বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমোদ-ফুর্তি করতে গিয়ে নারী দ্বারা অপহরণের শিকার ঠিকাদার ও ভারতীয় নাগরিক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২২, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আমোদ-ফুর্তি করতে গিয়ে অপহরণের শিকার মোবারক হোসেন নামের এক ঠিকাদার ও মিন্টু রঞ্জন দাস নামের এক ভারতীয় নাগরিক। তাদেরকে উদ্ধার করে রবিবারে দুজনকে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, সিয়াম (১৮) ও রবিন (২২)। তাদের দুজনের বাড়ি সদর উপজেলার রামরাইল ইউনিয়নের বিজেশ্বর গ্রামে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মিন্টু রঞ্জন দাস আশুগঞ্জ-আগরতলা চার লেন সড়ক প্রকল্পে এফকন ইনস্ট্রাকশন কোম্পানিতে কর্মরত আছেন। তার বাড়ি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। এই সড়ক প্রকল্পে সাব ঠিকাদারের কাজ করেন মোবারক হোসেন। শুক্রবার (১৯ মার্চ) সন্ধ্যায় এই দুজন জেলা শহরের কলেজপাড়ায় একটি বাড়িতে আমোদ-ফুর্তি করতে যান। সেখানে তাদেরকে অপহরণ করেন কয়েকজন যুবক ও নারী। অপহরণের পর তাদেরকে নারীদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি তুলতে বাধ্য করা হয়।

ছবি তোলার পর সাব ঠিকাদার মোবারক হোসেন ও ভারতীয় ওই নাগরিকের কাছে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন অপহরণকারীরা।

এদিকে, মোবারকের গাড়ির চালক ওই বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে সড়কে তার জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পরও ভেতর থেকে বের না হওয়ায় সন্দেহ হয়। পরে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় গিয়ে বিষয়টি জানান। তবে সদর মডেল থানা পুলিশ ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে কাউকে পায়নি।

পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) ও সদর মডেল পুলিশের সমন্বয়ে একটি দল অভিযান চালায়। এসময় প্রযুক্তির ব্যবহার করে প্রথমে আশুগঞ্জ থেকে ভারতীয় নাগরিক মিন্টু রঞ্জন দাসকে উদ্ধার করা হয়৷ এসময় আটক করা হয় দুই অপহরণকারীকে। তবে বিষয়টি গোপন রেখে আটক দুই অপহরণকারীর মাধ্যমে অন্য অপহরণকারীদের বলা হয়, অপহৃত ঠিকাদার মোবারক হোসেনকে নিয়ে জেলা শহরের মেড্ডায় এসে মুক্তিপণের টাকা নিয়ে যেতে। শনিবার (২০ মার্চ) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঠিকাদার মোবারক হোসেনকে নিয়ে মেড্ডায় এসে অপহরণকারীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান। এসময় মোবারক হোসেনকে উদ্ধার করে পুলিশ।

সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ শাহজাহান জানান, অপহরণের ঘটনায় ঠিকাদার মোবারক হোসেন বাদী হয়ে আটক দুজনসহ ১৩ জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলায় আসামিদের মধ্যে তিনজন নারী রয়েছেন। আটক আসামিদের রোববার আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আর পড়তে পারেন