রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

নবীনগরে এবার ‘নিয়ম’ করে অতিরিক্ত টোল আদায় বহাল, অবশেষে ইজারাদারদেরই জয় হলো !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১০, ২০১৯
news-image

 

মো. দেলোয়ার হোসেন, নবীনগর ঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের মনতলা-সীতারামপুর নৌ-ঘাটের বহুল আলোচিত অতিরিক্তি টোল আদায় এমপি’র নির্দেশে বন্ধ হওয়ার ৪৮ ঘন্টা পার না হতেই এবার জেলা পরিষদের নির্দেশে পূর্বের টোল আদায় ‘নিয়ম’ করে পুনরায় বহাল করা হয়েছে। এতে যাত্রীদের মধ্যে আবারও ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে গত দুদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও নানা ধরণের মুখরোচক লেখালেখি শুরু হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাচীন ওই নৌঘাটে সরকারের বেঁধে দেয়া যাত্রী প্রতি ৫ টাকার বদলে ১০ টাকা ও মটরসাইকেল প্রতি পারাপারে ১৫ টাকার স্থলে ৫০ টাকা হারে অতিরিক্তি টোল আদায় নিয়ে গণ মাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হলে, স্থানীয় সাংসদ এবাদুল করিম বুলবুলের নির্দেশে গত সোমবার (০৫/০৮/১৯) ওই নৌঘাটে নবীনগরের সহকারি কমিশনার (ভূমি) জেপি দেওয়ান এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে অতিরিক্তি টোল আদায় বন্ধ করে দেন। এসময় অতিরিক্তি টোল আদায়ের অপরাধে টোল আদায়কারী রহমান মিয়া, শামীম মিয়া ও আল আমীন নামের তিনজনকে গ্রেপ্তার করে প্রত্যেককে ১৫ দিন করে কারাদন্ডও দেয়া হয়।

কিন্তু এ ঘটনার ৪৮ ঘন্টা পার না হতেই রহস্যজনক কারণে বুধবার জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নওয়াব আসলাম হাবিবের স্বাক্ষরযুক্ত এক প্রজ্ঞাপনে গত ৮ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) থেকে যাত্রী প্রতি ৫ টাকার বদলে ১০ টাকা ও মটরসাইকেল পারাপারে ১৫ টাকার বদলে ৪০ টাকা করে আদায়ের জন্য ইজারাদারদের প্রতি নির্দেশ দেয়া হয়। প্রজ্ঞাপনের ওই চিঠিটি বৃহস্পতিবার স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছেও পাঠানো হয়। এ নিয়ে ফেসবুকে ফুসে ওঠেন ভুক্তভোগীরা।

এ নিয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সোহরাওর্য়াদী চৌধুরী তার ফেসবুকে লিখেছেন,‘এ কি করলো প্রশাসন? সাংবাদিকদের বারবার সংবাদ প্রকাশ কি তাহলে বৃথা গেল? এটুকু নদী পারাপারে দশ টাকা কিভাবে নির্ধারিত হল? তাহলে কি প্রশাসনের চেয়ে ইজারাদাররাই ক্ষমতাশালী?
জাহাঙ্গীর আলম খান নামের আরেকজন লিখেছে,‘মোবাইল কোর্টে তিনজন নিরীহ মাঝিকে ১৫ দিনের কারাদন্ড প্রদান কি তাহলে অবৈধ? হায়রে, আমার সোনার বাংলাদেশ!’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইজারাদারদের একজন প্রতিনিধি ‘আজকের কুমিল্লাকে’ বলেন, ‘জেলা পরিষদের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকার এই নৌঘাটটি এখন ৪৮ লাখ টাকায় আনতে হয়। যদি সরকার ইজারা কমিয়ে দেয়, তাহলে আমরা ৫ টাকা করে নিলেও আমাদের লাভ।’

এর আগে একই আদলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নওয়াব আসলাম হাবিব নিজেও বলেছিলেন,‘১০ লাখ টাকার ঘাট ৩৮ লাখ টাকায় নিয়ে গেলে, ওরাতো (ইজারাদার) অনিয়ম করবেই। আসলে ইজারাদারদের নিয়ন্ত্রণ করা খুব ‘টাফ’ হয়ে গেছে।’

এদিকে গত বুধবারের (৮/৮/১৯) নতুন প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়টি নিয়ে বারবার চেষ্টা করেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের সংশ্লিষ্ট কারও সঙ্গেই কথা বলা যায়নি।

তবে স্থানীয় সাংসদ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫) এবাদুল করিম বুলবুলের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বললে, তিনি শুক্রবার আজকের কুমিল্লাকে বলেন,‘কেন এমনটা হল, সেটি নিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

প্রসংগত, উপজেলার উত্তরাঞ্চলের তিনটি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ এই মনতলা সীতারামপুর খেয়াঘাট দিয়ে প্রতিদিন নবীনগর উপজেলা ও জেলা সদরে যাতায়াত করে থাকেন।

আর পড়তে পারেন