মঙ্গলবার, ১২ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমি ভালো হতে চাই, আমাকে ভালো হতে সুযোগ দিন – সিএনজি চালক আনিছ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
news-image

 

মোঃ রুহুল আমিন :

আমি মামলা থেকে মুক্তি চাই, আমি ভালো হতে চাই, আমাকে ভালো হতে সুযোগ দিন। এমনই আকুতি সিএনজি চালিয়ে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করা তিন মামলার আসামী মোঃ আনিছুর রহমানের।

আনিছুর রহমান (৩১) তার পৈত্রিক নিবাস চাঁদপুরের শাহরাস্তি পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের সাহাপুর (নোয়া বাড়ি) গ্রামে। বছর পাঁচেক পূর্বে তার বাবা সুলতান আহমেদ মৃত্যুবরণ করেছেন। ৪ ভাই ১ বোনের মধ্যে সে মেঝো। তিনি ২ মেয়ে ও ১ ছেলের জনক। তিন সন্তান, মা সাজেদা বেগম ও স্বামী-স্ত্রী সহ ৬ সদস্যের সংসার তার। নিজে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। অভাবের সংসার তাই ইচ্ছা থাকা সত্বেও লেখাপড়া করা হয়নি তার। সিএনজি চালিয়েই চলে তার সংসার। ভাইয়েরা যার যারমত সংসার পেতেছেন। একমাত্র বোন বিবাহিত সে শ্বশুরবাড়িতে থাকে। সিএনজি চালিয়ে দৈনিক জমা দেয়ার পর তার হাতে থাকে ৩০০-৪০০ টাকা। যা আয় হয় তাদিয়ে কোন রকমে সংসার চলে বাড়তি কোন টাকা হাতে জমা থাকেনা তার। ব

ড় মেয়ে আনিকা আক্তার (১১) স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। মেঝো মেয়ে রুম্পা আক্তার (৯) ৪র্থ শ্রেণিতে আর একমাত্র ছেলে আরাফাত হোসেনের বয়স চৌদ্দ মাস। স্ত্রী রানু বেগম (৩০) নিজে ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন, নিজের ঘর-সংসার দেখাশুনা করেন তিনি। আনিছের নিজের কোন জমি-জমা নেই। কোন রকমে চলছে তার সংসার। ইতিমধ্যে তিনি গরু চুরি, উপজেলা ভূমি অফিসের ২৬টি তালা ভাঙ্গচুর আরও একটি অজ্ঞাতসহ মোট ৩টি মামলায় জড়িয়ে পড়ায় তার ঘর-সংসার প্রায় নিঃশেষ হবার দশা হয়েছে। সিএনজি চালিয়ে তিনি যে আয় করেন তাদিয়ে কোন রকমে সংসার চলে এর মধ্যে ৩টি মামলায় পড়ে এখন সে এখন দিশেহারা।

১৫ সেপ্টেম্বর বেলা ১১ টার দিকে সংবাদ সংগ্রহের কাজে গাড়ির জন্য রাস্তায় দাড়িয়ে আছি। এসময় হঠাৎ একটি সিএনজি এসে আমার সামনে দাঁড়ালো। সিএনজিটি থামতেই তার ড্রাইভার লাফিয়ে নেমে এসে খুব বিনয়ের সাথে জানতে চাইলো কোথায় যাবেন স্যার? আমি গন্তব্যের কথা বলতেই সে জানালো আমি আপনাকে নিয়ে যাবো। একগাল হেসে বললো স্যার আমি আপনাকে ছিনি! মনে মনে ভাবলাম সিএনজি চালক আমাকে ছিনেন কিন্তু আমি তাকে ছিনি না এতে নিজেই নিজের কাছে বেশ লজ্জা পাচ্ছিলাম। বলে রাখা ভালো আইসিটি আইনে আমার বিরুদ্ধে বিগত ১৬ মে চাঁদপুরের শাহরাস্তি মডেল থানায় দ্বিতীয় বার আরো একটি মামলা হয়, যার নং ১৩, তারিখঃ ১৬/০৫/২০২১ইং। যার প্রেক্ষিতে মামলা রজ্জু হবার রাতেই আমি গ্রেফতার হই। দীর্ঘ ১ মাস কারা ভোগ শেষে ১৪ জুন আমি জামিনে মুক্তি পাই। কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর আমার স্বরণ শক্তি দারুণভাবে হ্রাস পেয়েছে। এখন আমি কোন নাম বা ঘটনা তেমন একটা মনে রাখতে পারিনা। এজন্য নিজেই নিজের কাছে অনেক সময় বেশ লজ্জায় পড়তে হয়। জানিনা কেন আমার এমন অবস্থা হয়েছে।

সে যাকগে, আবারও ফিরে আসি আনিছের কথায়। অনিছের সিএনজিতে চড়ে বসার পর সে আমাকে জিজ্ঞাসা করলো স্যার আপনি কেমন আছেন? জবাবে বললাম ভালো আছি। আমি তাকে মনে করার চেষ্টা করছি আর ভাবছি লোকটাকে কোথাও দেখেছি বলে মনে হচ্ছে, কিন্তু কোথায় দেখেছি তা মনে করতে পারছিলাম না। এরই মধ্যে সে বললো আমি জুলাই মাসের ২ তারিখে ১ মাস ৪দিন জেল খেটে জামিনে জেল থেকে বেরিয়েছি। এবার আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম তুমি আনিছ না? সে জবাবে বললো হ্যাঁ স্যার আমি আনিছ। এখন আমি কিছুটা চিন্তা মুক্ত হয়ে জানতে চাইলাম তুমি ক্যামন আছো? সে জবাব দিলো আছি স্যার ভালো আছি। এখন কি কর, কিভাবে চলে তোমার? জবাবে আনিছ জানালো জেল থেকে বের হবার পরদিন থেকেই আমি সিএনজি চালাচ্ছি। জানতে চাইলাম কেমন আয় হয় তোমার, যা আয় কর তা দিয়ে সংসার চলে? জবাবে আনিছ বললো কোন রকমে চলে যায় স্যার। আবারও জানতে চাইলাম মামলা শেষ হয়েছে? বললো না স্যার, মামলা শেষ হয়নি। কথায় কথায় সে জানালো তার নামে শাহরাস্তি মডেল থানায় মোট ৩টি মামলা আছে। মাসে মাসে মামলাগুলির হাজিরা দিতে হয়। যেদিন হাজিরা দিতে যান সেদিন আর সিএনজি চালাতে পারেন না। ঐদিন আয়তো হয়ইনা তদুপরি কোর্টে উকিলের খরচ দিতে অন্যের নিকট হাত পাততে হয় তার।এরমধ্যে তার আরো খোঁজ-খবর নেয়ার চেষ্টা করলাম।

কথা প্রসঙ্গে আনিছ বললো, ‘আমি মামলা থেকে মুক্তি চাই, আমি ভালো হতে চাই, আমাকে ভালো হতে সুযোগ দিন’। বললাম ভালো হতে চাইলে তেমন কোন কাজ করার দরকার পড়ে না। শুধু ইচ্ছা থাকাই যথেষ্ট। তুমি সৎভাবে চল, ভালো মানুষের সাথে চল, কারো ক্ষতি হয় এমন কোন কাজ করবে না। তাহলে ভালো থাকবে। তোমার মামলার বিষয়ে আমার জানা নাই। এটা আদালতের বিষয়, রাষ্ট্রের আইনের বিষয়, মামলার বিষয়ে আমার কিছু বলারও নাই। যে মামলা গুলি চলমান আছে সেগুলোর জন্য তোমার অপরাধ থাকলে অবশ্যই তোমাকে সাজা পেতে হবে। ভবিষ্যতে আর কোন অপরাধের সাথে না জড়িয়ে ভালো কাজে যুক্ত থাকবে।

এর মধ্যে আমি আমার গন্তব্যে পৌঁছে গেলাম। ভাড়া দিতে গেলে সে বলে স্যার আমার ভাড়া লাগবে না। আমি বললাম তাহলে ভবিষতে তোমার গাড়িতে আর চড়বো না। একরকম জোর করে তাকে ভাড়া চুকিয়ে দিলাম। সালাম দিয়ে আনিছ চলে গেলো। আনিছ চলে যাওয়ার পর ভাবছিলাম একজন মানুষ অপরাধ করে অনুতপ্ত এখন সে ভালো হতে চায়। কিন্তু ভালো হতে চাইলে আনিছকে তার নামে হওয়া মামলা গুলোতো শেষ হতে হবে। আমরা সমাজে যারা বসবাস করি তারা প্রত্যেকেই কোননা কোন সমস্যার মধ্যদিয়ে চলছি। কিন্তু আনিছদের মত যারা অপরাধ করে অনুতপ্ত হয় তাদের ভালো হবার কোন পথ কি নাই? ওদের ভালো হবার ভাসনা কিভাবে বাস্তবে সম্ভব তা কি আমাদের কারো ভাবনায় আসে? আমি চাই আনিছরা সমাজের মুলধারায় আবারও ফিরে আসুক, আবারও তাদের স্বাভাবিক জীবন ফিরে ফাক। সমাজের কেউ না কেই নিশ্চয়ই এমন লোকদের কথা ভাববেন। আনিছেরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুক, সমাজের মুলধারায় যুক্ত হোক এমন প্রত্যাশাই করি।

 

আর পড়তে পারেন