বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনার প্রভাবে হ্রাস হবে নারীর আয় ও সমতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০২১
news-image

ইয়াসমীন রীমা:
করোনার করাল গ্রাসে ইতোমধ্যেই নানা মাত্রার ছন্দপতন ঘটিয়েছে দৈনন্দিন জীবনে। আমাদের এই পৃথিবী এখন একটি কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। একটি আতঙ্কিত ভাইরাসের বায়ু বইছে আজ পৃথিবীব্যাপী। যে ভাইরাসের নাম করোনা ভাইরাস বা কোডিভ-১৯। ধনী-গরিব উচু-নীচু উন্নত অনুন্নত বলে কাউকে রেহাই দিচ্ছে না এই ভাইরাস রীতিমতো থমকে দাঁড়িয়েছে এই বিশ^জগত। বিশ্বের প্রায় ১৯০টি দেশে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে কারণে ১৭০কোটি বেশি মানুষ গৃহবন্দী অবস্থায় রয়েছে।

করোনার কারনে ঘরবন্দি হয়ে পড়ছে বিশ্বের একে পর শহরের বাসিন্দারা। ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন দেশের সরকার প্রায় ১৭০ কোটি মানুষকে ঘরবন্দি থাকার নির্দেশ দিয়েছে, যা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় ২০শতাংশ। বিশ্বব্যবস্থার ব্যাষ্টিক ও সামষ্টিক অর্থনীতিকে যুগ্মভাবে আঘাত করে দলিতমলিত করে দিয়েছে করোনা। ওয়ার্ল্ড ট্রেড ইউনিয়নের ধারণামতে, ২০২০ সালে বিশ্ববাণিজ্য ১৩-৩২ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে। এই নতুন মহামারিতে নারীদের ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। স্বাস্থ্যগত, অর্থনৈতিক, পারিবারিক সবদিক থেকেই সমূহ ক্ষতির শিকার হতে পারে নারীরা। দেশে বিভিন্ন সেক্টরে কর্মজীবী মানুষের সংখ্যা ৮কোটি ৮২লাখ। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি মতে, ২৬ মার্চ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটিচলাকালীন কর্ম হারিয়েছে যারা,তাদের অবস্থাই নতজানু নয় কর্ম থেকেও অনেকের অনিয়মিত ও আংশিক বেতনভাতা হয়েছে।বিশ^ব্যাপী একান্তই পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীরাই প্রিয়জনদের খাতিরযতœ সেবা পরিচর্যা করার দায়িত্বে নিয়োজিত অধিক। ফ্যামিলি কেয়ারগিভার অ্যালায়েন্সের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে পৃথিবীতে ৭৫% বেশি নারী পরিবারের ক্ষেত্রে এই ভূমিকা পালন করে আসছে। পুরুষেরা নারীদের সহযোগিতা করলেও পরিবারের সদস্যদের পরিচর্যা বা সেবা প্রদান করার ক্ষেত্রে নারীদেরই সময় ক্ষেপন করতে হয় বেশি। হিসেবে করে দেখা গেছে পুরুষের তুলনায় নারীরা ৫১.৫০%বেশি সময় প্রদান করে থাকে।
করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী বেশ কিছু দেশ সম্পূর্ণ লকডাউন করা হয়েছে। এসব দেশে সবাই গৃহবন্দী অবস্থায় থাকায় গৃহস্থালী কর্মের চাপ এসে পড়েছে গৃহের নারীদের উপর। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে গ্যালাপের একটি জরিপে দেখা গেছে, সন্তানদের দেখাশোনা খেয়ালখোঁজ ক্ষেত্রে প্রতিদিন পুরুষদের তুলনায় নারীদের প্রায় ৭ গুণেরও বেশি সময় প্রদান করতে হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে নারীদের ওপর সেই চাপ আরও বৃদ্ধি পাবে বরং হ্রাস পাবেনা।

এলিভেট নেটওয়ার্ক নামের একটি প্রতিষ্ঠান যারা কেবল নারীদের নিয়ে কাজ করে,এর প্রধান নির্বাহী ক্রিষ্টি ওয়ালেস বলেন,“ একটি পরিবারে নারীদের সাধারণত প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মুখ্য বিনোদন কর্মকর্তা ও প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা- এই তিনধরণের কাজই করতে হয়ে। সংকটকালে যখন আমরা কী করব বুঝে উঠতে পারি না আতঙ্কগ্রস্থ ও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ি তখন এতগুলো ভূমিকা পালন করা নারীদেরর জন্য অসহনীয় হয়ে ওঠে।”
বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার মানসিক স্বাস্থ্যের আঞ্চলিক অ্যাডভাইজার ড. নাজনীন আনোয়ার বলেন,”করোনার এসময়ে বিশ^ব্যাপী মানসিক রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বিশেষ করে নারী । তাদের মধ্যে নানা ধরণের বিষন্নতা তৈরি হচ্ছে। করোনা আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে এক ধরণের চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে কাজ করছে।”

অপরপক্ষে একটি মহামারি নারীদের জন্য পৃথিবীকে আরও বৈষম্যমূলক করে তোলে। যদিও এখন রাজনীতিবিদেরা মতে দিচ্ছেন যে যেন শুধুই তাৎক্ষণিক সংকটের দিকে মনোযোগ রাখা হয়। কিন্তু মহামারির ইতিহাস বলে, পরবর্তী পরিস্থিতি আরও ভয়ানক হয়ে ওঠে নারীর জন্য। যেমন, ইবোলা ভাইরাস পশ্চিম আফ্রিকায় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল। বিশ্লেষকেরা বলেছেন, ইবোলা সংক্রমণ একটু থিতিয়ে আসার পরে পুরুষদের পারিশ্রমিক ঠিকই দ্রুততম সময়ে আগের জায়গায় ফিরে গেলেও নারীদের পারিশ্রমিক মহামারি হওয়ার আগের পর্যায়ে ফিরতে ঢের সময় লেগেছিল এবং এই অবস্থা চলেছিল প্রায় বছরখানেক ধরে। এর বাইরে বেড়ে গিয়েছিল নারীর প্রতি পারিবারিক সহিংসতা ও যৌন নিপীড়ন ঘটনাও। সাধারণত লকডাউন পরিস্থিতিতে এসব ঘটনা বেশি ঘটতে দেখা গেছে।

এদিকে বেশিরভাগ গৃহকত্রী খন্ডকালীন গৃহকর্মীকে আসতে নিষেধ করে দিয়েছেন। গৃহকর্মীকে আসতে নিষেধ করে দিয়েছেন। গৃহকর্মী আসছেন না, ফলে ঘরের কাজ করতে হচ্ছে বাড়ির ওই গৃহকত্রীকেই। অর্থনীতিবিদ হেলেন লুইস সম্প্রতিকালে করোনা দুর্যোগ নিয়ে আটলান্টিক গ্লোবাল পত্রিকায় বলছেন, এটা শুধু একটা জনস্বাস্থ্য ক্রাইসিস-ই নয়, অর্থনৈতিক সংকটও বটে, আর এই ক্রাইসিসে শেষ অবধি সবচেয়ে বেশি ভুগবেন নারীরাই। অধিকাংশ ফেসেবুকে পোষ্টে সন্তানদেরর সঙ্গে সময় কাটানোর অভানীয় মুহুর্ত্যগুলোর সাথে তুলে ধরেছেন।

জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) এবং নারী বিষয়ক সংস্থা ইউএন উইমেনের নতুন উপাত্ত জানাচ্ছে, করোনা ভাইরাসের কোভিড-১৯) মহামারির জেরে চরম দারিদ্র্য বৃদ্ধি পাবে। নারী দরিদ্র হবে অধিক। কাজের সুযোগ আয় স্বাস্থ্য,অবৈতনিক শ্রম এবং সহিংসতা-সব দিক দিয়ে নারীর অবস্থান আরও নাজুক ও অসম হবে। তাছাড়া ২০২১সালের মধ্যে বিশে^ ১ কোটির অধিক মানুষ দারিদ্র হবে আর এই মানুষগুলোর প্রায় অর্ধেকেই থাকবে নারী ও মেয়ে শিশু। চরম দরিদ্র নারীর মোট সংখ্যা হবে ৪ কোটি ৫০লাখ। গৃহস্থালির কর্মসহ সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষেত্রগুলোতে নারী কর্মী বেশি। অধিকন্ত দেশে ৩০০ পোশাক কারখানা বন্ধ হয়ে লাখের ওপর শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। যার বেশিভাগই নারী। বেসরকারী কিন্ডারগার্টেনগুলোতে অনেক নারী কাজ করতো। গৃহকর্মী বিউটি পারলার ক্ষুদ্র উদ্যোগের মতো নারীপ্রধান খাতগুলোতেও কাজ প্রায় বন্ধ।

সম্প্রতি হিউম্যান জিনোমিক্স জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাপত্রে উল্লেখ, নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণে এখন পর্যন্ত মৃত্যুহার বেশি পুরুষদের মধ্যে। নারীদের মধ্যে মৃত্যুহার অনেক কম। ইতালিতে মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ৭০%পুরুষ। চীনে কয়েক হাজার মানুষের মধ্যে চালানো গবেষণায় দেখা গেছে, মোট মৃত মানুষদের মধ্যে ৬৪% পুরুষ। দক্ষিণ কোরিয়ায় এটি ৫৪%। বিজ্ঞানীরা বলছেন, পুরুষদের বেশি মারা যাওয়ার পেছনের একটি হচ্ছে জীববিজ্ঞানগত। নারীদের দুটি ‘এক্স’ ক্রোমোজম থাকে। এই ‘এক্স’ ক্রোমোজোমে রোগপ্রতিরোধী বেশ কিছু জিন থাকে। যেহেতু পুরুষদের একটি ‘এক্স’ ক্রোমাজেম থাকে, তাই তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নারীদের তুলনায় স্বাভাবিকভাবেই কম থাকে। ফলে রোগের সঙ্গে লড়াই ও সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠার প্রবণতা নারীর বেশি থাকে। সময় এখন সেবা, পরিচর্যা এবং সহানুভূতির মাধ্যমে যুদ্ধজয়ের। বিশ^জুড়ে মানব মাত্রেরই অভিন্ন আবেদন-‘সচেতন সতর্ক থাকি, ভয় না পাই, স্বার্থপর না হই।

আর পড়তে পারেন