বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমাদের সাংবাদিক গুরু রজতনাথ নন্দী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

ডা.আলী হোসেন চৌধুরী ঃ
রজতনাথ নন্দী আমার সাংবাদিক গুরু। সাংবাদিকতার শুরুতেই যাঁর কাছ থেকে প্রথমেই শিখেছি তিনি রজত নন্দী। খর্বাকৃতির এক অশীতিপর বৃদ্ধ, হালকা পাতলা গড়ন , নির্লোভ নিরহংকার, কখনোই সরব নন, নিরবে নিভৃতে যাঁর চলাচল , নিজের প্রচার প্রকাশে যার অনাগ্রহ, এমনি একজন মানুষ। তাঁর সাথে পরিচয় ১৯৭৩ সালে, আর সেটা সাংবাদিকতার সূত্রেই। আমি তখন ভিক্টোরিয়া কলেজে অনার্সের ছাত্র, অন্যদিকে দৈনিক বাংলার জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ শুরু করেছি। দুটো কাজেই বেশ উত্তেজনা ছিল। নিতান্ত তরুণ বয়স দুটো কাজের কোনটাই ভাল করে জানি না। শিক্ষাক্ষেত্রে বয়োজ্যেষ্ঠদের নোট ও অন্যান্য সহায়তা, শিক্ষকদের ক্লাস এবং গাইডেন্স পাওয়া সহজ ছিল কিন্তু সাংবাদিকতায় তেমনটা নয়। কারণ সাংবাদিকতা বিষয়টি তখনো একাডেমিক নয়।
কোথাও এ বিষয়ে শেখার ব্যবস্থা ছিল না , কাগজপত্র ম্যাগাজিন দুলর্ভ ছিল । এক্ষেত্রে সাংবাদিক আফতাবুর রহমান ছিলেন গাইড কিন্তু গুরু বলতে গেলে বলবো রজতনাথ নন্দীকে। দেখেছি আফতাবুর রহমানও তার কাছে এ বিষয়ে বুদ্ধি পরামর্শ নিতেন। দেখে ঠেকে শেখারও একটা সীমা আছে, আর এজন্যই রজতনাথ নন্দী ছিলেন আমাদের একমাত্র ভরসা । কোনো জটিল সংবাদের বেলায় তাঁর পরামর্শ নিতে হয়েছে প্রায় সময়ই। তাঁর জ্ঞানের পরিধি দেখে আমরা অবাক হয়ে যেতাম। তিনি জানতেন অনেক, বলতেন কম। আমাদের কাজ ছিলো তাঁর ভেতরের জানা বিষয়গুলো বের করে আনা। তিনি নিজেকে গুটিয়ে রাখতেই পছন্দ করতেন। ধর্মসাগর পাড় বাসা থেকে বের হয়ে টুকটুক করে হেঁটে আসতেন কান্দির পাড় লিবার্টির সামনে মধুর ভাঙ্গা চা দোকানে। এটা কুমিল্লা শহরের বুদ্ধিজীবিদের আড্ডা কেন্দ্র ছিল। প্রায় দু’বেলাতেই তাঁকে পাওয়া যেত এখানে।
আমরা যারা নবীন সাংবাদিক তাদের জন্য সকাল বেলাটাই ভালো সময় ছিল রজত নন্দীর সান্নিধ্য লাভের, কারণ প্রবীণরা আসতেন দেরি করে কিংবা বিকেলে। আমাদের প্রতিদিনের একটা আকর্ষণ ছিল রজতনাথ নন্দী । আমরা ডাকতাম দাদু, যার ফলে সর্ম্পকটা মজা করার এবং সহজ, আমরা কথায় হাসাতে ও পারতাম। তাঁর সাথে অনেক বিষয়েই আলাপ হত-সমাজ, সংস্কৃতি, খেলাধুলা, ইতিহাস ও রাজনীতি। আবার তাঁর ব্যক্তিগত পারিবারিক বিষয়ও আসতো । তিনি ছিলেন অকৃতদার । শুনেছি তার পরিবারে ভাইবোন চারজনই এরকম ছিলেন, বিয়ে করেননি। তাঁর কুমার জীবন নিয়েও মাঝে মাঝে মজা করতাম। যেহেতু তরুণ হিসাবে ব্যাপারটি ছিল কৌতূহল উদ্দীপক। তাঁর ভাই ক্রীড়াবিদ বাদল নন্দীকে চিনতাম। দাদুর সঙ্গে নানা ধরনের রসিকতা করতাম । যেহেতু ঠাট্টা-মশকরার সম্পর্ক আমাদের , সেজন্যই তা সম্ভব হয়েছে।

তাঁকে আমরা বলতাম কুমিল্লার ‘বার্টান্ড রাসেল’। কারণ দার্শনিক বার্টান্ড রাসেলের সাথে তাঁর চেহারার অদ্ভুত মিল ছিল। যদিও তিনি ধুতি-পাঞ্জাবি ও ফতুয়া পরতেন, কিন্তু মুখাবয়ব ছিল বার্টান্ড রাসেলের। তাঁর সাক্ষাৎকারভিত্তিক একটা স্টোরি করেছিলাম দৈনিক বাংলায়, সেখানেও একথাটি বলেছি। তিনি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, সাংবাদিকদের দলীয় রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকা অনৈতিক। যে সব সাংবাদিক সাংবাদিকতায় থেকে দলীয় রাজনীতির সাথে যুক্ত হয় তারা ‘শয়তানের মতো’। তাঁর সাক্ষাৎকারের প্রায় সব অংশ ভুলে গেলেও একথাটা শুধু মনে আছে, কারণ তখন আমি আবার ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলাম, তাই তাঁর এ মন্তব্যটা খুব দাগ কেটেছে।
তখন সংবাদ সংগ্রহ এবং প্রেরণ করতে খুব কঠিন ব্যাপার ছিল। সংবাদ কোনোভাবে সংগ্রহ করা গেলেও তা প্রেরণ করতে হিমশিম খেতে হত। কারণ তখন আজকের মতো এত প্রযুক্তিগত সুবিধা ছিল না মোটেও। ফোনের সুবিধাটা কিঞ্চিৎ থাকলেও তার ব্যবহার করা ছিল দুঃসাধ্য এবং ভাগ্যের ব্যাপার। ওই সময় সরাসরি ডায়লিং ছিলো না, ট্রাংকল বুকিং দিতে হতো। সেই বুকিং এ লাইন পেতে এক থেকে পাঁচ ঘন্টা লেগে যেতো, ঠিক কোন সময়টায় লাইন পাওয়া যাবে তার কোনো নির্দিষ্ট ছিল না। বুকিং এ লাইন পাওয়া গেলেও অনেক সময় নিউজ পাঠানোর মাঝখানে লাইন কেটে যেতো। তারপরের কষ্টটা আরো বিরক্তিকর। কারণ সিরিয়াল চলে যেতো আবার পিছনে।
কিছু দিন পর সরাসরি ডায়লিং ব্যবস্থা চালু হলেও সেক্ষেত্রেও লাগতো ঘন্টার পর ঘন্টা। ডায়াল করতে করতে হাত ব্যথা হয়ে যেতো। এরকম টেলিফোন নিউজ দিতে গিয়েও বিপত্তি। খুব চিৎকার করে নিউজ বলতে হতো, এর মধ্যেও ভুল হয়ে যেত, কখনো কখনো এ ভুলটা হয়ে যেতো মারাত্মক। আর তখন যে আমাদের কি বেকায়দা অবস্থা। তারপরও সাংবাদিকতা করেছি। এ ক্ষেত্রে ডাক বিভাগের ভরসা আর জরুরি সংবাদের বেলায় আমাদের নির্ভর করতে হয়েছে প্রেস টেলিগ্রামের। আর এ প্রেস টেলিগ্রামের বিষয়টি আমাদের শিখতে হয়েছে রজতনাথ নন্দীর কাছ থেকে। এতক্ষন কথাগুলো বলার কারণ প্রেস টেলিগ্রামের বিষয়টির গ্ররুত্ব বুঝানোর জন্য। প্রেস টেলিগ্রামের খরচ সাধারণ টেলিগ্রামের চাইতে অনেক কম ছিল। লিখতে হতো ইংরেজিতে, যথা সম্ভব কম বাক্যে যত বেশি কথা লেখা যায়। যার ফলে স্টোরি খুব বড় করা যেতো না। নিজেরা ইংরেজিতে নিউজ লিখতে হিমশিম খেতে হতো। নিউজে এমন বাক্য-শব্দ প্রয়োজন হত যা অপ্রচলিত। এতেও রজত নন্দীর সাহায্য অনিবার্য হয়ে পড়ত।
প্রেস টেলিগ্রামের টেকনিক্যাল ব্যাপারটি জেনেছি পুরোপুরি রজতনাথ নন্দীর কাছ থেকে! বলা যায় তিনি আমাদের হাতে ধরে শিখিয়েছেন। তবে প্রেস টেলিগ্রামের ব্যাপারে প্রায় সময় সাহায্য নিতে হয়েছে আফতাবুর রহমানের কাছে। আফতাব ভাই ছিলেন বাসস, পূর্বদেশ এবং অবজারভারের সাংবাদিক। আজ তাঁকে স্মরণ করি শ্রদ্ধার সঙ্গে।
সেই সময়ে আমরা সাংবাদিকায় নবীন এরকম তরুণ সাংবাদিক যাঁরা রজতনাথ নন্দীকে পরিবেষ্টন করে থাকতাম, তারা হলো আমি দৈনিক বাংলা, রেজাউল করিম শামীম (বাংলার বাণী) বর্তমানে ঢাকায় দৈনিক খবর ও চিত্রবাংলায় কর্মরত, মরহুম ফজল মাহমুদ (এনা), কিছুদিন সাংবাদিকতা করেছেন মরহুম মঞ্জুর ই করিম পিয়াস (বিপিআই), পরে মরহুম ড.পিয়াস করিম ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন,এছাড়া থাকতেন আফতাবুর রহমান (বাসস), গোলাম মোস্তফা চৌধুরী (ইত্তেফাক), কাজী মমতাজউদ্দিন (সংবাদ)। মাঝে মাঝে বসতেন আমোদ সম্পাদক মোহাম্মদ ফজলে রাব্বী। তখন পত্রিকার সংখ্যা এবং নিউজ এজেন্সি খুব কম ছিল, সাংবাদিকও ছিল হাতে গোনা। রজত বাবু ছিলেন মর্নিং নিউজ-এর জেলা প্রতিনিধি। আরেক ভদ্রলোক ছিলেন, নাম সম্ভবত জাহাঙ্গীর, তিনি কুমিল্লা থেকে একটি সাপ্তাহিক ইংরেজি পত্রিকা বের করতেন, পত্রিকাটির নাম ‘দি ইমেজ’(পত্রিকাটি কয়েক মাস টিকেছিল), তিনিও আসতেন। আর মধুর দোকানে নিয়মিত যাদের আড্ডা হতো রাজনৈতিক ব্যক্তি, সঙ্গীত শিল্পী, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠক, নাট্যাভিনেতা, অধ্যাপক, আইনজীবী, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। অর্থাৎ এ ধরনের ব্যক্তিদের নিয়মিত আড্ডা হতো এখানে। পাশেই আরেকটি আড্ডা ছিল অভিজাত ভাইয়ের দোকানে প্যানোরমায়। দোকনের মালিক আবু ভাইকে কেন্দ্র করে এ আড্ডা বয়োজ্যেষ্ঠদের। দুই আড্ডার ব্যবধান কিঞ্চিৎ। ফলে এ আড্ডার কিছু লোক সে আড্ডায় যেতো আবার সে আড্ডা থেকেও আসতো । এ আড্ডাগুলো ছিল তরুণদের জন্য সমীহ করার।
রজতনাথ নন্দী বৃটিশ যুগে তিনি ইউপিআই (আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা) কলকাতা থেকে প্রকাশিত স্টেটসম্যান পত্রিকার রিপোর্টার ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি ছিলেন যুদ্ধকালীন সংবাদদাতা। পাকিস্তান হওয়ার পর তিনি মর্নিং নিউজ এবং নিউজ এজেন্সি পিপিআই,পাকিস্তান টাইমস ও এপিপি’র প্রতিনিধি ছিলেন। কুমিল্লায় কৃষি বিদ্রোহ ব্রিটিশ সময়ে সারা ভারতে একটি চাঞ্চল্যকর আলোচনা বিষয় ছিল। বরুড়ার মুহম্মদ এয়াকুবের নেতৃত্বে কৃষক আন্দোলনে বেশ কয়েকজন কৃষক পুলিশের গুলিতে মারা যায়। রজতনাথ নন্দীর পাঠানো খবর সারা ভারতে আলোড়ন সৃষ্টি করে। এ সংবাদ বির্তকের ঝড় তোলে সারা লন্ডনে ব্রিটিশ ‘হাউজ অব কমন্সে’। এ ব্যাপারে রজতনাথ নন্দীর ওপরও ঝড়-ঝাপটা গেছে। সাংবাদিকতা জীবনের বহু কথা, বহু গল্প শুনেছি তাঁর মুখ থেকে। আগে বলেছি তিনি প্রচার বিমুখ, নিজেকে কোথাও প্রকাশ করার চেষ্টা করতেন না অথবা তিনি যে কোন কোন বিষয়ে জানেন তাও তাঁর আচরণে প্রকাশ পেতো না। তবে আমরা দেখেছি তাঁর জ্ঞানের ব্যাপ্তি। শুনেছি ব্যাপ্টিস্ট চার্চের কোন ইংরেজ ভদ্রলোকও মাঝে মাঝে ইংরেজিতে লেখা চিঠিপত্র, নথি ও রিপোর্ট জাতীয় বিষয়ের ভাষা ও ব্যাকরণগত দিক রজত দাদুকে দেখিয়ে নিতেন। এতে ধারণা করা যায় ইংরেজি ভাষার উপর দাদুর কতটা দখল ছিল। আমরাও দেখেছি প্রেস টেলিগ্রামের জন্য কত জটিল বাক্য কঠিন শব্দ ইংরেজিতে কত সহজভাবে লিখে ফেলতেন। ছোট খাটো মানুষটির বিশাল ব্যাপ্তি তখন আমরা কিছুটা বুঝতে পারতাম।
তাঁর পরিবারটি ছিল ব্রাহ্ম, রাজা রামমোহন রায়ের অনুসারী । সরাইলের কালিকচ্ছ তাদের আদি বাসস্থান । শিক্ষা,সংস্কৃতি, রাজনীতি সমৃদ্ধ নন্দী পরিবারের সন্তান তিনি। তার জন্ম ১৯০১ সালে। ব্রাহ্ম পরিবারের মত তাঁদের পরিবারেও সংস্কৃতি চর্চা, ক্রীড়া ও রাজনীতি চর্চা ছিল, ছিল অগ্রসর মানসিকতা। তাঁর পিতা রজনীনাথ নন্দী ছিলেন আইনজীবী। তিনি একটি সংবাদপত্রও সম্পাদনা করতেন। পত্রিকাটির নাম ‘প্রতিনিধি’। টেবলয়েড সাইজের পত্রিকাটি দু’পৃষ্ঠা ইংরেজি দু’পৃষ্ঠা বাংলায় ছাপা হত। এটাই ছিল পত্রিকাটির বিশেষ বৈশিষ্ট্য। পিতার মৃত্যুর পর রজতনাথ নন্দী দীর্ঘদিন পত্রিকাটি সম্পাদনা করেছেন। তাঁর বড় ভাই অজিত নাথ নন্দী ভিক্টোরিয়া কলেজে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। তাঁর সাহচর্যই তাঁকে ইংরেজি ভাষায় এতটা দক্ষতা পেতে সাহায্য করে। ১৯৩২ সালের একটি সংখ্যা আমি সংগ্রহ করেছিলাম। আমার সংগৃহীত সংখ্যাটির জেরক্স কপি বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটে প্রাচীন পত্রিকাগুলোর সাথে প্রদর্শিত হচ্ছে। পত্রিকাটি শুরু হতো বিজ্ঞাপন দিয়ে। রাজনীতি, ইস্তেহার, কৃষি, দ্রব্যমূল্য সংবাদে প্রাধান্য পেতো। সুতরাং একথা বলা যায়, রজতনাথ নন্দী পারিবারিক পরিবেশের মধ্য থেকে অত্যন্ত ছোটবেলা থেকেই সাংবাদিকতার আবহে তৈরি হয়েছেন। যার ফলে তাঁর ভেতরে সাংবাদিকতা জন্ম নিয়েছিলো। তিনি হয়ে উঠেছিলেন পরিপূর্ণ সাংবাদিক।
১৯৭৫ সালের ১৫ ডিসেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তখন দেশে অস্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করেছিলো, হরতাল বা কারফিউ ছিলো, যার জন্য তাঁর মৃত্যু সংবাদটি শুনেছি চার দিন পর। নীরব মানুষটি সেদিন কোলাহলহীন নীরবেই বিদায় নিয়ে গেলেন। রজতনাথ নন্দী কুমিল্লার সাংবাদিকতার ইতিহাসে এক উজ্জ্বল অধ্যায়। এ উজ্জ্বলতা হালে অস্পষ্ট হয়ে গেছে। অনেকেই ভুলে গেছেন। যাদের মনে রাখার তারাই শুধু মনে রেখেছেন। আমাদের আর সব কিছুর মতো গুণী ও প্রতিভার মূল্য হয়তো হারিয়ে যাবে। আমরা তাঁকে নিয়ে কিছুই করতে পারিনি। এ গ্লানি, এ বেদনা হয়তো আমাদের থেকেই যাবে। তবুও রজত নাথ নন্দী চির ভাস্বর হয়ে থাকবে আমাদের জগতে। তাঁর সততা, তাঁর জ্ঞান, তাঁর সাধারণ জীবন-যাপন, তাঁর মহত্ত্ব একজন বিরল মানুষ হিসেবে আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবেন।
লেখক-ড. আলী হোসেন চৌধুরী
সাবেক সাংবাদিক- দৈনিক বাংলা, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার।
সাবেক সম্পাদক- দৈনিক আমাদের কুমিল্লা।
বর্তমানে কুমিল্লা সিসিএন বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট নজরুল গবেষক।

আর পড়তে পারেন