সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অভিভাবকত্ব এবং শিশুর হেফাজতের ক্ষেত্রে নারীর অধিকার কতটুকু?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৫, ২০২১
news-image

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক:

বাংলাদেশে শিশুর হেফাজত এবং অভিভাবকত্ব মুসলিম ব্যক্তিগত আইন এবং The Guardians and Wards Act, 1890 এবং পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশ, 1985 দ্বারা নিয়ন্তিত হয় ৷ তাহলে অভিভাবকত্ব এবং শিশুর হেফাজতের ক্ষেত্রে নারীর অধিকার কতটুকু?

ইসলামিক জুরুযপ্রুডেন্স অনুযায়ী, অভিভাবকত্বের ক্ষেত্রে পিতাই সন্তানের আইনগত অভিভাবক নিযুক্ত হন ৷ তার অবর্তমানে তার ইচ্ছাপত্রের মাধ্যমে নির্ধারিত ব্যক্তি, যদি এ রকম ব্যক্তি না থাকে তবে তার অবর্তমানে নাবালকের দাদা আর দাদার অবর্তমানে তার ইচ্ছাপত্রের মাধ্যমে নির্ধারিত ব্যক্তি নাবালকের অভিভাবক নিযুক্ত হবে ৷ তবে অভিভাবকত্ব আইনে সন্তানের স্বার্থ বিবেচনায় রেখে অভিভাবকত্ব নির্ণয়ের সুযোগ রয়েছে ৷ একজন মাতা তার সন্তানের অভিভাবক হতে পারেনা এর পরিবর্তে সে তার পুত্র সন্তানের হেফাজত (Custody) চাইতে পারে যতক্ষন পর্যন্ত না তার বয়স 7 বছর হয় এবং কন্যা সন্তান যতক্ষণ পর্যন্ত না সে প্রাপ্ত বয়স্ক হয় ৷

যদি পিতা বা তার পক্ষের কোন অভিভাবকের কোন কাজের দ্বারা অভিভাবকত্বের বিষয়ে কোন দায়িত্ব পালনে ব্যার্থ হয়, তাহলে সংক্ষুব্ধ মাতার অধিকার আছে পারিবারিক আদালতে মোকদ্দমা করার এবং বাংলাদেশ সংবিধানের 102 নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী শিশুকে তার হেফাজতে নেওয়ার জন্য রিট দায়ের করার ৷ যদিও এই ক্ষেত্রে উক্ত মাতাকে আদালত সন্তানটিকে হেফাজতে রাখার অনুমতি দিতে পারে, তবুও উক্ত ক্ষেত্রে পিতাই উক্ত সন্তানের অভিভাবক বলে গন্য হবে ৷

নাবালক সন্তানের হেফাজত করার ক্ষমতা মায়ের বিবাহ বিচ্ছেদের পরও থাকে ৷ তবে কয়েকটি কারনে মায়ের এই ক্ষমতা ক্ষুন্ন হতে পারে ৷ উচ্চ আদালতের নজীর বলে, হেফাজত এর ক্ষেতে সন্তানের স্বার্থ সর্বোচ্চ বিবেচনায় এনে “Welfare Doctrine” এর প্রচলন করা হয়েছে ৷ এ বিষয়ে আমাদের বিচার বিভাগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে ৷ যদিও হেফাজতের ক্ষেত্রে মায়েদের অধিকার স্বীকৃত হয়েছে, অভিভাবকত্বের বিষয়ে এখনও প্রচলিত আইনই অনুসরন করা হয় যেখানে মায়েদের অবস্থান অপেক্ষাকৃত নীচে ৷

আমাদের দেশে নাবালকের অভিভাবকত্ব ও হেফাজত সংক্রান্ত বিষয় অভিভাবকত্ব আইন 1890 এবং মুসলিম পারিবারিক আইন বা শরীয়াহ দিয়েই পরিচালিত হয় ৷ প্রচলিত শরীয়াহ আইনের বাইরে এসে সন্তানের স্বার্থ সর্বোচ্চ বিবেচনায় এনে আমাদের উচ্চ আদালত যুগান্তকারী সিন্ধান্ত দিয়েছে ৷ আবুবকর সিদ্দিকি বনাম এস.এস. এ বকর  মামলায় ছেলের বয়স 7 বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পরও মাকে সন্তানের হেফাজত করার ক্ষমতা দেন (38 ডিএলআর, আপীল বিভাগ  106) ৷ আবার মা যদি অন্য কাউকে বিবাহ করে তবে সন্তানের হেফাজত করার ক্ষমতা এবং অভিভাবকত্ব হারায় এই নীতি থেকেও আমাদের বিচার বিভাগ সরে এসে রায় দিয়েছে জোহরা বেগম বনাম মাইমুনা খাতুন, মামলায় (16 ডিএলআর 1964) ৷ এখানে বলা হয়েছে কেবলমাত্র কোন আগুন্তুককে বিয়ে করলেই মা তার সন্তানকে হেফাজত করার ক্ষমতা হারাবে তা নয় বরং পরিস্থিতি বিবেচনায় মাকে সন্তানের অভিভাবকও ঘোষণা করা যায় ৷
যদি পিতার কোন অসিয়াত এর মাধ্যমে নাবালকের মাকে অভিভাবক হিসেবে নিয়োগ দেয় বা আদালত যথাযথ ক্ষেত্রে নাবালকের মাকে অভিভাবক হিসেবে নিয়োগ দেয়,  সেই ক্ষেত্রে মা নাবালকের অভিভাবক হতে পারে ৷
লেখকঃ
মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক
শিক্ষানবিশ আইনজীবী, ঢাকা বার এসোসিয়েশন ৷
শিক্ষার্থী এলএল.এম. (চলমান) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷
এল এল বি (সম্মান) ইষ্ট ওয়েষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় ৷

আর পড়তে পারেন