বৃহস্পতিবার, ২১শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অপরিকল্পিত নগরী কুমিল্লা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
শিক্ষা ও সাহিত্য-সংস্কৃতির পাদপিঠ উপমহাদেশের প্রাচীণ শহর হিসেবে খ্যাত কুমিল্লা এখন অপরিকল্পিত নগরীতে পরিণত হয়েছে। ২০১২ সালের প্রথম দিকে কুমিল্লার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নগর পিতার চেয়ার অলংকৃত করেন মনিরুল হক সাক্কু। নগরবাসির প্রত্যাশা ছিল ,জলাবদ্ধতা ও যানজটমুক্ত হয়ে কুমিল্লা হবে একটি পরিকল্পিত নগরী। কিন্তু বাস্তবতার চিত্র হয়ে গেল ভিন্ন।
বাংলাদেশের প্রায় সব কটি সিটি কর্পোরেশনের বিএনপিপন্থি মেয়র ক্ষমতায় বসার সাথে সাথে মামলা খেয়ে কারাগারে গেছেন, মেয়রের চেয়ারে আর বসা হয়নি। সেক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিলেন কুসিক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। বিভিন্ন সূত্রমতে, তিনি সরকার দলীয় লোকদের সাথে সমঝোতা করে ৫ বছর বেশ ভালোভাবেই নগর পিতার আসনটি ধরে রেখেছিলেন। কিন্তু মেয়র নিজের অবস্থান ঠিক রাখতে পারলেও কুমিল্লা নগরবাসির ভোগান্তি লাঘব করতে পারেননি। কর বাড়লেও সেবা পায়নি নগরের মানুষ ।
সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও সিটির বরাদ্দকৃত বাজেটের যথাযথ বাস্তবায়নের অভাবে কুমিল্লা নগরী এখন পরিণত হয়েছে অপরিকল্পিত নগরীতে। ভাঙ্গাচোরা রাস্তাঘাট, বাজে ড্রেনেজ ব্যবস্থা, রাস্তা দখল করে অনিয়ম মাফিক বহুতল ভবন নির্মাণ, নিয়ম না মেনে বহুতল বিপণী বিতান নির্মাণসহ নানা কারণে কুমিল্লা নগরী এখন অপরিকল্পিত নগরীর উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।
রাস্তাঘাট-ড্রেনেজ ব্যবস্থাঃ
নগরীর বেশিরভাগ রাস্তাঘাট ভাংগাচোরা। কয়েকদিন পর পর টেন্ডার আহ্বান করে রাস্তার কাজ হলেও কয়েক মাসের মধ্যে রাস্তাঘাটগুলো ফিরে যায় পূর্বের চেহারায়। অনুসন্ধানে জানা যায়, মেয়রের পচ্ছন্দের ঠিকাদাররাই ঘুরে ফিরে কাজগুলো করেছে। যথাযথ তত্ত্বাবধানের অভাবেই কাজের মান নিশ্চিত না হওয়ায় রাস্তাঘাটগুলো পূর্বের অবস্থায় ফিরে যাচ্ছে। সামান্য বৃষ্টিতে কুমিল্লার নগরীর চকবাজার, কাটাবিল, হয়রতপাড়া, মুরাদপুর, চর্থা, কাপড়িয়াট্টি, ছাতিপট্টি, স্টেডিয়াম এলাকা, ঝাউতলা, রেইসকোর্স, বাগিচাগাঁও, কালিয়াজুড়ি, মোগলটুলিসহ অনেক এলাকায় হাটু সমান পানি হয়ে যাচেছ। ভালো মানের ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানিও সরতে দেরি হচ্ছে। ডাস্টবিন-ড্রেনের ময়লায় সব একাকার হয়ে যাচ্ছে। বছরজুড়ে মশার উৎপাত সহ্য করতে হয় নগরবাসিকে। ফলে ভোগান্তির চরমে থাকছে কুমিল্লা নগরবাসি।
অনিয়ম মাফিক বহুতল ভবন নির্মাণঃ
কুমিল্লা নগর জুড়ে রয়েছে অপরিকল্পিত বহুতল ভবনের ছড়াছড়ি। যেখানে ভবন নির্মাণের কোন নিয়ম-নীতি মানা হয়নি। বিভিন্ন সূত্রমতে, লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে প্ল্যান পাশের অনুমতি দিয়েছে সিটি কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন ডেভলপার কোম্পানিগুলোও সিটি কর্তৃপক্ষকে খুশি করে অনিয়ম মাফিক বহুতল ভবন নির্মাণ করেছে। যেগুলোর বেশিরভাগই নিয়ম মাফিক চলাচলের রাস্তা না ছেড়েই করা হয়েছে। এসব ভবন এখন কুমিল্লাবাসির জন্য গলায় কাটা আটকানোর মত অবস্থা হয়েছে। এদিকে নগরের প্রাণকেন্দ্র কান্দিরপাড় এলাকায় সরকারি জায়গায় সিটি মার্কেট নির্মাণ করে সিটি কর্তৃপক্ষ। কয়েকবার এই মার্কেটটি ভাঙ্গার নির্দেশ দিলেও পরবর্তীতে মার্কেটটি আর অপসারণ করা হয়নি। এই মার্কেটটির কারণে রাস্তা কিছুটা হলেও সরু হয়ে গেছে।
রাজগঞ্জ মোড়ে জাতীয় ফুলের উপর বিজ্ঞাপন বিলবোর্ড স্থাপন ঃ
রাজগঞ্জ মোড়ে জাতীয় ফুল শাপলা নির্মাণ করে, তার উপর আবার বিজ্ঞাপন বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। এতে করে জাতীয় ফুলকে অপমাণ করা হয়েছে।
পুকুর ও খাল-বিল ভরাটঃ
বিগত ৫ বছরে নগরীতে বেশ কয়েকটি বড় পুকুর ভরাট হয়েছে। শহরে পুকুর ভরাট নিষিদ্ধ হলেও নগরীর প্রফেসর পাড়ার পুকুর, চকবাজার বাসস্ট্যান্ডের পুকুর, নুরপুরের পুকুর, পানপট্টি, ঝাউতলার পুকুর, চর্থার পুকুরসহ অসংখ্য পুকুর ভরাট হয়েছে। প্রশাসনের পাশাপাশি কুসিক কর্তৃপক্ষও এসব পুকুর রক্ষার্থে কোন পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে কোন অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলেও পানি সরবরাহের বিষয়টি এখন কঠিন হয়ে পড়েছে।
সব মিলিয়ে কুমিল্লা নগরের সৌন্দর্য্যরে হানি ঘটেছে অনেকটাই। কুমিল্লা নগরীর চিত্রটা এখন হতাশার।
এ বিষয়ে সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির জলাবদ্ধতা ও যানজট নিরসন করতে পারিনি। তবে আগামিতে নির্বাচিত হলে এসব সমস্যার সমাধান হবে।

আর পড়তে পারেন