মঙ্গলবার, ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কবে চলাচল উপযোগী হবে লাকসাম-কুমিল্লা সড়ক?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৭, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

ভাঙা ইটের খোয়া ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। পিচঢালাই ওঠে বড় বড় খানাখন্দের সৃষ্টি হওয়ায় ময়লা-আবর্জনা এবং নোংরা পানি আটকে রয়েছে। পানিতে সড়ক বিলীন। এর মধ্যেই নানা ধরনের যান চলছে ছলাৎ ছলাৎ ঢেউ তুলে। হাঁটুপানি ভেঙে হাঁটতে গিয়ে পথচারী বেসামাল।

যেখানে পানি একটু বেশি, সেখানে চলা মুশকিল। পারাপারে নৌকার কাজ সারছে রিকশা।দেখলে মনে হবে যেন কোনো ডোবা-নালা। অথচ এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। লাকসাম রেলস্টেশন থেকে বাইপাসে পর্যন্ত রাস্তায় এ দৃশ্য দেখা গেছে। কয়েক বছর ধরে রাস্তাটির এমন খারাপ অবস্থায় পড়ে থাকলেও কোনো ধরনের সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি বলে জানান স্থানীয়রা।

এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী হাজার হাজার মানুষ। কেননা কুমিল্লা-লাকসাম-নোয়াখালী মানুষের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা এটি। কিন্তু রাস্তাটির এমন করুণ অবস্থার কারণে যানবাহন অথবা হেঁটে কোনোভাবেই চলাচল করা যাচ্ছে না। রাস্তায় কাদাপানি জমে থাকায় বাস, ট্রাক, রিকশা ও ছোট ছোট যানবাহন প্রায় সময়ই দেবে যাচ্ছে। আর হেঁটে যাওয়া পথচারীরা জুতা হাতে নিয়ে কোনোমতে পার হচ্ছেন। আবার স্থানীয়রা দোকানদার নিজস্ব উদ্যোগে কিছু ইট ফেলায় কিছুটা চলার ব্যবস্থা হলেও বৃষ্টি এলে তা কাজে আসছে না। লাকসাম রেলস্টেশন এলাকা হয়ে পুরো লাকসাম শহর রাস্তায় এ অবস্থা চলছে। শুধু বর্ষা নয়, শুষ্ক মৌসুমেও এ রাস্তায় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয় বলে জানান, স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা।

কারণ ভাঙ্গাচুরা এবরোখেবড়ো ইট আর উঁচুনিচু রাস্তার ওপর দিয়ে রিকশায় চললেও চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। আর শুষ্ক মৌসুমে ধুলাবালি তো আছেই। সব মিলিয়ে শুষ্ক-বর্ষা উভয় মৌসুমেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে রাস্তাটি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, কম বৃষ্টিতে ড্রেন এবং বেশি বৃষ্টিতে খালের রূপ ধারণ করা তাই অগ্রাধিকারভিত্তিতে রাস্তাটির উন্নয়ন কাজ করার দাবি জানান তারা। জরাজীর্ণ সড়কগুলো উন্নয়নের জন্য জনপ্রতিনিধিদের যেমন কোন মাথা ব্যথা নেই।

আর পড়তে পারেন