মঙ্গলবার, ১২ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অযত্নে অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে বৃটিশ আমলের নান্দনিক জমিদার বাড়ি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১
news-image

 

মো. আজিজুর রহমান, বরুড়া:

কুমিল্লার বরুড়ার গালীমপুর গ্রামে বৃটিশ আমলের নান্দনিক জমিদার বাড়ির দুই দোতলা ভবন অযত্নে অবহেলায় নষ্ট হয়েছে। খসে পড়ছে ভবনের ভেতর ও বাহিরের দেওয়ালের পলেস্তা। পাশেই রয়েছে একটি কর বাড়ি। তৎকালিন সময়ে যারা কর আদায় করতেন তাদের বংশধররা এখনো কর বাড়িতে বসবাস করছেন।

জানা গেছে, বৃটিশ শাসনে আমলের সময় গালীমপুরে জমিদারদের বসবাস ছিলো। এখানে কর আদায়ের জন্য কর বাড়িও ছিলো। জমিদারদের বসবাসের জন্য দুই নান্দনিক ভবন রয়েছে। জমিদার বাড়ির চতুর দিকে খালী জমিও পড়ে রয়েছে। তৎকালিন সময়ে আনুমানিক ৪৭ কানি জমির উপর এ জমিদার বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছিলো। ১৯৫০ সালের দিকে জমিদার প্রথা বিলপ্তি হয়ে যায়। পরবতীতে জমিদারের বংশধরা ভারতে সোনামুড়ায় চলে যান। বাংলাদেশ স্বাধীনের পরে ভারতে সোনামুড়ায় বসবাস করতেন আসাদ আলী ভূইয়া। তিনি তৎকালিন জমিদারের বংশধরে কাছ থেলে ভারতের সম্পত্তি দিয়ে রেজবদল করে দেশে চলে আসেন। এবং জমিদার বাড়িতে বসবা করেন এবং পরবর্তীতে তিনি নিজেও কিছু জমি কিনেছেন বলে জানা যায়।

আসাদ আলী ভূইয়ার দুই পুত্র সন্তান ছিলো। একজনের নাম জানা যায়নি। সে না কি ভারতের কলকতায় চলে গেছেন। আরেকজনের নাম আলী আক্কাস ভূইয়া। তার দুই ছেলে ও ৬ কন্যা সন্তান রয়েছে। একটা সময় আলী আক্কাস ভূইয়াও মারা যান। তার দুই ‍পুত্রের মধ্যে একজনের নাম আলমগীর হোসেন ভূইয়া। তিনি তার সময়ে অনেক জমি বিক্রি করেছেন। বর্তমানে তিনি এবং তার ভগ্নিপতিসহ জমিদার বাড়িতে বসবাস করছেন। জমিদার বাড়িটির চতুর পাশের জমি দখল হয়ে গেছে। কিছু জমি আলমগীর হোসেন ভূইয়াও বিক্রি করে দিয়েছেন। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ এ জরাজীর্ণ জমিদার বাড়িতে বসবাস করছেন। যেকোন মূহুর্তে ঝড়ের কবলে পড়লে ভবন দুটি ভেঙ্গে পড়তে পারে। ভবন দুইটি নির্মাণে ইট, বালি ও লোহার পাত ব্যবহার করা হয়েছিলো। দরজা জানাগুলো কাঠের। এখনো এসব জিনিস কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে। সম্প্রতি অযত্নে অবহেলায় নান্দনিক কারুকাজের নির্মাণ শৈলিক ধংশ হয়ে যাচ্ছে।

এ ব্যপারে ঐ বাড়িতে বসবাসকারী ওয়ারিশ দাবিদার জাহাঙ্গীর আলম ভূইয়া জানান, সে আহসান মঞ্জিল এর বংশধর। সে এ জমিদার বাড়ির মালিক। তাই সে এখানে বসবাস করছেন।

এ ব্যাপারে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার জানান, দেশ স্বাধীনের পরে আসাদ আলী ভূইয়া ভারতের সোনামুড়া থেকে জমিদারের বংশধরের সাথে সম্পত্তি রেজবদল করে এখানে বসবাস করতেন বলে জানান। এখন যারা বসবাস করেন তারা আসাদ আলী ভূইয়ার ওয়ারিশ ।

এ বিষয়ে প্রত্নতত্ব অধিপ্তর কুমিল্লা আঞ্চলিক পরিচালক এ কে এম সাইফুর রহমানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি। এ ব্যপারে গালিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল আলম জানান, জমিদার বাড়িতে একটি পরিবার বসবাস করেন। তারা কোন সূত্রে বসবাস করেন সে বিষয়ে তিনি অবগত নন। তাছাড়া কিছু জমি বেদল হয়ে গেছে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. আনিসুল ইসলাম বলেন, বরুড়ায় আসার পর ঐ জমিদার বাড়িতে পরিদর্শন করেন। পরবর্তী আর খোজখবর নেওয়া হয়নি বলে জানান। এ সম্পত্তি ওয়াফকৃত কিনা সে বিষয়ে তিনি খোজখবর নিয়ে ঐতিহাসিক জমিদার বাড়িটি রক্ষা করার জন্য উদ্যোগ গ্রহন করবেন।

আর পড়তে পারেন