সোমবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আট ঘণ্টা পর কুমিল্লার ইপিজেডের আগুন নিয়ন্ত্রণে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৯, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা ইপিজেডে আরএন স্পিনিং মিলে লাগা আগুন আট ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তবে এখনো আগুনের ধোঁয়া ঘটনাস্থলের চর্তুদিকে ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।
পানির সংকট দেখা দেয়ায় পাম্প চালু করে বিকল্প উপায়ে পানি সংগ্রহ করায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে বেশী সময় লাগছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

আগুনে কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতির আশংকা করছে কর্তৃপক্ষ। কারখানার ভেতর বিপুল পরিমাণ সুতা ও তুলা থাকায় খুব কম সময়েই আগুন দুই তলাবিশিষ্ট ওই কারখানায় ছড়িয়ে পড়ে। আগুন ভোর সাড়ে ৫টার দিকে নিয়ন্ত্রনে আসে বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ।

এর আগে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। সকাল সোয়া ৬টায় আগুন নিয়ন্ত্রনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ফারুক আহমেদ।

তিনি বলেন, রাত ৯টা ৩৫ মিনিটে আমাদের কাছে আগুন লাগার খবর আসার পর প্রথমে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় ইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট। পরে আগুনের ভয়াবহতা দেখে চৌয়ারা বাজার ও কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিসের আরো ৭টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।

কারখানার মেকানিক্যাল বিভাগের কর্মী দিদার বলেন, কারখানার ভেতর ৩টি শিফটে কাজ হয়, প্রতি শিফটে অন্তত ৫০০ শ্রমিক কাজ করেন। আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে ফায়ার অ্যালার্ম শুনতে পেয়ে সকল শ্রমিক নিরাপদেই বাইরে চলে আসেন।

আগুনের খবর পেয়ে ইপিজেডের প্রধান দুটি গেটে উৎসুক জনতা ও শ্রমিকদের স্বজনরা ভিড় জমায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মোতায়েন করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার সদস্য।

এদিকে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর, পুলিশ সুপার মো. সৈয়দ নুরুল ইসলামসহ র‌্যাব ও পুলিশের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে আগুনে কারখানার কয়েকটি কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঘটনাস্থলে থেকে আগুন নিয়ন্ত্রণে তদারকি করছেন কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সহকারী পরিচালক রতন কুমার নাথ। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, দুই তলাবিশিষ্ট ওই স্পিনিং মিলে প্রচুর পরিমাণ সুতা ও তুলা থাকায় আগুন কম সময়েই পুরো কারাখানায় ছড়িয়ে পড়ে।

তিনি আরো বলেন, ইপিজেডের ভেতর থাকা পানি শেষ হয়ে যাওয়ায় পানির সংকট দেখা দিয়েছে। তাই পাম্প চালু করে বিকল্প উপায়ে পানি সংগ্রহ করা হয়।

আর পড়তে পারেন