মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

এসএসসি পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে ফল বিপর্যয়, পাশের হার ৫৯.০৩%

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৪, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
এসএসসি পরীক্ষায় কুমিল্লা শিক্ষাবোডের্র ফলাফল বিপর্যয় হয়েছে। বিগত ৫ বছরের তুলনায় পাশের হার কমেছে। এ বছর এ বোর্ডে পাশের হার মাত্র ৫৯ দশমিক ০৩। যা গতবারের তুলনায় অনেক কম। গণিত ও ইংরেজী বিষয়ের ফলাফল খারাপ হওয়ায় পাশের হারে ধস নেমেছে বলে জানা যায়। বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা ভাল ফলাফল করলেও ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের ফলাফলে ধস নেমেছে।
এ বোর্ডে পাশের হারের দিক থেকে ছেলেরা এগিয়ে রয়েছে। ছেলেদের পাশের হার ৫৯ দশমিক ৫১ এবং মেয়েদের পাশের হার ৫৮ দশমিক ৬৩ শতাংশ।
বৃহস্পতিবার (৪ মে) সকাল ১০ টায় সারাদেশে এক যোগে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়।
পাশের হারের দিক থেকে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা এগিয়ে রয়েছে। এ বিভাগে পাশের হার ৮৪ দশমিক ১৬। এর মধ্যে ছেলেদের পাশের হার ৮৪ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং মেয়েদের পাশের হার ৮৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ। গত বছর এ বিভাগে পাশের হার ছিল ৯২ দশমিক ৯৯ শতাংশ।
ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে পাশের হার ৫৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ। এর মধ্যে ছেলেদের পাশের হার ৫২ দশমিক ২১ শতাংশ এবং মেয়েদের পাশের হার ৬২ দশমিক ১৮ শতাংশ। গত বছর এ বিভাগে পাশের হার ছিল ৮৭ দশমিক ৩০ শতাংশ।
মানবিক বিভাগে পাশের হার ৪১ দশমিক ১৪ শতাংশ। এর মধ্যে ছেলেদের পাশের হার ৩৬ দশমিক ৭০ শতাংশ এবং মেয়েদের পাশের হার ৪২ দশমিক ৪৫ শতাংশ। এ বিভাগে ছেলেদের ফলাফল বিপর্যয় হয়েছে। গত বছর এ বিভাগে পাশের হার ছিল ৭৪ দশমিক ৯০ শতাংশ।
কুমিল্লা বোর্ড সূত্র জানায়, ২০১৬ সালে এ বোর্ডে পাশের হার ছিল ৮৪ শতাংশ, ২০১৫ সালে ৮৪ দশমিক ২২ শতাংশ, ২০১৪ সালে ৮৯ দশমিক ৯২ শতাংশ এবং ২০১৩ সালে পাশের হার ছিল ৯০ দশমিক ৪১ শতাংশ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষা বোর্ডের এক কর্মকর্তা জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে নির্বাচনী পরীক্ষায় অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। রাজনৈতিক ও প্রভাবশালীদের তদবিরের কারনে এমন হচ্ছে। পাশের হার হ্রাসের পেছনে এটাও আরেকটি মূল কারণ।
এ বিষয়ে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কায়সার আহমেদ জানান, জানান, গণিত ও ইংরেজী বিষয়ে শিক্ষার্থীরা খারাপ ফলাফল করেছে। যার প্রভাব পড়েছে পাশের হারে। শহর কেন্দ্রীক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ফলাফল সন্তোষজনক হলেও উপজেলা ও গ্রাম পর্যায়ের স্কুলগুলোতে ফলাফল খারাপ হয়েছে। যে সব প্রতিষ্ঠান খারাপ ফলাফল করেছে তাদের বিষয়ে আমরা তদন্ত করবো।
উল্লেখ্য যে, এ বছর এ বোর্ডে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১ লক্ষ ৮৩ হাজার ৮০৬ জন। পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে ১ লক্ষ ৮২ হাজার ৯৭৯ জন। পাশের হার মাত্র ৫৯ দশমিক ০৩। এ বছর জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৪ হাজার ৪৫০ জন।

আর পড়তে পারেন