মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমরা কি খাচ্ছি? নবীনগরে দেখা মিলল অবৈধ কারখানার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৫, ২০১৮
news-image

 

মো. দেলোয়ার হোসেন, নবীনগর :

বাঁচতে হলে খেতে হবে, খাবারের কোন বিকল্প নাই। মানুষের মৌলিক চাহিদার প্রধান একটি হচ্ছে খাদ্য। তার মানে দাড়াচ্ছে খাদ্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মানব জাতির জন্য। আমরা মানুষ এই খাদ্যের জন্যই প্রতিনিয়তই পরিশ্রম করে চলেছি।

আর সেই খাদ্য তৈরিতে যদি দেয়া হয় ভেজাল বা মেয়াদ উত্তীর্ণ উপকরণ তাও আবার অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তাহলে তো আমাদের বাঁচার পরিবর্তে গুনতে হবে মৃত্যুর ক্ষন। সরকারের খাদ্যে ভেজাল বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকলে দেশের আনাচে-কানাচে গড়ে উঠছে নানা নামে বে-নামে বিভিন্ন খাদ্য তৈরির অবৈধ ও নকল কারখানা। তেমনি একটি অবৈধ নকল কারখানার দেখা মিলল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে। উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের কাজলিয়া গ্রামে গ্রামীন ডেইরী ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ নামে এক প্রস্তুতকারক নকল কারখানার সন্ধান উপজেলা প্রশাসন।

ভ্রাম্যমান আদালত ম্যাজিস্ট্রেট সহকারি কমিশনার ভূমি জেপি দেওয়ানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যামান আদালত পরিচালনা করতে শনিবার দুপুরে কাজলিয়া গ্রামের উক্ত গ্রামীন ডেইরী ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ এর নকল কারখানায় পরিদর্শনে যান। নোংরা ও অস্বাস্থকর পরিবেশে খোলা অবস্থায় সেখানে তৈরি করা হয় ভেজাল ঘি।

এই সব ভেজাল ঘি এর ৮-১০টি ড্রাম বাহিরে খোলা অবস্থায় রাখা। পাশের ঘরে বাজার জাতের জন্য বিভিন্ন কোম্পানির নামে বানানো খালি কৌটা ও প্যাকেট। এ সময় উৎপাদিত ভেজাল ঘি, ডালডা, তেলের ড্রাম এবং খালি কৌটাসহ অন্যান্য সকল উপকরণ উপস্থিত জনতার সামনে ধ্বংস করা হয়। ধ্বংস করা মালামালের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৪ লাখ টাকা।

পরে অবৈধ নকল ঘি’র কারখানাটি সিলগালা করে দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। তবে কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারী কাউকেই পাওয়া যায়নি। এই ব্যাপারে সহকারি কমিশনার (ভূমি) জেপি দেওয়ান জানান, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিভিন্ন অবৈধ মালামাল ধ্বংস করে দিয়েছি এবং কারখানাটির কার্মকর্তা-কর্মচারীর খোঁজ নিচ্ছি, তাদের পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন