রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

ত্যাগের মহিমায় যুক্তরাষ্ট্রে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১২, ২০১৯
news-image

 

ওয়াশিংটন ডেস্ক:

দেশ, প্রবাসসহ বিশ্ব মানবতার শান্তি ও কল্যাণ কামনার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আযহা। যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য আমেজে ১১ আগস্ট রোববার উদযাপিত হয় মুসলমানদের অন্যতম প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব। যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন, নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটে বসবাসরত মুসলমানগণ এদিন স্বপরিবারে নিকটস্থ মসজিদ ও খোলা মাঠে পবিত্র ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করেন। রবিবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে ঈদ জামায়াতে যেতে পারায় প্রবাসীদের মধ্যে বাড়তি উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। নিউইয়র্ক সিটির পাবলিক স্কুলসমূহে ঈদের দিন ছুটি থাকলেও সেটি কাজে লাগলো না এবার সামার ভেকেশানে ঈদ হওয়ায়। সর্বত্রই শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

চমৎকার আবহাওয়া থাকায় ওয়াশিংটন নিউইয়র্কসহ উত্তর আমেরিকায় অনেক খোলা মাঠে ঈদুল আযহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকালের মৃদু হালকা ঠান্ডা থাকায় খোলা মাঠে মিষ্টি রোদ মুসল্লিদের বাড়তি সুবিধা দেয়। যুক্তরাষ্ট্রে এবার অধিকাংশ ঈদ জামায়াত সকাল ৮ থেকে সাড়ে ১০ টার মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়। ঈদ জামায়াত গুলোতে নামে প্রবাসীদের ঢল। আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাললাহু, আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হামদ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে মসজিদ ও ঈদগাহ প্রাঙ্গণ।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনের অদুরে ভার্জিনিয়ার আর্লিংটনস্থ বাংলাদেশি মসজিদ বায়তুল মোকারম মসজিদে রোববার সকালে পবিত্র ঈদুল আযহার পরপর তিনটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জামাতগুলো সকাল ৮টা, সোয়া ৯টা ও সাড়ে ১০ ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জামাতটি অনুষ্ঠিত হয় মসজিদের ইমাম মাওলানা কৌশিক আহমেদের ইমামতিতে। শতশত মুসল্লি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নামাজে অংশগ্রহন করেন। নামাজ শেষে মুসলিম উম্মাহ’র শান্তি ও মঙ্গল কামনায় বিশেষ দোয়া মুনাজাতে অংশগ্রহন করেন। নামাজ ও মুনাজাতের পর ঈদের কোলাকুলি শেষে সবাই নিকটস্থ কোরবানির মাঠে যান এবং সেখানে মহান রাব্বুল আলামীনের সন্তুষ্টি কামনায় গরু ছাগল সহ বিভিন্ন পশু কোরবানী দেন। দিনভর পরিবার পরিজন আত্মীয় স্বজন পরিবেষ্টিত হয়ে পবিত্র ঈদুল আযহার আনন্দ বিনিময় করেন।

এছাড়াও ওয়াশিংটনের বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনক বাই পবিত্র ঈদুল আযহার নামাজের আয়োজন করে। ভার্জিনিয়ার দার আল নুর মসজিদ, দার আল হুদা, অ্যাডাম সেন্টা, ফাতেমা মসজিদ সহ বিভিন্ন মসজিদে ১১ আগষ্ট রোববার পবিত্র ঈদুল আযহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে নিউইয়র্কে ঈদের সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে কুইন্সে জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের আয়োজনে। থমাস হাই স্কুল খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত এ ঈদ জামায়াতে প্রায় ১৫ হাজার মুসল্লি অংশ নেন বলে আয়োজকরা জানান। অন্যান্য বৃহৎ জামাতগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্রঙ্কসে বাংলাবাজার জামে মসজিদ, জ্যাকসন হাইটসে নিউইয়র্ক ঈদগাঁহ, ওজোনপার্কে মসজিদ আল আমান, এস্টোরিয়ায় আল আমিন মসজিদ, ব্রুকলীনে বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার ও বায়তুল জান্নাহ মসজিদের ব্যবস্থাপনায়।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশীদের পরিচালনায় অন্যতম বৃহত্তম মসজিদ জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার (জেএমসি)-এর উদ্যোগে স্থানীয় জ্যামাইকার থমাস হাই স্কুলে মাঠে সকাল ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় ১৫ হাজার মুসল্লি একত্রে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। এই জামাতে ইমামতি, খুৎবা পাঠ ও বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন হাফিজ মোজাহিদুল ইসলাম। জেএমসি আয়োজিত ঈদুল আযহার নামাজের আগে নিউইয়র্কের লেফটেন্ট গভর্নর ক্যাথি হোগাল, সাবেক নিউইয়র্ক সিটি কম্প্রট্রোলার জন লু সহ মূলধারার রাজনৈতিক ও জেএমসি’র কর্মকর্তারা উপস্থিত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।

নিউইয়র্কে বাঙালী অধ্যুষিত ব্রঙ্কসে বাংলাবাজার জামে মসজিদের উদ্যোগে সকাল সাড়ে ৮টায় মসজিদের নিকটবর্তী খোলা মাঠে (আইএস ১০৬ প্লে গ্রাউন্ড) বিশাল জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। এই জামাতে ইমামতি, খুৎবা পাঠ করেন বাংলাবাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কাশেম ইয়াহইয়া। নামাজ শেষে বিশেষ দোয়া মুনাজাত পরিচালনা করেন সিংগেরকাচ আলীয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা এ কে এম আবদুন নুর।

এছাড়াও কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি, কানেকটিকাট, ম্যারিল্যান্ড, পেনসেলভেনিয়া, ওয়াহিও, ফ্লোরিডা, নর্থ ক্যারোরিনা, সাউথ ক্যারোলিনা, জর্জিয়া, মিশিগান, ক্যালিফোর্নিয়া, টেক্সাস, এরিজোনা, মন্ট্রিয়াল, টরন্টোসহ প্রভৃতি স্টেটে ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এসব স্টেটে বসবাসকারী বাংলাদেশীরা এলাকার মসজিদ, কমিউনিটি সেন্টার ও খোলা মাঠে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

এদিকে, এদিন সকাল বেলায় মুসলিম পরিবারের সদস্যরা নানা রঙের পাজামা পাঞ্জাবি, শাড়ী, সালওয়ার কামিজ পরে নিকটস্থ মসজিদ কিংবা খোলা মাঠে হাজির হয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেন। উদযাপন করেন বিশেষ আনন্দের পবিত্র ঈদুল আযহা। প্রায় ২৭ শতাধিক মসজিদ ছাড়াও খোলা মাঠ, কমিউনিটি সেন্টারে এবং বিলাসবহুল হোটেলের বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ঈদ জামাত। বিশেষ পোশাক পরিধান করে একত্রে বিপুল সংখ্যক মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়ের বিষয়টি ভিন্ন দেশীদের বিশেষভাবে আকৃষ্ট করে। ঈদের জামায়াত গুলোতে স্থানীয় রাজনৈতিক, সমাজসেবী, ব্যবসায়ী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বসহ প্রবাসের নানা শ্রেণী পেশার মানুষ অংশ গ্রহণ করেন। ঈদের নামাজে কমিউনিটি, দেশ, জাতি ও বিশ্ব মানবতার কল্যাণ সুখ শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া মুনাজাত করা হয়। পরে একে অন্যের সাথে আলিঙ্গনের মাধ্যমে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

আর পড়তে পারেন