সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

অধিকার থাকলেও সুযোগ পাচ্ছেনা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৩, ২০২১
news-image

 

হিজরা বাংলাদেশের একটি নিগৃহীত গোষ্ঠীর নাম, যারা বিভিন্নভাবে অন্যায় ও অবিচারের শিকার হয়। সমাজ ও পরিবারের চোখে তারা অবহেলিত।

সংবিধানের ২৭ নম্বর অনুচ্ছেদে আইনের চোখে সব নাগরিক সমান হলেও তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ পাচ্ছে না সমান অধিকার, রক্ষা হচ্ছে না তাদের মৌলিক অধিকার ও মৌলিক চাহিদা।

২০১৪ সালের ২৬ জানুয়ারি বাংলাদেশ সরকার হিজরা সম্প্রদায়কে তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে পরিচিতি দিয়েছে, যা ছিল খুবই যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত। বর্তমান করোনা কালিন পরিস্থিতিতে তারা হচ্ছে হয়রানির শিকার। জাতীয় পরিচয় পত্র থাকা স্বত্বেও নিজ পরিচয়ে পারছেনা নিবন্ধন করতে।নিবন্ধন করতে পারলেও লাইনে দাড়ানো নিয়ে পোহাতে হচ্ছে নানান বিড়ম্বনা।আবার পরিবারের সঙ্গে সম্পৃক্ততা না থাকায় আবার অনেকের নেই জাতীয় পরিচয় পত্র বা জন্ম সনদ।কিন্তু জীবন যাপন ও আয় রোজগারের জন্য নিত্যদিন বের হতে হয় তাদের ঘর থেকে। এতে করে করোনা সংক্রমনের ঝুকি আরও বৃদ্ধি পায়।

এছাড়াও তারা ভূগছে নানান বিড়ম্বনায়, কারণ সমাজ ও পরিবার তাদের কখনোই স্বীকৃতি জানাতে পারেনি মন থেকে। একজন তৃতীয় লিঙ্গের সন্তান জন্মগ্রহণ করলে সমাজের ভয়ে পিতামাতা তাদের দূরে সরিয়ে দেন অথবা বয়সের সঙ্গে সঙ্গে যখন তাদের নিজস্ব সত্তার বহিপ্রকাশ হয়, তখন তাদের সত্তাকে লুকানোর চেষ্টা করা হয়। প্রথম অবহেলার শিকারই হয় পরিবার থেকেই।

অনেক পরিবার আছে পরিচয় দিতে অস্বীকৃতি জানায়, আবার অনেক পরিবার বঞ্চিত করে সম্পদের অধিকার থেকে। ১৯৬১ সালের মুসলিম উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী কন্যাসন্তান ও পুত্রসন্তানের সম্পত্তি বণ্টনের হিসাব রয়েছে, তৃতীয় লিঙ্গের কথা স্পষ্টভাবে কিছু বলা নেই এবং হিন্দু আইন অনুযায়ী যেখানে কন্যাসন্তান সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত, সেখানে তৃতীয় লিঙ্গের সন্তানতো বহু দূরের ব্যাপার।

সমাজ থেকেও অনেক অবহেলার শিকার হচ্ছে তারা। বাংলাদেশে তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার হার ২ শতাংশ, যা খুবই নগণ্য। সরকার শিক্ষার সুযোগ দিলেও সমাজের হেয় প্রতিপন্নতার জন্য এবং তাদের আলাদা চোখে দেখার কারণে শিক্ষার প্রতি তারা নিরুৎসাহিত হচ্ছে।আবার জন্ম নিবন্ধন ও অনেক বড় একটি সমস্যা। জন্ম নিবদ্ধনের কাগজ ছাড়া বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে হলেও ভোগান্তি পোহাতে হয় তৃতীয় লিঙ্গ শিশুদের। গুটি কয়েক জন যেতে পারছে উচ্চতর শিক্ষার আঙ্গনে। কর্মসংস্থানের অভাব অনেক বড় একটি সমস্যা তৃতীয় লিঙ্গের ক্ষেত্রে।

তাদের বৃহত্তর অংশের জীবিকা নির্বাহের ধরন হলো চাঁদা উত্তোলন, বাসাবাড়িতে নতুন শিশু জন্ম কিংবা বিয়েবাড়িতে নাচ-গান করে টাকা নেওয়া, যাত্রাপালায় কাজ করা, পতিতাবৃত্তি ইত্যাদি। তাদের মধ্যে অনেকে আবার এসব কাজ স্বেচ্ছায় করে না, পারিপার্শ্বিক অবস্থার শিকার হয়ে করে। এসব কাজের জন্যও অনেক মানুষ মিশতে সংকোচ ও ভীতি প্রকাশ করে। কিন্তু সমাজের বাকি পাঁচজনের মতো তাদের অধিকার যদি রক্ষা করা হতো, তাহলে হয়তো তারা এ পথ বেছে নিত না। গুটি কয়েক জায়গায় কাজ করার সুযোগ পেলেও সব মানুষ তা স্বাভাবিকভাবে নিচ্ছে না। তাদের মধ্যে অল্প কিছু সংখ্যক উচ্চ পদে চাকরি পেলেও বাকিরা পাচ্ছে না কাজের সুযোগ।

তৃতীয় লিঙ্গের উন্নয়ের সবচেয়ে বড় বাধা হচ্ছে আমাদের সমাজ। সমাজ তাদের আরো নিরুৎসাহিত করছে এবং ভালো চোখে দেখছে না। পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার অভাবে তারা পিছিয়ে পড়ছে। এ কারণে জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে। সরকার প্রতি অর্থবছরে তৃতীয় লিঙ্গের উন্নয়নের জন্য বাজেট বরাদ্দ রাখলেও তা তাদের উন্নয়নের পেছনে যথাযথভাবে ব্যয় হচ্ছে না। তাদের জন্য প্রয়োজন কারিগরি ও উন্নয়নমূলক শিক্ষা, যার ফলে তারা কাজ করে সুন্দরভাবে জীবন যাপন করতে পারে। তাদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ বন্ধ করতে হবে।

সরকারি ও বেসরকারিভাবে তৃতীয় লিঙ্গের জন্য বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হলেও তা বাস্তবায়ন সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। এই বৃহত্তর জনগোষ্ঠীকে জনশক্তিতে পরিণত করতে হবে। এর জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে পারে পরিবার ও সমাজ। সরকারি পদক্ষেপের পাশাপাশি পরিবার ও সমাজ বৈষম্যমূলক আচরণ থেকে বিরত না থাকলে সরকার তাদের জন্য যতই পদক্ষেপ নেক না কেন কার্যকর হবেনা যথাযথভাবে।

লেখকঃ আনিকা নাজনীন
শিক্ষার্থী- ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়

আর পড়তে পারেন