রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমাদের দেশে ইন্টারনেট অনেক দেশের তুলনায় সস্তা : জয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৬, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

বাংলাদেশে ইন্টারনেট বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় সস্তা বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয় উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

তিনি বলেন, খুব সস্তায় মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন বলেই টেলিকম কোম্পানিগুলোর অভিযোগ, এ দেশে তাদের বিনিয়োগ বেশি করেও মুনাফা অনেক দেশের তুলনায় খুব কম।

বুধবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে ফাইভ জি সামিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন জয়।

বুধবার ওই অনুষ্ঠানে দেশে আনুষ্ঠানিকভাবে ফাইভ জি নেটওয়ার্কের পরীক্ষা চালায় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে এবং মোবাইল অপারেটর রবি।

সজীব ওয়াজেদ বলেন, অনেক তরুণের অভিযোগ, দেশে ইন্টারনেটের দাম খুব বেশি। ফলে তাদের অনেক টাকা এই ইন্টারনেটের পিছনেই খরচ করতে হয়। তারা হয়তো ভুল যায়, গত ১০ বছর আগেও দেশে এক মেগাবাইট ইন্টারনেট সংযোগ নিতে খরচ করতে হতো এক হাজার ডলার পরিমাণ অর্থ।

তিনি বলেন, আজ আমরা এমন একটা অবস্থায় আছি যে, যেখানে বলা হচ্ছে বাংলাদেশ বিশ্বের তথ্যপ্রযুক্তিগত উন্নতির দিক থেকে অনেক দ্রুত অগ্রগামী দেশ। এমন কী আমার জানা মতে, বিশ্বে এমন খুবই কম দেশ আছে যেখানে ওয়ান জি, টুজি থেকে ফোর জিতে আসতে মাত্র ছয় বছর সময় নিয়েছে। কিন্তু আমরা সেটা করতে পেরেছি প্রযুক্তির উন্নতির ফলেই।

এমন অগ্রগতির জন্য সজীব ওয়াজেদ দেশে কাজ করা টেলিকম প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধন্যবাদ জানান।

জয় বলেন, গত ফেব্রুয়ারিতেই দেশে ফোরজি নেটওয়ার্ক চালু হয়েছে। আর সেটি খুব দ্রুত বিস্তৃতি ঘটছে। ইতোমধ্যে টেলকোগুলো সারা দেশে ফোরজি নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দিতে খুব জোরে কাজ করছে বলে জানি। সেটি যেন আরো দ্রুত সারা দেশে দেওয়া হয় সেদিকে নজর দিতেও বলেন তিনি।

ইতোমধ্যে দেশের উপজেলা পর্যায়ে ফোরজি পৌঁছেছে বলে জানান তিনি।

সজীব ওয়াজেদ বলেন, ইন্টারনেট বিশ্বের অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশে সস্তা। এমনকি জিএসএমএ-মোবাইল অপারেটরসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ, তারা বিশ্বের সবচেয়ে কম কাস্টমার রেভিনিউ পায় বাংলাদেশ থেকে। এটা অবশ্য আমাদের গ্রাহকদের জন্য খুবই ভালো কথা।

এটা সম্ভব হয়েছে আমাদের সরকারের নীতি-পরিকল্পনা এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত সরকারের পরিকল্পনায় বলে বলেন জয়।

তিনি বলেন, ১০ বছর আগেই আমি বলেছিলাম সংশ্লিষ্ট সবাইকে যে আমাদের ইন্টারনেটের দাম কমাতে হবে অন্তত ৯৯.৯৯ শতাংশ। তখন অনেকেই বলেছিলেন, এটা কীভাবে সম্ভব? আমি বলেছিলাম, এটা শুধু সম্ভব নয়, এটাই করতে হবে। আর এটা করতে হবে আগামী ৫ বছরের মধ্যে। যা আমরা করতে পেরেছি।

আমি একজন টেকি পিপল। টেকি পিপল হিসেবে আমি বলতে চাই, আমি সবসমসয় অনলাইনে থাকি। আর আমি যে স্পিড পাই ফোরজির সত্য কথা বলতে এটা খুবই ভালো স্পিড। তবে কখনো কখনো যে থ্রিজিতে ড্রপ করে না এমন নয়। করে তবে সেটা খুব অল্প সময়ের জন্য। আমি বলব, ঢাকাতে খুব কম সময় এই ড্রপ করে; বলেন জয়।

আমরা চেষ্টা করছি খুব অল্প সময়ের মধ্যেই দেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গতিও বাড়ানো। আর আমি চাই যখন ফাইভ জি চালু হবে তখন যেসব দেশে তা চালু হবে তার প্রথম সারির দেশ হয় বাংলাদেশ। আমরা সেই চেষ্টাই করবো বলে বলেন প্রধান মন্ত্রীর এই তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। অতিথি ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ।

এর আগে নিজেদের প্রযুক্তি ঝালিয়ে নিতে বাংলাদেশ অফিসে ফাইভজি পরীক্ষার মহড়া দিয়ে নেয় চীনা প্রযুক্তি কোম্পানিটি।

গত মাসের শেষ দিকে দেশের এক অনুষ্ঠানে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার প্রথম ফাইভজির পরীক্ষা চালানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন।