সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আমরা কাকে হারালাম ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৯, ২০২১
news-image

ফারুক মেহেদী:
স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন চলছে। স্বাধীনতার পর এই পাঁচ দশক নয় শুধু; গেল শতবছরেও কুমিল্লার একদা পিছিয়ে পড়া জনপদ বুড়িচং-ব্রাক্ষণপাড়ায় এমন কোনো ব্যক্তিত্বের জন্ম হয়নি যিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মত একটি বড় রাজনৈতিক দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য হতে পেরেছিলেন। এটা একমাত্র সম্ভব হয়েছিল সদ্য প্রয়াত এডভোকেট আবদুল মতিন খসরুর কল্যাণে। রাজনীতিতে শুদ্ধাচার সংস্কৃতির লালন-পালন থেকে শুরু করে শিক্ষা, অবকাঠামো ও জীবনাচার উন্নয়নে অত্যন্ত স্বপ্নচারী এই মানুষটি নিজ জনপদকে উচ্চে তুলে ধরতে একনিষ্ঠ ভাবে কাজ করেছেন। নিজে শূণ্য থেকে রাজনীতি করতে করতে এমপি থেকে মন্ত্রী, মন্ত্রী থেকে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং এর পাশাপাশি পেশাগত আরও বহু কিছুর নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। হয়তো আরও শতবছরেও বুড়িচং-ব্রাক্ষণপাড়াবাসী এমন উচ্চতার কাউকে নিজেদের এগিয়ে যাওয়ার সারথি হিসেবে পাশে পাবেন কিনা সন্দেহ রয়েছে।

তিনি ধারাবাহিকতা বজায় রেখে ওই জনপদে শিক্ষা প্রসারে প্রধান অগ্রাধিকার দিয়েছিলেন। এখন কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড’র সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্তত ১০টিই এ অঞ্চলের। যেখানের মানুষ একদা বিদ্যুৎ পেত না; সেখানে এখন শতভাগ বিদ্যুৎ নিয়ে গেছেন তিনি। পারিবারিক ভাবে তিনি আমাদের পরিবারের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিলেন। শৈশব থেকে তাকে আমরা একজন সৎ, উদ্যমী এবং পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে দেখেছি। তার সৌম্য, শান্ত, ধীর ও নায়কোচিত ব্যক্তিত্বের প্রেমে পড়েছিলাম শৈশবের কোনো এক সময়। মনে হতো, ইসৃযদি উনার মত হতে পারতাম! আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি তিনি তখন আইন প্রতিমন্ত্রী হোন। পরে ইন্ডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের সাহসী উদ্যোগ নেয়ার পর আইনমন্ত্রী। আমার পেশাগত জীবনের পুরোটা সময়েই তিনি আমাকে স্নেহের আবেশে জড়িয়ে রেখেছিলেন। নিয়মিত ফোন করতেন, দেশের খবরাখবর নিতেন। বলতেন, তোরা হলি খবরের মানুষ। তোদের কাছেই আসল খবর পাওয়া যায়!

আমার নিজ উপজেলা বুড়িচংয়ের ঐতিহ্যবাহী ভরাসার হাই স্কুলের সাথেও ছিল তার নিবিড় যোগাযোগ। গণমাধ্যমে আমার কাজের প্রতি তার ছিল তীক্ষ্ণ নজর। ভালো কিছু করলেই ফোন করে বাহবা দিতেন। কয়েক বছর আগে স্কুলের সভাপতি হওয়ার জন্য এলাকাবাসী আমাকে অনুরোধ করে। এক সভায় যখন সবাই এমপি মহোদয়কে আমার নাম বলে, তিনি তখন একবাক্যে আমাকে হ্যাঁ বলেন। বলেন, ফারুক মেহেদী হলে তো কোনো কথাই নেই। সে জাতীয় ভাবে পরিচিত গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব। আধুনিক চিন্তা ও ধ্যান-ধারণার মানুষ। সে যদি সময় দেয় তাহলে আমার বিশ্বাস স্কুলের চেহারা পাল্টে যাবে। সেই থেকে স্কুলটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। শুরু থেকে গেল প্রায় সাড়ে তিন বছরে একটি শতভাগ ডিজিটাল স্কুল করতে কাজ করেছি। এখনও এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। কথা ছিল তিনি আমার স্কুলের সবশেষ কিছু ডেভেলপমেন্ট স্বশরীরে দেখতে আসবেন। আমিও ভাবছিলাম। সেই সুযোগ আর তিনি পাননি।

তিনি এখন আর আমাদের মাঝে নেই। তার মত উচু মানের জাতীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আমাদের জনপদে খুব সহসাই আসবে-এ আশাও করা যায় না। তারপরও কারো জন্য জায়গা খালি থাকে না। তিনি নেই কিন্তু বুড়িচং-ব্রাক্ষণপাড়ায় এখন চলছে আগামীর এমপি হওয়ার মৌসুম! কে যোগ্য কে অযোগ্য এই নিয়ে বিতর্ক হতে পারে। সেটা নিয়ে হয়তো অন্য একদিন লিখবো। কিন্তু আজ শুধু একটুকুই বলবো-আমি ব্যক্তিগত ভাবে আমার জনপদের একজন শিক্ষানুরাগী মানুষকে হারালাম। বিশেষ করে আমার ভরাসার হাই স্কুল হারালো একজন পৃষ্ঠপোষককে। আমার ধারণা ওই জনপদে এখন আর কোন স্কুল সরকারী স্বীকৃতি কিংবা এমপিওর বাইরে নেই। সামনের দিনগুলোতে এ ধারা কতটা বজায় থাকবে-এ প্রশ্ন রাখলাম আগামীর নেতৃত্বে কাছে।

লেখক:

ফারুক মেহেদী

গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব

বিশিষ্ট অর্থনীতি বিশ্লেষক ।

 

আর পড়তে পারেন