বুধবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অভিভাবকত্ব এবং শিশুর হেফাজতের ক্ষেত্রে নারীর অধিকার কতটুকু?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৫, ২০২১
news-image

মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক:

পরিসংখ্যান বলছে, রাজধানী ঢাকায় দৈনিক ৩৯টি তালাকের ঘটনা ঘটেছে, অর্থাৎ প্রতি ৩৭ মিনিটে একটি তালাক হয়েছে। বিবাহবিচ্ছেদ বেড়ে যাওয়া বিবাহিত দম্পতিদের মাঝে সন্তানের হেফাজত এবং অভিভাবকত্ব নিয়ে নতুন দ্বন্ধ ও বৈরিতার সূত্রপাত হচ্ছে যা আদালত পর্যন্ত গড়াচ্ছে ৷ এমতাবস্থায় অভিভাবকত্ব এবং শিশুর হেফাজতের ক্ষেত্রে নারীর অধিকার কতটুকু?

আমাদের দেশে শিশুর হেফাজত এবং অভিভাবকত্ব মুসলিম ব্যক্তিগত আইন, পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশ, ১৯৮৫ এবং অভিভাবক এবং প্রতিপালন আইন, ১৮৯০ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে ৷

মুসলিম আইন অনুযায়ী পিতাই সন্তানের আইনগত অভিভাবক, পিতার অবর্তমানে দাদা কিন্তু যদি দুজনের কেউই বর্তমান না থাকেন সেক্ষেত্রে তাদের নির্ধারিত অথবা ইচ্ছাপত্রের মাধ্যমে অন্য কোন ব্যক্তিও সন্তানের অভিভাবক হতে পারেন ৷ কিন্তু মাতা সন্তানের অভিভাবক হতে পারেন না ৷ তিনি সন্তানের হেফাজত চাইতে পারেন শুধু৷ সেক্ষেত্রে ৭ বছর পর্যন্ত ছেলে সন্তানের ক্ষেত্রে এবং সাবালক হওয়া পর্যন্ত কন্যা সন্তানের ক্ষেত্রে মায়ের হেফাজতে থাকার বিধান রয়েছে ৷ তবে অভিভাবকত্ব আইন সমূহে সন্তানের স্বার্থ বিবেচনায়ও তার অভিভাবকত্ব নির্ধারনের সুযোগ রয়েছে ৷

পিতা সন্তানের আইনগত অভিভাবক হলেও তিনি বা নিয়োগকৃত অন্যকোন ব্যক্তি যদি সন্তানের অভিভাবকত্বের দায়িত্ব পালনে ব্যার্থ হন তাহলে সংক্ষুব্ধ মাতা বাংলাদেশ সংবিধানের ১০২(২)(খ)(অ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রিট দায়ের করতে পারেন ৷ এক্ষেত্রে আদালত তাঁকে হেফাজতের অনুমতি দিলেও পিতাই সন্তানের অভিভাবক থেকে যাবেন ৷ এছাড়াও মাতা সন্তানের হেফাজত এবং অভিভাবকত্ব প্রশ্নে পারিবারিক অধ্যাদেশ, ১৯৮৫ এর ৫ ধারা অনুযায়ী মোকদ্দমা দায়ের করতে পারেন ৷

হেফাজতের ক্ষেত্রে মায়ের যে অধিকার সেটা কয়েকটি কারনে ক্ষুন্ন হতে পারে যদি তিনি অনৈতিক জীবন যাপন করেন, সন্তানের যত্ন নেওয়ার ক্ষেত্রে অবহেলা করেন ৷ তবে মাতার বিবাহ বিচ্ছেদের পরও তার হেফাজতের অধিকার থেকে যাবে কিন্তু তিনি যদি অন্য কাউকে বিয়ে করেন যিনি সন্তানের ক্ষেত্রে গাইরে মাহরাম তাহলে মাতা অধিকার হারাবেন ৷

বর্তমানে সন্তানের হেফাজতের ক্ষেত্রে আদালত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে সেই ফলশ্রুতিতে উচ্চ আদালত সন্তানের স্বার্থ সর্বচ্চ বিবেচনায় এনে ডবষভধৎব উড়পঃৎরহব প্রচলন করেছে যার মাধ্যমে সন্তানের স্বার্থ সর্বচ্চ প্রাধান্য পাচ্ছে ৷ এতে করে মাতার হেফাজতের ক্ষেত্রে অধিকার নিশ্চিত হলেও অভিভাবকত্বের বিষয়ে প্রচলিত আইনই মানা হয় ফলে নারীর অধিকার এখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি পুরোপুরি ৷

বর্তমানে বিবাহ বিচ্ছেদ আশংকা জনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে সন্তানের অভিভাবকত্বও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উপনীত হয়েছে ৷ সেক্ষেত্রে অভিভাবকত্ব ও হেফাজতের প্রশ্নে অভিভাবকত্ব, পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশ ১৯৮৫ এবং অভিভাবক এবং প্রতিপালন আইন, ১৮৯০ এবং মুসলিম শরীয়া আইন দ্বারা তা নিষ্পত্তি করা হলেও বর্তমানে আদালত প্রচলিত আইনের বাহিরে গিয়েও সন্তানের স্বার্থ বিবেচনায় সিন্ধান্ত প্রদান করছেন ৷ মোসাঃ জোহরা বেগম বনাম শেখ লতিফ আহমদ মুনাওয়ার, ১৭ ডিএলআর ১৩৪ মামলায় আদালত সন্তানের বয়স ৭ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পরও মাকে সন্তানের হেফাজত করার ক্ষমতা প্রদান করেন ৷ এছাড়ও মোঃ আবুবকর সিদ্দিক বনাম এসএমএ বকর এবং অন্যান্য, ৩৮ ডিএলআর এডি ১০৬ মামলায় আদালত একই সিন্ধান্ত প্রদান করেন ৷ এছাড়াও বর্তমানে মায়ের অন্যত্র বিবাহ হলেও তিনি সন্তানের অভিভাবকত্ব ও হেফাজতের অধিকার থেকে বঞ্চিত হবেন না যা জোহরা বেগম বনাম মাইমুনা খাতুন, ১৬ ডিএলআর ১৯৬৪ মামলা দ্বারা স্বীকৃত ৷ উক্ত মামলায় আদালত বলছেন, কেবলমাত্র কোন অগুন্তুককে বিয়ে করলেই মাতা তার সন্তানকে হেফাজত করার ক্ষমতা হারাবেন না বরং পরিস্থিতি বিবেচনায় মাকে সন্তানের অভিভাবক ও ষোষণা করা যাবে ৷

এছাড়াও সন্তানের হেফাজতের জন্য সরাসরি হাইকোর্ট বিভাবে রিট দায়ের করা যাবে যা বর্তমানে আদালত দ্বারাও স্বীকৃত ৷ মিসেস শ্যারন লাইলি বেগম বনাম আবদুল জলিল এবং অন্যান্য ৫০ ডিএলআর (এডি) ৫৫ মামলায় রিটের বিষয়টি স্বীকৃত হয়েছে ৷

পরিশেষে বলা যায়, সন্তানের আইনত অভিভাবক ও হেফাজত পিতার কাছেই নিহিত থাকে ৷ তবে বর্তমানে আদালত সন্তানের সর্বচ্চ স্বার্থ বিবেচনায় এনে সিন্ধান্ত প্রদান করছেন ৷ ফলে যদি পিতা অসিয়াত এর মাধ্যমে এবং আদালত যথাযথ ক্ষেত্রে এবং সন্তানের স্বার্থ বিবেচনায় মাকে সন্তানের অভিভাবক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন, সেই ক্ষেত্রে মাতা সন্তানের অভিভাবক হতে পারবেন ৷

তথ্যসূত্রঃ ল’ ল্যাব এবং অন্যান্য ৷

লেখকঃ
মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক
শিক্ষানবিশ আইনজীবী, ঢাকা বার এসোসিয়েশন ৷
শিক্ষার্থী এলএল.এম. (চলমান) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷
এল এল বি (সম্মান) ইষ্ট ওয়েষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় ৷

আর পড়তে পারেন