সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

এখন হাশেম খানের পাশে নেতাকর্মীর অভাব নাই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৪, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লা-০৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মনপাড়া) উপনির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লড়াইয়ে এড. আবুল হাশেম খান থাকলেও আলোচনায় ছিলেন না। মনোনয়ন লড়াইয়ের আলোচনা ৪/৫ জনের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। প্রায় ৫০ বছরের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার, ক্লিন ইমেজ, দলের প্রতি সবর্দা আস্থা রাখা লোকটিই ছিল আলোচনার বাইরে। দলীয় মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করার সময় অন্য প্রার্থীরা যখন শত শত লোক নিয়ে শোডাউন করেছে, তখন হাশেম খানের সাথে ছিল মাত্র একজন লোক।কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক দিদার মোহাম্মদ নিজামুল, সেও মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিল। কিন্তু একমাত্র রাজনৈতিকবিদ যে শুরু থেকে হাসেম খানের পাশে ছিল।

মনোনয়নপত্র জমার দিনও একজন লোকই পাশে ছিল।অনেকটা নিরবেই মনোনয়নপত্র কেনা-জমা দেয়ার কাজটি সেরে নিলেন। কিন্তু শেষ হাসি তিনিই হাসলেন। প্রবীণ এই রাজনৈতিকবিদকেই বেছে নিলেন আওয়ামীলীগের নীতি নির্ধারকরা। মনোনয়ন পাওয়ার পরেই পাল্টে গেল বুড়িচং-বি পাড়ার রাজনৈতিক চিত্র। সব প্রার্থীরা বিভেদ ভুলে হাশেম খানকে অভিনন্দন জানাতে শুরু করলো। হাশেম খানের পক্ষে অসংখ্য নেতাকর্মী মাঠে নেমে শ্লোগান দিতে শুরু করলো। নেতাকর্মীবিহীন লোকটির পাশে এখন শত শত নেতাকর্মীর ভিড়। ২ দিন আগেই যার পাশে দুয়েক জন ছাড়া কেউ ছিল না। এখন তার পাশে লোকের অভাব নেই। নৌকার টিকিট পাওয়ার পর এড. আবুল হাশেম খানকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সাজ্জাদ হোসেন স্বপন, ফারুক মেহেদী, এহতেশামুল হাসান ভূইয়া রুমি, আলামিন অর্নবসহ অন্যান্যরা। মনোনয়ন পাওয়ার পর এড. আবুল হাশেম খান ধানমন্ডি ৩২-এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। এ সময় বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ফারুক মেহেদী, বাংলাদেশ যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক এহতেশামুল হাসান ভূইয়া রুমি, বিল্লাল চেয়ারম্যান, কুবির সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আলামিন অর্নব উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, প্রবীণ রাজনীতিবিদ এড. আবুল হাশেম খান বুড়িচং উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি। জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সভাপতিও ছিলেন। ১৯৬৯ সাল থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন। প্রয়াত সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর অন্যতম সহচর ছিলেন। দলের সাথে কখনো বিদ্রোহ করেন নি। বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতিক পেয়েও দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। কিন্তু দলের প্রতি আত্মত্যাগ ও আস্থা রাখার পুরস্কারস্বরূপ নৌকার টিকেট পেয়েছেন হাশেম খান। এমনই ধারণা তৃণমূল রাজনীতিবিদদের।

আর পড়তে পারেন