মঙ্গলবার, ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

একের পর এক ফিলিং ষ্টেশন বন্ধের ঘটনায় চৌদ্দগ্রামে গ্যাস সংকটে পথে বসার উপক্রম হাজারো সিএনজি চালকের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১, ২০১৭
news-image

মোঃ বেলাল হোসাইন ঃ

একদিকে মালিক জমা, অন্যদিকে পৌরসভাসহ বিভিন্ন ধার্য্য পূরণে যখন দিশেহারা সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চালকরা তখনই আরেক ভোগান্তির সম্মুখিন চৌদ্দগ্রাম উপজেলার হাজারো সিএনজি চালক।
ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের উপজেলা সদর অংশের সিএনজি গ্যাস পাম্পগুলো বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (বিজিডিসিএল) কর্তৃক বন্ধ ঘোষিত হওয়ার পর থেকেই উপজেলা সদর এবং দক্ষিন অংশের সিএনজি চালকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়। এর মধ্যে কালিরবাজারের এমএ খালেক সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন, আমজাদের বাজারের চিওড়া ফিলিং ষ্টেশন ২টি চলতি বছরের ৬ এপ্রিল বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বন্ধ করে দেয় বাখরাবাদ কর্তৃপক্ষ।
উপজেলা সদরের অধিকাংশ সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন বন্ধ হওয়ায় বর্তমানে সিএনজি চালকরা গ্যাস নিচ্ছেন ফেণী সংলগ্ন ভাজনকরার প্রিমিয়াম ও কাইচ্ছুটির ইউনিভার্সেল সিএনজি ফিলিং ষ্টেশন থেকে। এর মধ্যে জগন্নাথের ভূইয়া এন্ড সন্স রানিং থাকলেও এখানে গ্যাসের প্রেসার কম থাকায় চালকরা বাধ্য হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছুটে যায় ফেনী সংলগ্ন এসব পাম্পে। প্রশাসন নির্ধারিত সকাল ৬-৮ টার মধ্যে গ্যাস নেওয়ার বাধ্যবাধকতার কারনে নির্দিষ্ট সময়ে গ্যাস নেওয়ার তাগিতে অনেক সময় দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে চালকরা। ইতিপূর্বে বেশ কয়েকটি সিএনজি গাড়ি দুর্ঘটনায় আহত এবং নিহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। সর্বশেষ গত ২৩ জুলাই রবিবার সকালে মহাসড়কের বাতিসা এলাকায় একটি ট্রাকের ধাক্কায় সিএনজিতে থাকা এক মহিলা নিহত হয়। আহত হয় চালকসহ বাকী যাত্রী।
অনেক সময় ভাজনকরা ও কাইচ্ছুটি পাম্পে নির্দিষ্ট সময়ে বড় বাস ও কন্টেইনার সিরিয়ালে থাকলে সময়ের তাগিতে গ্যাসের জন্য ছুটে যেতে হয় ফেনীর মোহাম্মদ আলী কিংবা ষ্টার লাইন পাম্পে। গ্যাস নিয়ে ফেনী থেকে চৌদ্দগ্রাম আসার পথেই চলে যায় প্রায় ৭০-৮০ পয়েন্ট। ভাজনকরা কিংবা কাইচ্ছুটি থেকেও চৌদ্দগ্রাম লাকসাম সিএনজি ষ্ট্যানে আসাতে গ্যাস চলে যায় প্রায় ৪০ পয়েন্ট। এক্ষেত্রে দিনের অর্ধেক সময় পার করেই আবার জীবিকা ও মালিক জমা পুরনের টার্গেটে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেক চালক দুপুরে কিংবা বিকেলেই গ্যাসের জন্য ছুটে যায় এসব পাম্পে। চৌদ্দগ্রাম লাকসাম সড়কের মোঃ রিয়াদ নামের এক সিএনজি চালক দু:খ ভরাক্রান্ত মনে বলেন, প্রশাসন নির্ধারিত সময়ে গ্যাস আনাতে তারাহুড়া করতে গিয়ে অনেক সময় দুর্ঘটনার আশংকা দেখা দেয়। আশেপাশের সকল পাম্প বন্ধ থাকায় ফেনীর কাছাকাছি থেকে গ্যাস আনতে গিয়ে দেখা যায় পথেই এক তৃতীয়াংশ গ্যাস শেষ হয়ে যায়। এক্ষেত্রে বাকী গ্যাস দিয়ে দিনের অর্ধেক সময় পার করাই দায়। পুলিশের ভয়ে দিনের বাকী অংশে গাড়িও চালানো হয় না গ্যাসও নেওয়া হয় না। দিনের অর্ধেক অংশ সিরিয়ালে গাড়ি চালিয়ে মালিক জমা উঠিয়ে নিজের জন্য আর কিছু থাকে না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন চালক জানান, প্রশাসন নির্ধারিত সময় পার হলেই হাইওয়ে পুলিশের বিভিন্ন বাঁধার সম্মুখিন হতে হয়। মহাসড়কে সিএনজি আটকের ঘটনায় ২-৩ দিনের মামলার নিয়ম থাকলেও এক মাস পরও অনেক সিএনজি মামলা থেকে মুক্ত হতে পারে না। এছাড়াও মহাসড়কের এক অংশে সিএনজি আটক করে অপর স্থানে আটকের ঘটনার কথাও বলেন তারা। এক্ষেত্রে হাইওয়ে পুলিশের বাইরে কথা বলাতে ইতিপূর্বে বেশ কয়েকজন চালকের উপর হামলার ঘটনাও ঘটেছে বলে জানান তারা। সর্বশেষ চলতি মাসের ১৮ তারিখে নাঙ্গলকোট ষ্ট্যানের বেশ কয়েকজন চালকের উপর হামলার ঘটনা ঘটে বলে জানান সিএনজি চালকরা। বর্তমান এ পরিস্থিতিতে সিএনজি গাড়ির মালিকরা যেমন নিরুৎসাহিত হয়ে গাড়ি বিক্রি করে দিচ্ছে, তেমনি অনেক চালক ইতিমধ্যেই পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় কিংবা বেকার অবস্থায় জীবনযাপন করছে।
মিয়াবাজার হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইন্সপেক্টর আবুল কাশেম জানান, মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল বিগত ২০১৬ সালের জুন মাস থেকেই নিষিদ্ধ। এই বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের যথেষ্ট চাপ থাকে যাতে এসব গাড়ি মহাসড়কে না উঠতে পারে। দায়িত্বের কারনেই মহাসড়কে সিএনজি উঠলে বাঁধা প্রদান করা হয়। এক্ষেত্রে এটাকে কেউ হয়রানী মনে করার সুযোগ নাই। পুলিশ নিয়মমতোই আটককৃত গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা প্রদান করে।

 

আর পড়তে পারেন