বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আপনারা সাংবাদিক?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২১, ২০২১
news-image

 

রুহুল আমিন:

পারিবারিক ও পেশাগত কাজে ট্রেনে চাঁদপুর থেকে চট্টগ্রামে যাচ্ছি। মাঝপথে এক জেলা শহরের সাংবাদিক বন্ধু উঠলেন। দীর্ঘ বছর পর অপ্রত্যাশিতভাবে দেখা হওয়ায় আমি খুশিতে আটখানা। অনেকদিন পর তার দেখা পেয়ে মনে মনে উপর ওয়ালাকে ধন্যবাদ জানালাম। যাক ট্রেনের ভ্রমণটা ভালোই কাটবে আজ। ইতিমধ্যে একে অপরের সাথে কুশলাদি বিনিময় করে আমরা গল্পে মজেছি।

আমাদের সিটের উল্টাদিকে মুখোমুখি এক শিক্ষিত মার্জিত ভদ্রলোক আমাদের গল্প করার বিষয়ে বুঝতে চাইছেন তার আচরণে তাই মনে হলো। আমরা দুইজনে একে অপরের সুখস্মৃতি মনের সুখে একে অপরের সাথে ভাগাভাগি করছি। মোটামুটি ৪০ মিনিটের মধ্যে একটা কি যেন বলে আমাদের গল্পে ছন্দপতন ঘটালেন তিনি। এমন একটা অবস্থায় আমরা বিরক্তবোধ করছিলাম। যা ঐ ভদ্রলোককে বুঝতে দিলাম না। একটু বিরক্তি নিয়েই তাকে শুনতে চাইলাম। তিনি আমাদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে জানতে চাইলেন আপনারা সাংবাদিক? ভদ্রলোকের এমন প্রশ্নে আমি খুশি হতে পারিনি। তবে, এটা তাকে বুঝতে দিলাম না। সময় যাচ্ছে তিনি এক সময় আমাদের গল্পে সমান তালে নিজেকে যুক্ত করলেন। যদিও আমরা চাইছিলাম আমাদের গল্প আরো এগিয়ে নিতে। ঐ ভদ্রলোক এমনভাবে আমাদের সাথে থেকে গল্পে মজেছেন যে তাকে কোনভাবেই বাদ দেয়া গেলো না। একের পর এক ভদ্রলোক প্রশ্ন ছুড়ছেন আমার বন্ধু তার প্রশ্নের জবাব দিয়ে গেলেন। তখন আমার অবস্থা নীরব দর্শকের ভুমিকায়। আমি দুজনের কথপোকথন শুনে যাচ্ছি। একসময় ভদ্রলোক আবারও ভালো করে জানতে প্রশ্ন করলেন ও তাহলে আমি যা ভেবেছি তা ঠিক। আপনারা সাংবাদিক।

আমার বন্ধুটি ইতিমধ্যে জেলা শহর থেকে একটি দৈনিক বের করেছে। ভদ্রলোকের প্রশ্নের জবাবে বললেন, জ্বী আমি ও আমার বন্ধু আমরা দু‘জনে সাংবাদিকতা করি। এখানে বলে রাখা ভালো আমার বন্ধুটি আমার সাথে গল্প করার ছলে একসময় বলেই ফেললো তুমিতো জাননা, আমি এখন জেলা শহরে থাকলেও ইতিমধ্যে আমি একটি প্রথম শ্রেণির জাতীয় পর্যায়ের দৈনিক পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি হয়ে লিখি এবং একটি চ্যানেলে কাজ করি। তোমার সাথে দীর্ঘ বছর দেখা ও যোগাযোগ না থাকায় তুমি তা জান না। একথা বন্ধুবর যখন বলছিলো তখন মনে পড়ে গেলো সেই নব্বই দশকের কথা। তখন ঢাকায় বসবাস করার সুবাধে সপ্তাহের প্রায় ৩/৪ দিন আমরা নিয়ম করে জাতীয় প্রেসক্লাবে আড্ডাবাজি করতাম। একবার কি এক কাজে আমরা দুইজনে একই সাথে প্রেসক্লাবে গিয়েছি। ওর কাজ ছিলো সাংবাদিকদের অভিভাবক প্রয়াত এবিএম মুছা ভাইয়ের কাছে। মুছাভাই ছিলেন ওর এলাকার মানুষ। তার সাথে কি এক কথায় মুছাভাই তাকে খুব শাসালেন। এদিন মুছা ভাই দীর্ঘ সময় আমাদেরকে সময় দিয়েছেন। প্রেসক্লাব থেকে বের হওয়ার প্রধান ফটকে দাঁড়িয়ে ও কি যেন চিন্তা করছে আর সিগারেট টানছে। তখনো আমি সিগারেটে অভ্যস্থ হয়ে উঠিনি। মিনিট বিশেক পর বন্ধুটিকে বললাম চলো বাসায় চলে যাই। ও বললো চলো যাওয়া যাক। ও যাবে উত্তরায় আর আমি লালমাটিয়ায়। সেদিন বাসে চড়ার পূর্ব মূহুর্তে বন্ধুটি বললো আমিন জানো আমি সাংবাদিক হতে চাই। এলাইনে আমি কাজ করবোই। আমি সরকারি চাকরি করবো না। সেদিনের পর আমাদের আরো বহুবার প্রেসক্লাবে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। ততদিনে বন্ধুটি আমার সাংবাদিক হওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে। যা সে কখনোই বলেনি আমাকে । তবে ওর মধ্যে একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করলাম। এরপর ওর বাবার মৃত্যুজনিত কারণে তাকে তার জেলা শহরে ফিরে যেতে হয়েছে।

আজ এত বছরপর ওর সাথে দেখা ও কথা বলে বুঝলাম সেদিন এমন কোন কাজে ভুল হওয়ায় মুছা ভাই বকা দেয়ায় ওর সাংবাদিক হওয়ার জিদ  জন্ম নিয়েছিল। আজ সেকারণে সে অনেক বড় সাংবাদিক। ওর কথা চিন্তা করে নিজেকে খুঁজে বেড়াই। সেদিন থেকে যদি আমিও সাংবাদিকতা শুরু করতাম তাহলে আজ আমিও সাংবাদিকতায় একটু ভালো কিছু করতে পারতাম। অন্ততঃ জেলা শহরের সাংবাদিকতো হতে পারতাম। আজ আমার অনেক বন্ধু আমার সাংবাদিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার সুযোগ পেত কিনা জানি না। সে যাকগে, আবারও ফিরে আসা যাক ফেলে আসা গল্পে। আমার বন্ধুটি ঐ ভদ্রলোকের সাথে গল্পে ডুবে আছে।

তিনি বললেন, একজন সাংবাদিক জাতীর বিবেক। কিন্তু এখনতো তা বলা যায় না। কারণ তিনি নিজেই ব্যাখ্যা করে বললেন এখন কেউ আগের মত লেখে না। সম-সাময়িক বিষয়ে তিনি যে অনেক জ্ঞান রাখেন তা তার কথাবার্তায় ইতিমধ্যে ফুটে উঠেছে। তাই এখন তিনি আমাদের গল্পের মধ্যমনি হয়ে উঠছেন। আমার বন্ধুটি, আমি ও ঐ ভদ্রলোক গল্প করছি। ইতিমধ্যে আমাদের দু’বার চা পান করা শেষ। শেষে তিনি যা বললেন সাংবাদিক হওয়ার জন্য সাহসের প্রয়োজন। এ পেশায় অনেক বিত্ত নেই, আছে সন্মান এবং মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সুযোগ। কিন্তু এখনতো সবাই নিজের আখের ঘুছাতে ব্যস্ত থাকে। সাংবাদিকতা করার সময় কই?

সঠিক ও ভালো সাংবাদিকতার জন্য প্রচুর পড়াশোনা করা প্রয়োজন। এখন কতজন মানুষ লেখা-পড়া করে। গ্রামে-গঞ্জে প্রায়ই দেখা যায় অশিক্ষিত মুর্খরা এ পেশায় এসে জুটেছে। এর ফলে সত্যিকারের সাংবাদিকতা এখন প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়েছে। মুর্খদের সাথে থেকে মুলধারার সাংবাদিকদের অবস্থা ত্রাহি ত্রাহি। ভাবলাম ভদ্রলোক এভাবে কথাগুলো বলে আমাদেরকে ছোট করছে নাতো ! পরে অবশ্য বললেন, আমার মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা নিয়ে মাস্টার্সে পড়ে। করোনা ভাইরাসের কারণে ওর ফাইনাল পরিক্ষা বন্ধ রয়েছে। না হয় এতো দিনে মেয়ে আমার সাংবাদিকতার সনদ হাতে পেয়ে যেতো। যদিও সে একটি প্রথম সারির পত্রিকায় কাজ করছে এখনই। ইতিমধ্যে সাংবাদিকতার কাজে ও বেশ কয়েকবার আমেরিকাসহ বেশ কয়েকটি পশ্চিমা দেশে যেতে হয়েছে। শেষে তিনি বললেন আমার মেয়েটা অনেক মেধাবী। ও চাইলে চিকিৎসা শাস্ত্রে বা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ পেতো কারণ সে ভর্তি পরিক্ষায় বুয়েটে এবং মেডিক্যালে সুযোগ পেয়েছিলো। কিন্তু আমার আগ্রহের গুরুত্ব দিতে সে সাংবাদিক হতে এবিষয়ে ভর্তি হয়েছে। কারণ আমি সাংবাদিকদেরকে অনেক পছন্দ করি ও ভালোবাসি। গল্প করতে করতে এক সময় আমরা পাহাড়তলী স্টেশনে পৌঁছে গেলাম। ইতিমধ্যে ট্রেন থামতেই কুলিদের চেচামেচি কানে এলো। আমরাও স্টেশন থেকে যে যার গন্তব্যের উদ্দেশ্যে স্কুটার ধরলাম। তখনো আমার কানে ঐ ভদ্রলোকের প্রশ্নটি বাজতে থাকলো আপনারা সাংবাদিক? নিজেকে নিজে প্রশ্ন করলাম আমি কি সাংবাদিক?

আর পড়তে পারেন