সোমবার, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কবিতা: অসমাপ্ত তুমি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২২, ২০২০
news-image

 

মাহমুদুল হাসান তুহিন:

আমি শুনেছি বেদেনির আর্তনাদ
প্রসব যন্ত্রণায় কুঁচকে যাওয়া কালো মুখ
আর দিগন্তে না ফোটা লাল জবার নুইয়ে পড়া ঝুমকো
সকালের ঝরে পড়া বকুল দেখেছি কুঁড়াতে,
ছোট্ট সে শিশুদলে দেখেছি তোমাকে।
মাঠ পেরিয়ে ঘাসের উপর বিন্দু পড়া সকালের শিশিরকে জিজ্ঞেস করেছিলাম–
ভালোবাসো?

অগত্যা উপহাসে সূর্য নিমিষেই মুছে দিলো শিশির
অন্ধ হয়ে গেলাম আমি
মুছে গেলো অজানা ভালোবাসা।

দেবীঘর থেকে সন্ধ্যা প্রদীপ জ্বালানোর সময়ে আমি শুনি শাঁক বাজতে
সে শাঁকে শুনেছি তোমার চিৎকার, অজানা এক পুরুষের খুবলে খাওয়া মাংশ!
আমি শুনি মন্দিরের ঘন্টার শব্দে মিলিয়ে যাওয়া অপরূপ সেই সৃষ্টির সব অংশ
বস্ত্রহনন উন্মাদ হয়ে আশ্চর্য এক মাতে মেতে উঠা দুরকম শব্দ ভাসে
এ যেন এক অসাড়ী শক্তির ঘোরে বদ্ধ দুজন উন্মাদ ভালোবাসাহীন দাম্ভিক্য খেলা।
আমার, আমার শরীর এক দলা কাদা হয়ে যাচ্ছে। আমি ঝড়ে মাটি হয়ে মিশে যাচ্ছি
এ খেলা, এ শাঁক, সিদুর, এ আজান বন্ধ করো
এ খেলা বন্ধ করো, বন্ধ করো।

সেদিনের পর আমি শুনিনি আর বেদিনির আর্তনাদ
শুধু একবার, শুধু একবার শুনেছিলাম শিশুটিকে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে তার মায়ের পাশেই।

সেদিনের পর আমি বকুল তলায় কুড়োতে দেখিনি কাউকে
অবাধ পাটাতলে পিষে পিষে মাড়াচ্ছে সব নরপশুর দল
সুন্দর অভ্র ফুলগুলো মালা কিংবা দুল না হয়ে গেরুয়া রঙ বিসর্জন দিয়ে মিশে যাচ্ছে বৃষ্টির স্রোতের সাথে।

সেদিনের পর থেকে আমি আর দেবীঘরে যেতে পারিনি
শুনেছি শুধু দেবী বিসর্জিত।

সেদিনের পর থেকে–বিশ্বাস করো প্রিয়তি সেদিনের পর থেকে আমি শূন্য মাঠ পেরিয়ে বিন্দু থাকা শিশিরের সাথে কথা বলতে পারিনি
কারণ প্রবল বৃষ্টিতে খরস্রোতায় বিলীন হয়ে গিয়েছে সে মাঠ।

সেদিনের পর থেকে আমি আর ফুটন্ত রক্তজবার ঝুমকো দেখতে পারিনি,
শুনেছি শুধু পশ্চিমের দাবালন জবাকে আপন করে বিচূর্ন করে দিয়েছে

রাত পেরুলেই বিপ্লব।
আমি বিপ্লবের অপেক্ষায় ঠায় দাড়িয়ে
তোমার বিবেকের দুয়ারে খিল লাগিয়ে
দেখা হলে হাসবো মোরা শেষ বিকেলে
ত্রিমোহনায় যেমন খুশি তেমন সেজে।

লেখক:

মাহমুদুল হাসান তুহিন
আইন বিভাগ,
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

আর পড়তে পারেন