মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আজো রহস্যে ঘেরা প্রিন্সেস ডায়ানার মৃত্যু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৩১, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

আজ ৩১ আগস্ট প্রিন্সেস ডায়ানার ২০তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৯৭ সালের এই দিনে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান সাবেক এই ব্রিটিশ রাজবধূ। ব্রিটিশ যুবরাজ প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে ১৯৮১ সালে বাগদানের পর থেকে ১৯৯৭ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ডায়ানাকে বলা হত বিশ্বের সবচেয়ে খ্যাতিমান নারী। তার জীবদ্দশায় তাকে বলা হতো বিশ্বের সর্বাধিক আলোকচিত্রিত নারী। সৌন্দর্য ও মধুর স্বভাবের জন্যই শুধু নয়, মানুষের সেবা ও স্থল মাইন ব্যবহারের বিরুদ্ধে প্রচারণার জন্য তিনি জায়গা করে নেন মানুষের মনে।              চার্লসের সঙ্গে ডায়ানার বিয়ে সুখে-শান্তিতে কাটেনি। শেষ পর্যন্ত ১৯৯৬ সালে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর ডায়ানার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে মিশরীয় বংশোদ্ভূত দোদি আল ফায়েদের। প্যারিসে গাড়ি দুর্ঘটনায় দুইজনই নিহত হন। কিন্তু এখনো ডায়ানার মিষ্টি হাসি মানুষ ভুলে যায়নি। প্রিন্সেস ডায়ানার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ইউরোপের প্রায় সবদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমে প্রচার হচ্ছে বিশেষ অনুষ্ঠান।

ডায়ানার মৃত্যুর ২০ বছর পার হলেও এখনো রহস্যে কূল-কিনারা হয়নি। আসলেই কি এটি কোনো ট্রাজেডি ছিল নাকি ষড়যন্ত্র? এই প্রশ্নের জবাব এখনো মেলেনি। গত মঙ্গলবার মার্কিন গণমাধ্যম ইউএসএ টুডে’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০ বছর পরও ডায়ানার মৃত্যু নিয়ে ষড়যন্ত্র তত্ত্ব টিকে রয়েছে। যেখানে সন্দেহে রয়েছে, দুই গাড়িচালক থেকে পাপারাজ্জি, ব্রিটিশ রাজ পরিবার থেকে ফরাসি পুলিশ ও ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআই ৬।

পাঁচটি দিক থেকে এসব ষড়যন্ত্র তত্ত্বকে দাঁড় করানোর চেষ্টা হয়েছে। প্রথমত বলা হচ্ছে, দোদির সঙ্গে ডায়ানার প্রেমের কারণেই এই যুগলকে মরতে হয়েছে। ‘ডায়ানা:দ্য লাস্ট ডেইস’ এর লেখক মার্টিন গ্রেগরি একটি ডকুমেন্টরি বলেন, যে রাতে দুর্ঘটনা ঘটে সে রাতেই ডায়ানাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে চেয়েছিলেন দোদি। দুর্ঘটনার পর দোদির পিতা আল ফায়েদ বলেন, তাদের নিজস্ব তদন্তের পর মনে হয়েছে দোদি মুসলিম হওয়ায় ব্রিটিশ রাজ পরিবার মানতে পারেনি। তারা চাইতেন না ডায়ানা দোদিকে বিয়ে করুক। কারণ ভবিষ্যত্ রাজা প্রিন্স উইলিয়াম ও হ্যারির সত্-বাবা একজন মুসলিম হবে এটা ব্রিটেনের প্রভাবশালীরা চাননি। দ্বিতীয়ত দাবি করা হয়, মৃত্যুর সময় ডায়ানা গর্ভবতী ছিলেন। আল ফায়েদ জানান, ডায়ানার গর্ভে দোদির সন্তান আসার কারণেই হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু ময়নাতদন্তের আগেই ডায়ানার শরীরের কিছু অংশ মমি করায় এর প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তৃতীয়ত বলা হয়, ডায়ানা ও দোদির গাড়ি চালককে অর্থ দিয়েই এই হত্যাকাণ্ড হতে পারে। গাড়ি চালক হেনরি পল এমআই ৬ এর একজন তথ্যদাতা ছিলেন বলে জানা যায়। চতুর্থত দাবি করা হয়, সাদা রংয়ের ফিয়াট গাড়ির চালক জেমস অ্যান্ডানসন ফরাসি পাপারাজ্জোদের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিলেন। ২০০০ সালে অ্যান্ডানসনের মরদেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ একে আত্মহত্যা বললেও আল ফায়েদের দাবি, ডায়ানাকে হত্যায় সম্পৃক্ততার জন্যই তাকে হত্যা করা হয়েছে। পঞ্চমত ও শেষ দিকটি হলো ট্যানেলের ভিতর আলোর ঝলকানি। ডায়ানার আগে থাকা গাড়ির চালক এই অস্বাভাবিক আলোর দাবি করেন। এমআই৬ এর এজেন্ট টমলিনসনের দাবি যানবাহনের মাধ্যমে গুপ্তহত্যা চালাতে এই আলোর ব্যবহার তাদের প্রশিক্ষণে শেখানে হয়।

২০ বছর পর প্রথমবারের মতো ডায়ানার এক ভিডিও ফুটেজে জানা যায়, স্বামী চার্লস নয়, ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীর সঙ্গে প্রণয়ই ছিল তার জীবনের সত্যিকারের ভালোবাসা। পরে অপমৃত্যু হয় ওই নিরাপত্তারক্ষীর। ডায়ানার দাবি এটি খুন ছিল। হয়তো এমন করেই একদিন রাজপ্রসাদের চার দেয়ালের বাইরে জানা যাবে ডায়ানার মৃত্যু ট্রাজেডি ছিল নাকি ষড়যন্ত্র।

আর পড়তে পারেন