সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অপরাধের দায় কি শুধু নারীর একার?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৭, ২০২১
news-image

 

মানবজাতির ক্রমবিকাশে যেমন পুরুষের অবদান রয়েছে তেমনি নারীর অবদান সমান গুরুত্বপূর্ণ ৷ সভ্যতা, সংস্কৃতি ও অর্থনৈতিক বিকাশে নারীর অবদান বর্তমানে অনস্বীকার্য ৷ নারীর এমন সফলতার দিক যেমন আছে সেই সাথে পর্দার অন্তরালে অন্ধকার দিকটি ও কম নয় বরং অনেকাংশে বেশী৷ আপাত দৃষ্টিতে নারীর অপরাধের হার কম মনে হলেও আইনের ধরাছোঁয়ার বাহিরে রয়ে যায় এর বড় একটি অংশ ৷

বর্তমান আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় এমন অনেক ঘটনা সামনে আসছে যা পূর্বে এতোটা প্রকট ছিল না ৷ প্রতিনিয়ত নারীদের বিভিন্ন অপরাধে গ্রেফতার করার খবর আসছে ৷ নারীরা যে শুধু প্রচলিত অপরাধই সংঘটিত করছে তা নয় বরং নতুন নতুন অপরাধের সাথেও তাদের যুক্ত হতে দেখা যাচ্ছে যেমনঃ জঙ্গিবাদ, আত্বঘাতি হামলা, চোরাচালান ইত্যাদি ৷ বিভিন্ন গবেষনায় উঠে এসেছে নারীদের প্রতি নিরাপত্তা সংস্থার নমনীয়তা এবং তাদের জটিল শারিরিক গঠনের সুবিধা নিয়ে তারা সহজেরই নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে ফাঁকি দিতে পারে ৷ নারী জঙ্গিবাদের মামলা গুলো সুক্ষভাবে পর্যালোচনা করলে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যায় ৷

এমন কঠিন বাস্তবতায় প্রচুর নারী প্রতিনিয়ত গ্রেফতার হচ্ছেন কিন্তু কোনভাবেই নারীদের তা থেকে দূরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না ৷ তার প্রধান কারন হচ্ছে নারী অপরাধীদের গ্রেফতার করা হলেও তাদের আশ্রয় প্রশয় দাতা, অর্থের জোগান দাতা, তারা যাদের ছত্রছায়ায় বেড়ে ওঠে তাদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করা যাচ্ছে না ৷ বিষয়টি বহিবিশ্বের ক্ষেত্রে যেমন সত্য তেমনি বাংলাদেশ প্রেক্ষাপটেও সমান প্রাসঙ্গিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ৷

সমস্যাটি শুধু জঙ্গিবাদের ক্ষেত্রেই যে প্রযোজ্য তা নয় বরং তা সকল অপরাধের ক্ষেত্রেই প্রাসঙ্গিক ৷ কিছু উদাহরণ দিলে বিষয়টি আরও পরিস্কার হবে: গত ৪ অগাস্ট ২০২১, পরীমনির বনানীর বাসায় কয়েক ঘণ্টার অভিযানের পর তাকে র‍্যাব হেফাজতে নেয়া হয়। অভিযানের সময় বিপুল পরিমাণ মদ ছাড়াও এলএসডি ও আইসের মতো মাদক উদ্ধার করা হয়েছে বলে র‍্যাব দাবি করে। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয় ৷

এছাড়ও তার বিরুদ্ধে পর্ণোগ্রাফির অভিযোগ আনা হয় ৷ এমনকি ক্লায়িন্ট লিষ্ট হিসেবে তিনি ৩০০ জনের নাম উল্লেখ করেছেন এমন তথ্যও রয়েছে ৷ এবং তার বিলাশবহুল জীবনযাপন চিত্রও সামনে এসেছে ৷ কিন্তু পরীমনির বার্ষিক আয় মাত্র সাড়ে ৯ লাখ টাকা, আর ট্যাক্স দেন ৫০ হাজার ৷ফলে তার এই বিপুল পরিমান সম্পদ এবং বিলাসী জীবনের পিছনে তার পৃষ্ঠপোষক রয়েছেন৷ কিন্তু পরিমনি গ্রেফতার হলেও তারা ধরাছোঁয়ার বাহিরে ৷

এছাড়ও শামিমা নূর পাপিয়াকে গ্রেফতার করেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ৷ তিনি চাকরি দেওয়ার নাম করে নরসিংদী থেকে সুন্দরী দেখে গরিব নারীদের ঢাকায় নিয়ে আসতেন। পরে তাদের বিভিন্ন অনৈতিক কাজে বাধ্য করতেন।

এছাড়াও বিত্তবানদের মনোরঞ্জনের জন্য দামি ও বিলাসবহুল হোটেলে আনতেন। পরে এসব নারীর সঙ্গে তাদের ছবি ও ভিডিও রেখে ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ আদায় করতেন পাপিয়া।

অপরদিকে রিজেন্ট হাসপাতাল ও জেকেজি হেলথ কেয়ারের প্রতারণায় ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইনকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ৷ পুলিশের তদন্তে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে কোনো পরীক্ষা না করেই প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ জনকে করোনার টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করেছে। একটি ল্যাপটপ থেকে গুলশানে তাদের অফিসের ১৫ তলার ফ্লোর থেকে এই মনগড়া করোনা পরীক্ষার প্রতিবেদন তৈরি করে হাজার হাজার মানুষের মেইলে পাঠাতো তারা।

এছাড়াও ফেসবুকে বেশ সক্রিয় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে সম্প্রতি গুলশানের বাসা থেকে আটক করে র‍্যাব। তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, ক্যাসিনো সরঞ্জাম, বিদেশি মুদ্রা ও হরিণের চামড়া জব্দ করা হয়েছে।

এভাবে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন অপরাধে অসংখ্য নারী গ্রেফতার হচ্ছেন ৷ এখন প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে অপরাধের দায় কি শুধু নারীর একার?

অপরাধ সংক্রান্ত আইন সমূহ পর্যালোচনা করলে আমরা দেখতে পাই, যারা অপরাধের পরিকল্পনাকারী, ষড়যন্ত্রকারী, সহযোগিতাকারী, অর্থদাতা, আশ্রায়দাতা, পৃষ্ঠপোষক, আত্বগোপনে সহায়তা দানকরী, সুবিধাভোগী সহ যারা প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে অপারধের সাধে যুক্ত এবং অপরাধ বিস্তার ও সম্প্রসারণে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে আত্বনিয়োগ করেন তারাও বিভিন্ন মাত্রায় অপরাধী বলে বিভিন্ন আইনে সংজ্ঞায়ন করা হয়েছে ৷ ফলে অপরাধের ক্ষেত্রে গ্রেফতারকৃত নারীই যে শুধু অপরাধী তা নয় তাদেরকে যারা অপরাধের বিভিন্ন স্তরে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করেছেন, যারা তাদের ব্যবহার করেছেন, সুবিধা নিয়েছেন তারাও সমানভাবে দায়ী ৷

কিন্তু প্রতিনিয়ত এমন নানা অপরাধে প্রচুর নারী গ্রেফতার হলেও তাদের সাথে বিভিন্ন স্তরে যুক্ত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হয় না আবার কখনো নানা সীমাবদ্ধতায় সম্ভব হয়না ৷ ফলে অপরাধের সম্পূর্ণ দ্বায় নারীদেরই নিতে হয় ৷ আবার এর সাথে যুক্ত নারীদের আইনের আওতায় আনা হলেও অপরাধ কে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না কারন মূল অপরাধীরা ধরা ছোয়ার বাহিরে থেকে যায় ৷ ফলে এই অপরাধের চক্র তাদের ছত্রছায়ায় চলতেই থাকে ৷

আমাদের সমাজের একটি প্রচলিত ধারনা হচ্ছে যারাই অপরাধ সংঘটনের সাথে সরাসরি যুক্ত তারাই অপরাধী কিন্তু পর্দার অন্তরালে থাকা ব্যক্তির কোন দায় থাকেনা ৷ কিন্তু অপরাধের দায় শুধু নারীর একার নয় বরং এর সাথে যুক্ত সকল স্তরের ব্যক্তিদেরও এর দায় নিতে হবে এবং তাদেরও আইনের আওতায় আনতে হবে ৷

পরিশেষে বলা যায়, অপরাধের দায় শুধু নারীর একার নয়, বরং এই দায় অপরাধের সাথে যু্ক্ত সকলের ৷ এছাড়াও এই দায় আমাদের সমাজের, রাষ্ট্রের, আমাদের সকলের ৷ কারন আমরা আর্থসামাজিকভাবে প্রতিনিয়ত উন্নত হলেও আমাদের সকলের জন্য বৈষম্য মুক্ত, নিরাপদ, জনবান্ধব একটি সমাজ বিনির্মাণ করতে পারিনি৷ ফলে এককভাবে অপরাধের দায় শুধু নারীদের বলার সুযোগ নেই ৷

লেখকঃ মোঃ আবদুল্লাহ আল ফারুক, শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ৷

আর পড়তে পারেন