রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আওয়ামী লীগে ক্যাপ্টেন তাজ কোন্দলে জর্জরিত বিএনপি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দেড় বছর বাকি থাকলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ বাঞ্ছারামপুর আসনে নির্বাচনী হাওয়া বইছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী। বরাবরের মতোই এবারও মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন দলের সাবেক মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম। মনোনয়ন প্রত্যাশী একাধিক না থাকায় ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে কোন্দলে জর্জরিত বিএনপি। মনোনয়ন যুদ্ধ থেকে শুরু করে নির্বাচনী লড়াইয়ে দলের সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করার চ্যালেঞ্জ রয়েছে বিএনপিতে।

তাজুল ইসলামের ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা, দলের নেতা-কর্মীদের একাত্মতা এবং তিন মেয়াদে নিজ দলীয় এমপি থাকায় অবিরাম এলাকায় উন্নয়নের কারণে আওয়ামী লীগ আসন্ন নির্বাচনেও চমৎকার বিজয় প্রশ্নে আশাবাদী। জানা গেছে, ১৯৯১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যেই লড়াই হয়েছে। সামনের নির্বাচনেও তা-ই হবে। মাঠের বিরোধী দল বিএনপিতে সাতজন প্রার্থী মনোনয়ন চাইবেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হওয়ায় অনেকটাই উজ্জীবিত নেতা-কর্মী-সমর্থকরা।
জানা গেছে, ১৯৭৩ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ব্যানারে এমপি নির্বাচিত হন ড. আবদুল হক, ১৯৭৮ সালে স্বতন্ত্র মোজাম্মেল হক অদুদ মিয়া, ১৯৮৬ সালে স্বতন্ত্র শহীদুর রহমান, ১৯৮৮ সালে স্বতন্ত্র এটিএম ওয়ালী আশরাফ। ১৯৯১ সালে বিএনপি থেকে নির্বাচিত হন এটিএম ওয়ালী আশরাফ। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম, ২০০১ সালে বিএনপির আবদুল খালেক, ২০০৮ এ আবারও আওয়ামী লীগের ব্যানারে নির্বাচিত হন ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম, ২০১৪ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ব্যানারে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলাম (অব.)। ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলাম ২০০৮ সালে নির্বাচিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হন। ১৯৯৬ সালে তিনি এমপি এবং প্রতিমন্ত্রী হওয়ার পর বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সঙ্গে বিভিন্ন স্থান দিয়ে যোগাযোগ স্থাপন করেছেন। আড়াইহাজার উপজেলার সঙ্গে মেঘনা নদীতে ফেরি স্থাপন করে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে সরাসরি সড়ক যোগাযোগও স্থাপন করেন ২০১১ সালে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ কে একসময় বিএনপির নিশ্চিত আসন ভাবা হলেও ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ এবং ২০০৮ থেকে আজঅবধি অভূতপূর্ব উন্নয়ন করে বাঞ্ছারামপুরকে বদলে দিয়েছেন তাজুল ইসলাম। দলকেও করেছেন সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী। ১৯৭৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সফিকুল ইসলাম প্রায় ৭ হাজার ভোট পান। ২০০৮ সালের নির্বাচনে ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম উপজেলায় আওয়ামী লীগকে একটি শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করিয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রায় ৯৫ হাজার ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। এ প্রসঙ্গে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমরা সবাই ক্যাপ্টেন তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের এবং আমাদের আসনে হ্যাটট্রিক জয়ের জন্য তাজুল ইসলামকেই আমরা প্রার্থী হিসেবে চাই।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে একক প্রার্থী দিতে সক্ষম হব। তবে আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানিয়েছে, কোনো কারণে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম নির্বাচন না করলে সাবেক যুগ্ম সচিব, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক, বাফুফের সহসভাপতি ও সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যক্ষ আবুল খায়ের দুলাল এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক সাঈদ আহমদ বাবু মনোনয়ন চাইবেন। অপরদিকে কমিটি গঠন এবং নেতৃত্ব নিয়ে কোন্দলে জর্জরিত বিএনপির অন্তত ৭ নেতা মনোনয়ন চাইবেন বলে তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। উপজেলা বিএনপি সভাপতি আবদুল খালেক, সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান লুণ্ঠন, সহসভাপতি মেজর সাইদুল ইসলাম সাইদ (অব.), সহসভাপতি বোরহান উদ্দিন, উপজেলা বিএনপির সদস্য ডা. রফিকুল ইসলাম খোকন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মো. রফিক সিকদার, বিএনপির উপদেষ্টা মো. জিয়াউদ্দিন জিয়া, উপজেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মোস্তফা আজাদ নিজ নিজ দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী বলে শোনা যায়। উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল খালেক বলেন, তৃণমূল পর্যায় এই সময়টাতে বিএনপিকে তিনিই সংগঠিত করেছেন। তার ধারণা তৃণমূলে তার শক্ত অবস্থানের কারণে বিএনপি তাকেই মনোনয়ন দেবে। তিনি বলেন, আমি মনোনয়ন পেলে বিএনপি বিজয়ী হবে।

আর পড়তে পারেন