না হওয়া।
৪. এন্টিভাইরাস ওষুধসমূহকে অকার্য্যকর করা।
৫. প্রতিরোধ ক্ষমতাকে অকার্য্যকর করণ।
৬. ভ্যাকসিন গ্রহণের পরও ভাইরাসের সংক্রমণ ।
৭. শিশু বা Immuno Compromised ব্যক্তিদের দেহে সংক্রমণ বৃদ্ধি।
৮. Multi Systemic inflamatory Syndrome  বা Long Covid Syndrome এর ঝুঁকি।

বৈশ্বিক মহামারীতে করোনার আলোচিত স্ট্রেইন সমূহ :
চীন স্ট্রেইন : D614G নামের ভাইরাসটি চীনের উহানে ২০২০ সালে জানুয়ারি মাসে সনাক্ত হয় এবং জুন মাসের মধ্যে এটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। এ স্ট্রেইনে স্পাইক প্রোটিনে মিউটেশন ঘটে এবং দ্রুত সংক্রমণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। প্রায় এক হাজার জিনোম সিকোয়েন্সীং এ ২০২০ সালের মার্চের পূর্ব পর্যন্ত ১০ শতাংশ, ১-৩১ মার্চ পর্যন্ত ৬৭ শতাংশ এবং এপ্রিল থেকে মে মাস পর্যন্ত ৭৮ শতাংশ পর্যন্ত এ স্ট্রেইনের অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

দক্ষিণ আফ্রিকা স্ট্রেইন: (B.1.351): দক্ষিণ আফ্রিকায় অধিকাংশ আক্রান্তের ক্ষেত্রে এ স্ট্রেইন পাওয়া যায়। অতি দ্রুত এ ভাইরাস বিশ্বের ৪০টি দেশে ছড়িয়ে পড়ে। স্পাইকের E484K প্রোটিনের পরিবর্তনের কারণে এটি পূর্বে আক্রান্ত রোগীর শরীরে উৎপন্ন এন্টিবডিকে এড়িয়ে চলা এবং কিছু ভ্যাকসিনকে অকার্যকর করার ক্ষমতা রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ব্রাজিল স্ট্রেইন: (P.1): ব্রাজিল স্ট্রেইনটি পৃথিবীর ২১টি দেশের ছড়িয়ে পড়েছে বলে প্রমাণিত। ২০২০ সালের অক্টোবর অবধি ব্রাজিলের প্রায় ৭৬ শতাংশ মানুষ এ স্ট্রেইনে আক্রান্ত হয়। এটিও দক্ষিণ আফ্রিকা স্ট্রেইনের ন্যায় এন্টিবডির উপস্থিতিতে এবং ভ্যাকসিন গ্রহণকারীর দেহে সংক্রমণের ক্ষমতা রয়েছে ।

যুক্তরাজ্য স্ট্রেইন: (B.1.1.7): এ স্ট্রেইনটি যুক্তরাজ্যে আক্রমণের দ্বিতীয় ডেউয়ের জন্য দায়ী বলা হয়ে থাকে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্ট্রেইন শ্রেণী বিন্যাসে এটিকে “Variant of Concern” হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। এ নতুন ভ্যারিয়েন্ট পূর্বেও তুলনায় ৭০ ভাগ বেশি সংক্রমণ ক্ষমতা সম্পন্ন এবং ৬৪ ভাগ অধিক মৃত্যু ঘটাতে সক্ষম। এ পর্যন্ত এ ভাইরাসে ১৭ বার পরিবর্তন ঘটিয়েছে বলে গবেষকদের দাবি।

যুক্তরাষ্ট্র স্ট্রেইন: (B.1.427): পৃথিবীর প্রায় ৯০টি দেশে এর অস্তিত্ব পাওয়া যায়। L452R  এবং  Q677  এবং  E484K সমূহ এ স্ট্রেইনের অন্যতম মিউটেশন। CDC এর ভাষ্যমতে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬টি প্রদেশে এ স্ট্রেইন সনাক্ত হয় এবং ক্রমান্বয়ে সরাদেশেই এটি ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করা হয়।

ভারত “ডাবল ভ্যারিয়েন্ট” স্ট্রেইন B.1.617:  এ স্ট্রেইনের সংক্রমণের ক্ষমতা বেশি এবং সহজে বাহকের কোষে প্রবেশ করতে পারে। E484Q এবং L452R মিউটেশন এ ষ্ট্রেইনকে এন্টিবডিকে ধোঁকা দেওয়ার ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়ক। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পাবলিক হেলথ এন্ড মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের মতে, ইতিমধ্যে ২১টিরও অধিক দেশে এ স্ট্রেইন ছড়িয়ে পড়েছে এবং কমপক্ষে ১৩ বার মিউটেশন ঘটেছে।

ভারত “ট্রিপল মিউট্যান্ট স্ট্রেইন” B.1.618 : ভারতে করোনার ডাবল মিউট্যান্ট আতঙ্ক শেষ না হতেই “ট্রিপল মিউট্যান্ট ষ্ট্রেইনের কথা শোনা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গ, মহারাষ্ট্র, দিল্লি ও ছত্তিশগড় প্রভৃতি ৪টি প্রদেশে এটি ছড়িয়ে পড়েছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। এ নয়া উচ্চতর ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ ক্ষমতা প্রায় ৩গুন বেশি। তিনটি মিউটেশনের সমন্বয়ে এ নতুন ভাইরাসের আবির্ভাব বলে এ স্ট্রেইনের এমন নামকরণ। ভারতের পশ্চিম বঙ্গে সর্বাধিক উপস্থিত বিধায় “বেঙ্গল স্ট্রেইন” নামেও ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছে। এর তিনটি মিউটেশন হচ্ছে:
১, স্পাইক প্রোটিনে ১টি deletion এবং ২টিতে পরিবর্তন।
২. ট্রিপল ষ্ট্রেইনের ক্ষেত্রে H146 এবং Y145 স্পাইক প্রোটিন delete হয়েছে।
৩. E.484K এবং D6144 স্পাইক প্রোটিনে পরিবর্তন হয়েছে।
তবে এখনো পর্যন্ত ট্রিপল মিউট্যান্ট স্ট্রেইনের বিশেষ কোনো তথ্য নেই গবেষকদের নিকট। তাই “ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন” এর বদলে “ভ্যারিয়েন্ট অব ইন্টারেষ্ট” শ্রেণীতেই রাখা হয়েছে এ স্ট্রেইনটিকে।

বাংলাদেশে করোনার স্ট্র্রেইন:

আইসিডিডিআর’বির গবেষণার তথ্য অনুযায়ী ৪৫০টি জিনোম সিকোয়েন্সিং এ ৩০টি যুক্তরাজ্য স্ট্রেইন (B.1.1.7) এবং ২টি সাউথ আফ্রিকা স্ট্রেইন সনাক্ত হয়েছে। জিআইএসএআইড, বাংলাদেশ তাদের জিনোম সিকোয়েন্সিং মাধ্যমে সনাক্ত করেছে ১০টি যুক্তরাজ্য স্ট্রেইন ও ৫টি সাউথ আফ্রিকা স্ট্রেইন। বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার তথ্য মতে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের ১২০টি জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ে যুক্তরাজ্য স্ট্রেইন সনাক্ত হয়েছে প্রায় ৭০ শতাংশ। আইইডিসিআর সূত্র মতে. বাংলাদেশে ইতিমধ্যে বেশ ক’জন রোগীর শরীরে সনাক্ত হয়েছে করোনার ভারত ভ্যারিয়েন্ট। দ্রুত সংক্রমণশীল করোনার এ ভ্যারিয়েন্ট দ্রæত আমাদের দেশে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর ২য় ঢেউয়ের পরিস্থিতি:
গত বছর মহামারীর শুরুতে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রতিদিন ৩৫ থেকে ৩,৫০০ হতে সময় লেগেছিল ৩ মাসেরও অধিক। অথচ ২য় ঢেউয়ের শুরুতে দৈনিক ৩০০ জন থেকে এ সংখ্যা ৭,০০০ হতে সময় লেগেছে মাত্র এক মাস।

আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যু দু’টিই ১ম ঢেউয়ের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণের পরও মাত্র এক মাসেই কোভিড হাসপাতালগুলোতে হু হু করে রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে। এক মাসের ভেতরেই শয্যা ও আইসিইউ দুুটিই নিঃশেষ হয়ে যায় অধিকাংশ হাসপাতালের।

দেশের অর্থনীতি, উন্নয়ন ও জীবন জীবিকার প্রয়োজনকে বিবেচনায় রেখে কোভিড মহামারী রুখতে ব্যাপক জনসচেতনা সৃষ্টির বিভিন্ন পদক্ষেপের পাশাপাশি কোভিড হাসপাতালগুলোকে সর্বোত্তম প্রস্তুতি রাখছে সরকার। জনগণকে এসব পদক্ষেপে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। বৈজ্ঞানিক তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে করোনার বিরুদ্ধে আরো ফলপ্রসূ লড়াইয়ের জন্য এ পরিস্থিতিতে মিউটেশন সার্ভেল্যান্স এবং সেরো সার্ভেল্যান্স কর্মসূচি গ্রহণ এবং এর উপর ভিত্তি করে জনসচেতনতা জোরদার করা প্রয়োজন।

লেখক :

লে. কর্ণেল নাজমুল হুদা খান . এমফিল, এমপিএইচ

অ্যাসিসট্যান্ট ডিরেক্টর
কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, ঢাকা

আর পড়তে পারেন