বুধবার, ১৩ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনাকালে শিক্ষাঙ্গনে স্বাস্থ্যসুরক্ষায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১
news-image

 

লে.কর্ণেল নাজমুল হুদা খান:

দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর ধাপে ধাপে খুলছে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। করোনার বৈশ্বিক অতিমারি বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ২২৯টি দেশ ও অঞ্চলে করোনা প্রতিরোধের লক্ষ্যে বিভিন্ন মেয়াদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ বন্ধ ছিল। ইউনিসেফের রিপোর্ট অনুযায়ী এ অতিমারির কারণে বিশ্বে ১৬ কোটি শিশু স্কুলজীবন শুরু করতে পারেনি। বাংলাদেশে এর সংখ্যা প্রায় ৪০ লাখ। আমাদের দেশে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের কারণে এ দীর্ঘ পরিসরে শিক্ষাঙ্গন বন্ধ থাকার পরও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে যায়।

ইউনিসেফের মতে, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর দরিদ্রতা, অসমতা, ইন্টারনেট ও ডিভাইসের অভাবে বিশেষ করে গ্রামীণ অঞ্চলে এ কার্যক্রম অনেকটা বাধাগ্রস্ত হয়। ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে মানসিক ভারসাম্যহীনতা, শিক্ষা থেকে ঝরে পড়া, শিশুশ্রম ও বাল্যবিবাহের মতো ক্ষতিকর প্রভাব দেখা যায় সারা বিশ্বে; বিশেষ করে তৃতীয় বিশ্বের দেশসমূহে।

আমাদের দেশে করোনা অতিমারির প্রকোপ বিভিন্নপর্যায়ে কিছুটা কমতির লক্ষণ দেখা দিলে, কয়েক দফা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ খোলার চেষ্টা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি ব্যাহত করে দেয়। এ পর্যায়ে করোনা সংক্রমণের সর্বশেষ তথ্য, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, ইউনেসকো, বিশ্বব্যাংক, যুক্তরাষ্ট্র সিডিসি এবং দেশের করোনাবিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির সুপারিশ ও পরামর্শ মোতাবেক ১২ সেপ্টেম্বর থেকে বিভিন্ন ধাপে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ খোলার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সায়েন্স মার্স জার্নাল ২০৬টি গবেষণা বিশ্লেষণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখায় দেশের সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পায় বলে মতপ্রকাশ করে এবং এ হার জাতীয়ভাবে মোট সংক্রমণ হ্রাসের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ। ইউনিসেফ ও ইউনেসকোর মতে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা কোনো দেশে সংক্রমণ বৃদ্ধির জন্য তেমন একটা দায়ী নয়। দক্ষিণ কোরিয়ায় দীর্ঘদিনের বিরতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর প্রাথমিক স্তরের জন্য সংক্রমণ ১.৭ গুণ এবং মাধ্যমিক স্তরের জন্য প্রায় ৩ গুণ বৃদ্ধি পায়। যুক্তরাজ্যে ক্লাসে অর্ধেক শিক্ষার্থী নিয়ে কার্যক্রম চালানোয় সংক্রমণের হার বাড়েনি। তবে মাধ্যমিক স্তরের স্কুলের ক্ষেত্রে সংক্রমণ কিছুটা বৃদ্ধি ঘটে। যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়া করোনা সংক্রমণের প্রথম দিকে ছাত্রদের ঝঁঢ়বৎ ঝঢ়ৎবধফবৎ হিসেবে অভিহিত করলেও বিভিন্ন গবেষণায় তা প্রমাণিত হয়নি। স্কুল খোলার পর যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কটি স্কুলের প্রায় ৯০,০০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র ৩২ জন করোনা আক্রান্ত হয়। অন্য একটি জরিপে ২০ হাজার ছাত্রছাত্রীর মধ্যে মাত্র ২ জনের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়। তবে কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের শিক্ষার্থী যেহেতু বেশি সাধারণ মানুষের সংস্পর্শে আসে, তাই এসব শিক্ষার্থী সামাজিক সংক্রমণ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখে বলে গবেষণায় উল্লেখ করা হয়।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ খোলার পর শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং করোনা সংক্রমণের হার যাতে বৃদ্ধি না পায় সে লক্ষ্যে নীতিমালা ও দিকনির্দেশনা প্রণয়ন করা হয়। এ নীতিমালায় প্রধানত ৩টি বিষয়ের ওপর জোর দিয়ে করা হয়। এক. তুলনামূলক অধিক ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীর স্তর, দুই. শিক্ষাকার্যক্রমের সময়সূচি ও শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর সংখ্যার হ্রাস এবং ৩. সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি। তবে, কিছু কিছু দেশ সংক্রমণের ওপর কম প্রভাব বিস্তার করে এমন উপাত্তের ভিত্তিতে শুধু প্রাথমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ খুলে দেয়। কতক দেশে শিক্ষার্থীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ যথা : পাবলিক পরীক্ষা ইত্যাদির নিরিখে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়। সময়সূচির পরিপ্রেক্ষিতে ক্লাস শুরু, বিরতি ও ছুটির সময়কে শ্রেণিভেদে আলাদা করা এবং কতক অঞ্চলে ক্লাসের শিফট ও দিবসের পরিবর্তন আনা হয়। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রযোজ্যদের ক্ষেত্রে মাস্ক পরিধানে বাধ্যবাধকতা, তাপমাত্রা পরীক্ষা, ক্লাসে শিক্ষার্থীর সংখ্যা হ্রাস বা সেকশন সংখ্যা বৃদ্ধি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিতকরণ, উপসর্গযুক্ত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে অংশ না নেওয়া এবং করোনা স্ক্রিনিং ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। তবে অনেক দেশে সংক্রমণ হার বৃদ্ধি পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ ও ইউনেসকো যৌথ নির্দেশাবলিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার জন্য বিভিন্ন স্তর যথা- ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের যৌথ অংশগ্রহণমূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করে। এ ছাড়া স্থানীয় ও জাতীয় সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সামাজিক ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে যথাযথ দিকনির্দেশনা, অসুস্থ শিক্ষার্থীদের স্কুলে না পাঠানো, অযথা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এলাকায় ভিড় বা জমায়েত না করা এবং স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করে তোলার মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার উদ্যোগকে সাফল্যে পরিণত করার সব প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

করোনা অতিমারিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্তকে ফলপ্রসূ করতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের রয়েছে মুখ্য ভূমিকা। করোনা প্রতিরোধে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা সংক্রমণ হ্রাসে সহায়ক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষই মূলত সংক্রমণের প্রধান ক্ষেত্র। সংক্রমণ হ্রাসে ক্লাসরুমসমূহে করণীয় সমূহের মধ্যে রয়েছে- ক্লাসরুমসমূহে মাস্ক পরিধান, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখার ব্যবস্থা, ঘন ঘন হাত ধোয়া, হাঁচি-কাশির সৌজন্যতা, ক্লাস ও ক্লাসের আসবাবপত্র পরিচ্ছন্নতা, আলো-বাতাস চলাচলের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ নিশ্চিতকরণ।

৯ দফা নির্দেশনা প্রণয়নে কোভিড-১৯-সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটি। এ কমিটি দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়াকে স্বাগত জানিয়ে ৯ দফার একটি নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট সবাইকে বিবেচনায় রাখতে অনুরোধ জানিয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ৫ বছরের কমবয়সি শিক্ষার্থী ছাড়া সবাইকে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান, হাত ধোয়া ও সাধারণ পরিচ্ছন্নতা মেনে চলা, বিদ্যালয়ে সব ধরনের জনসমাগমজনিত কর্মসূচি বন্ধ রাখা, পরীক্ষার্থীরা ছাড়া অন্য শিক্ষার্থীদের ক্লাস সপ্তাহে ১-২ দিন চালু রাখা, সংক্রমণের লক্ষণ থাকলে ১৪ দিন পর্যন্ত বাড়িতে অবস্থান, স্কুলে সংক্রমণ পর্যবেক্ষণ ও রিপোর্টিং এবং সব বিধিনিষেধ নিশ্চিতকল্পে মনিটরিং টিম গঠন। এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ১৯ দফা দিকনির্দেশনা প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (বাউশি)। এর মধ্যে প্রতিষ্ঠানের সবাইকে মাস্ক পরিধান, হাত ধোয়া ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা; প্রতিষ্ঠানে ঢোকার সময় সবার তাপমাত্রা পরীক্ষণ, প্রতি স্কুলে আইসোলেশন কক্ষ স্থাপন, ক্লাসরুমে শারীরিক দূরত্ব বজায়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ক্লাসরুমের সব স্থানে পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিতকরণ, করোনা সচেতনতামূলক পোস্টার, ব্যানার স্থাপন এবং স্বাস্থ্যবিধি পালনে নজরদারির জন্য শিক্ষকদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন এবং ম্যানেজিং কমিটি ও অভিভাবকদের সঙ্গে মিটিং করে যৌথ উদ্যোগে সব কার্যক্রম সফল করা।

মহামারির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা এবং বিকল্প পদ্ধতিতে শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনার ইতিহাস নতুন নয়। নিকট অতীতে শত বছর আগেও আমেরিকা ও ইউরোপের অনেক দেশে স্কুল বন্ধ রাখা, অতঃপর খোলা আকাশের নিচে শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনার ইতিহাস রয়েছে। ভয়ংকর করোনা অতিমারিতে বাংলাদেশসহ দুই শতাধিক দেশে বিভিন্ন মেয়াদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হয়। সংক্রমণের হার প্রায় ১০ ভাগ থাকার পরও আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত ঘোষিত হয়েছে। তৃতীয় বিশ্বের দেশ হিসেবে করোনার ব্যাপক সংক্রমণ সত্ত্বেও মানুষের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রেখে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও উন্নয়ন কার্যক্রম চলমান রাখতে সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ। অভিভাবক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সংশ্লিষ্ট সবার ঐকান্তিক সহযোগিতায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার এ উদ্যোগ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির মতোই সফল হবে, এটি আমাদের বিশ্বাস। গত দেড় বছরের অধিক সময়ব্যাপী করোনা যুদ্ধে একে প্রতিরোধের সব কৌশল আমাদের জানা। উপরন্তু কোভিড-১৯ জাতীয় পরামর্শক কমিটি ও মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক অধিদপ্তর, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিজ্ঞানভিত্তিক তথ্য-উপাত্তের আলোকে সুস্পষ্ট নির্দেশনা প্রদান করেছে। এসব নির্দেশনার যথাযথ নিশ্চিত করা সম্ভব। আসুন আমরা সবাই আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আলোর পথে এগিয়ে নিতে করোনাকালে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিজ নিজ দায়িত্বটি সঠিকভাবে পালনে সচেষ্ট হই।

লেখক : জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, সহকারী পরিচালক

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, কুর্মিটোলা, ঢাকা

আর পড়তে পারেন