সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ইতিবাচক বার্তা দিল চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচন: সফলতার কারিগর প্রশাসন  

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১৭, ২০২১
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে জন্ম নিয়েছিল চরম উৎকন্ঠা । অনেকেই ভেবেছিল ব্যাপক সংঘর্ষ আর হতাহতের সাক্ষী হবে এ নির্বাচন। কিন্তু দিন শেষে সকল অনিশ্চয়তার অবসান ঘটে । সুষ্ঠু ও সফলভাবেই নির্বাচন সম্পন্ন হয় । অনেকের মতে দীর্ঘ এক যুগেরও বেশি সময় ধরে এমন সুষ্ঠু নির্বাচন কেউ দেখেনি।  ভোটগ্রহণে শ্লথগতি ছাড়া তেমন কোন অভিযোগ নেই। এ উপজেলায় প্রথমবারের মত ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। যার ফলে ভোটগ্রহণ পদ্ধতি সম্পর্কে সবার তেমন ধারণা না থাকায় ভোটগ্রহণ ছিল মন্থর গতিতে। এছাড়া জেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের একনিষ্ঠ ও আন্তরিকতার ফসলই এ সফল নির্বাচন। বিশেষ করে শনিবার অনুষ্ঠিত চান্দিনা পৌরসভার নির্বাচনটি কুমিল্লায় সম্প্রতি যোগদান করা নতুন পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার)এর জন্য বড়সড় পরীক্ষাই ছিল। সেই পরীক্ষায় তিনি সফল বলতেই হবে। কারণ এ নির্বাচনে অবাধ ও সুষ্ঠু হওয়ার পেছনে পুলিশের ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়।

পূর্ববর্তী নির্বাচনগুলোতে প্রশাসনের বিরুদ্ধে সরকার দলীয় প্রার্থীদের পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ ছিল অহরহ। চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচন ছিল ইতিবাচকভাবে ব্যতিক্রম। চলতি বছরে বেশ কয়েকটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মুরাদনগর রামচন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন মোটামুটি সুষ্ঠু হয়েছে। তেমন কোন সংঘর্ষ হয়নি উল্লেখ করার মত। বি-পাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে প্রায় ৫ জন সাংবাদিক নৌকা প্রতিকের নেতাকর্মীদের হাতে শারিরীক হামলার শিকার হয়েছে। পরে সাংবাদিকরা দুলালপুর স্কুল ভোটকেন্দ্র থেকে একজন হামলাকারিকে সনাক্ত করে পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ তাকে আটক করে আদালতে সোর্পদ করে। এছাড়া এ মামলার সফলতা বলতে আর কিছু নেই। অন্য আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরছে বলে জানা গেলেও রহস্যজনকভাবে আর কেউ গ্রেফতার হয়নি। সাংবাদিক নির্যাতনের মামলাটি এখন হিমাগারে যাওয়ার দ্বারপ্রান্তে। এরপর পদোন্নতিজনিত কারণে ঢাকায় বদলি হন পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম। নতুন পুলিশ সুপার হিসেবে ফারুক আহমেদের যোগদানের পর এ নির্বাচন ছিল সেই হিসেবে প্রশাসনের জন্য এক অগ্নিপরীক্ষা। সেই অগ্নিপরীক্ষা সফলতার সাথেই অতিক্রম করলেন নতুন পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে জেলা পুলিশ।

এ নির্বাচনের ১৫টি ভোটকেন্দ্রই অধিক ঝুকিঁপূর্ণ ছিল। মেয়র পদে হেভিওয়েট প্রার্থী ছিলেন তিনজন। নৌকা প্রতিকের শওকত হোসেন ভুঁইয়া , স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম হোসেন (জগ) ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শাহ্ মো. আলমগীর খান (ধানের শীষ)। এর মধ্যে নৌকা আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে গত কয়েকদিনে বেশ উত্তেজনা বিরাজ করেছিল। সংঘর্ষও হয়েছিল। এছাড়া প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে প্রায় ৩/৪ জন করে কাউন্সিলর প্রার্থী ছিল। ফলে নির্বাচনের দিন সংঘর্ষ হবে এটার সবার ধারণাই ছিল।  নির্বাচনের দিন সকালে পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের হারং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের পাশে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষ হয়েছে। তবে এর প্রভাব ভোটকেন্দ্রে পড়েনি। এছাড়া পুরো নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও অবাধ নিরপেক্ষ হয়েছে বলে স্থানীয় জনগণ ও ভোটাররা মনে করেন। বিগত বছরগুলোতে যে ধরনের নির্বাচন দেখে মানুষ অভ্যস্ত ছিল সেই ধরনের চিত্র অনুপস্থিত ছিল এবার। চান্দিনার নির্বাচনটি নতুন যুগের সূচনা বলেই মনে করছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের স্বার্থে এবারই প্রথম রেকর্ড সংখ্যক পুলিশ সদস্য একটি নির্বাচন ঘিরে কাজ করেছেন। নির্বাচনের দিন ৪৫০ জন পুলিশ সদস্যের ৩ স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে জেলা পুলিশ। এছাড়া ২ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাব-১১ এর ৩টি টিম, আনসারের ১৩৫ জন সদস্য কাজ করেছেন।১৫টি কেন্দ্রের সবগুলোতেই একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করেছেন। প্রত্যেকটি ভোটকেন্দ্রেই পুলিশ ছিল সর্তক অবস্থায়। বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীদের ভোটকেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তার করতে দেয়নি। এমনকি জড়ো হতেও দেননি। সার্বক্ষণিক তৎপরতা ছিল পুলিশের মাঝে । জেলা প্রশানক আবুল ফজল মীর, জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার), এনএসআই কুমিল্লার যুগ্ম পরিচালক জি এম আলিম উদ্দিন ও কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডমিন) আজিম উল আহসান প্রায় প্রত্যেকটি ভোটকেন্দ্রেই পরিদর্শন করেছেন। ভোটারদের সাথে কথা বলেছেন। ভোটারদের ভোট প্রদানে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন।

এ নির্বাচনে চান্দিনা পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডে সংঘর্ষের সম্ভাবনা ছিল প্রকট। সেই ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্রে ৬ কাউন্সিলর প্রার্থীকে একত্রে বসে থাকতে বাধ্যও করেছে প্রশাসন। যা ছিল ব্যতিক্রমধর্মী চিত্র । প্রশাসনের এমন পদক্ষেপ বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে ।

প্রত্যেকটি ভোটকেন্দ্রেই ছিল ভোটারদের দীর্ঘ সারি। ভোটকেন্দ্রে আসার পথে বাধা প্রদানের বিষয়টি তেমন হয়নি বললেই চলে। এর জন্য পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসন ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য বলে মনে করে স্থানীয়রা।

এ নির্বাচনে কয়েকটি ভোটকেন্দ্রে বিএনপি প্রার্থী  শাহ মো: আলমগীর খান এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীমের এজেন্ট পাওয়া যায়নি। স্থানীয় সূত্র জানায়, তাদের এজেন্ট ভোটকেন্দ্রে যায়নি নিরাপত্তার অভাবে। হামলা -নির্যাতন হতে পারে এমন আশংকায়। কিন্তু  প্রার্থীরা তাদের এজেন্টকে কেন্দ্রে পৌছে দিলে হয়তো তাদের বের করার মত পরিবেশ থাকতো না। কারণ প্রত্যেকটি ভোটকেন্দ্রই নিরাপত্তার  চাদরে আবৃত ছিল। বা তাদের এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়েছে এমন অভিযোগও পাওয়া যায় নি।

অনেকেই বলছেন -সাংগাঠনিক দুর্বলতা, ভয়, নামেমাত্র নির্বাচনে অংশগ্রহণই তাদের পরাজয়ের মূল কারণ । অন্যথায় তারা সক্রিয় হলে এমন সুষ্ঠু পরিবেশে নৌকা প্রার্থীর জয় অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে দাড়াতো।

সব মিলিয়ে চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচন ইতিবাচক বার্তা দিয়ে গেল। আর এই ইতিবাচক বার্তার পেছনে মূল কারিগর ছিল জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। আর প্রথম পরীক্ষায় সফল হয়ে ভবিষ্যতে আরো ভাল কিছু করার ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেন পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার)। এখন দেখার পালা জেলাজুড়ে বিস্তৃত মাদক ব্যবসা ও চুরি-ছিনতাই এবং চাদাবাজি রোধে পুলিশ সুপার কোন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। শুরুটা চমৎকার হয়েছে। সমাপ্তিটা বর্ণাঢ্য হবে এমনই আশা করছে কুমিল্লাবাসি।

আর পড়তে পারেন