রবিবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আল কুরআনে মাতৃভাষা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮
news-image

জান্নাতুল তাজনীনঃ

সকল প্রশংসা আল্লাহ তা’আলার, যিনি মানুষকে করেছেন জ্ঞানের পাত্র। ভাষাকে করেছেন সত্যের বাহক। করুণা করে আমাদের মুখে তুলে দিয়েছেন মাতৃভাষা। যাকে পুঁজি করে চলছে আমাদের জীবন। সালাত ও সালাম পড়ছি প্রিয় হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি। যিনি আপন ভাষায় ছিলেন শ্রেষ্ঠ বিশুদ্ধভাষী। ছিলেন সর্বমর্মী বচনের অধিকারী।

প্রিয় পাঠক! পরম করুণাময় আল্লাহ আপন  হে আমাদের শিক্ষা দিয়েছেন কুরআনে কারীম। শিখিয়েছেন মাতৃভাষা। কখনো কী ভেবে দেখেছি, এ দান কত বড়! কত মহান! সুবহানাল্লাহ! যা মনে আসে তাই বলছি, কোন বাধা পাচ্ছি না। আপন ইচ্ছাকে তুলে ধরছি অন্যের কাছে। এসব আল্লাহর-ই দান। তিনি পবিত্র কুরআনে বলেনÑ “দয়াময় করুণার আধার, শিক্ষা দিয়েছেন আলকুরআন, সৃজন করেছেন মানুষ, শিখিয়েছেন বয়ান।” (সূরা আর রহমান-১-৪)

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আল্লাহ তা’আলা শিখিয়েছিলেন আরবী ভাষা। কেননা তা ছিল তাঁর কওমের ভাষা, মাতৃভাষা। আল্লাহ তা’আলা বলেন, “আমি এমন কোন রাসূল পাঠাইনি যাকে তাঁর কওমের ভাষা-জ্ঞান শিখাইনি, যাতে তিনি তাদের কাছে বয়ান করতে পারেন। অনন্তর তিনি যাকে ইচ্ছা হিদায়াত করেন, যাকে ইচ্ছা গোমরাহ করেন।” (সূরা ইবরাহীম-৪)

আল্লাহ তা’আলার এ বাণী দ্বারা যা বুঝে আসে, তা হচ্ছে মাতৃভাষা সত্যের বাহক। সত্যকে তুলে ধরতে আল্লাহ তা’আলা মাতৃভাষাকে বাছাই করেছেন। রাসূলগণকে আপন আপন ভাষা শিখিয়েছেন, যেন তারা তাদের কওমকে সচেতন করতে পারেন। কারণ, ভিন্ন ভাষার উপদেশে জনমন সাড়া দেয় না। হৃদয় দিয়ে গ্রহণ করে না। আর আপন ভাষার প্রতিটি কথা হৃদয়ে সহজেই রেখাপাত করে, মর্মে বুঝে আসে। আর এ মাতৃভাষায় সত্য কথার মাধ্যমে আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সঠিক পথ দেখান। আর যাকে ইচ্ছা পাপের কারণেই গোমরাহ করেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ছিলেন নিজ ভাষায় রত্ন-তুল্য। তার হৃদয় জুড়ানো কথা শুনে বিমুগ্ধ হতো মানব-অন্তর। তিনি বলেন, “আমি আরবের শ্রেষ্ঠ বিশুদ্ধ ভাষী।” এ হাদীস দ্বারা আমরা বুঝতে পারি, আপন ভাষায় বিশুদ্ধ হওয়া নববী আদর্শ।

এক সাহাবি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর খিদমতে হাজির হলেন এবং বাইরে থেকে সালাম আরজ করে বললেন, “আ-আলিজু?” নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খাদেমকে বললেন যাও তাকে অনুমতি চাওয়ার তরিকা শিক্ষা দাও যে, বলো, আস-সালামু আলাই কুম, আ-আদখুলু? সাহাবী শিক্ষা পেয়ে তাই বললেন, তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে অনুমতি দিলেন।”(আবু দাউদ, হাদীস, ৫১৭৭) এ হাদীস থেকে বুঝে আসে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মাতৃভাষার ব্যাপারে কতটুকু সচেতন ছিলেন যে, নিজ হাতে গড়া সাহবাদের কে ভাষার উপযুক্ত প্রয়োগ শিখিয়েছেন। আর ভাষার সঠিক ব্যাবহারের মধ্যে রয়েছে শিষ্টিাচারের স্বার্থক প্রকাশ।

সত্যের পথ নির্দেশনার প্রথম মাধ্যম মাতৃভাষা। পবিত্র আত্মার মাধ্যমে হৃদয়ের গাঁথুনি দিয়ে সত্যের কথা বলতে হবে নিজ ভাষায়। প্রত্যেক রাসূলের আত্মা ছিল পবিত্র। তাই তাদের মাতৃভাষার প্রতিটি কথায় মানুষ পেয়েছে আলোকের দিশা, পেয়েছে জান্নাতের ঠিকানা। তাদের কথা যারা বুঝেছে, তারা মেনেছে ও অনুসরণ করেছে। আর যারা ভ্রষ্ট ও ভ্রান্ত, তাদের অন্তরাত্মায় কুঠারাঘাত হেনেছে রাসূলদের কথা। কারণ প্রকৃত সত্য বাতিল মন দহন করে। আর সে দহনেই বাতিল হয় ভষ্ম। অতএব, প্রকৃত সত্য উন্মোচন করতেই মাতৃভাষা। এর মাধ্যমে সত্যকে তুলে ধরতে হবে সমাজের কাছে।

মাতৃভাষা আল্লাহর বিস্ময়কর নিদর্শন। এ ভাষা বৈচিত্র্যময়, বিবিধ, বিভিন্ন। মহান আল্লাহ বলেনÑ “তার নিদর্শনাবলির মধ্যে রয়েছে আসমান জমিনের সৃষ্টি ও তোমাদেরে ভাষার বিভিন্নতা।” (সূরা রূম-২২) এর এ নিদর্শন-ই হচ্ছে আমাদের ভাষার ব্যাবহার। এ ভাষার মধ্যে থাকবে সত্যের কথন, সত্যের লিখন, সত্য বিনোদন, সত্য জয়গান। আমাদের মুখে আল্লাহ তা’আলা যে ভাষা তুলে দিয়েছেন তার সঠিক প্রয়োগেই মাতৃভাষার সার্থকতা নিহীত। তাই মনের সত্য অনুভূতিটুকু জাগিয়ে তুলতে হবে। প্রকাশ করতে হবে কলব থেকে কলমে, হৃদয় থেকে কাগজের পাতায়।

লেখক: শিক্ষার্থী, বাংলা বিভাগ। ইডেন মহিলা কলেজ।

আর পড়তে পারেন