রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

কোরবানিকে সামনে রেখে দেবিদ্বারের কামার’রা এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৮, ২০১৯
news-image

মো. জামাল উদ্দিন দুলাল ঃ
আর কয়েক দিন পরে ঈদুল আজহা। ঘুম নেই কামারপাড়ায়। কি দিন কি রাত, কান পাতলেই শোনা যায় ঠুংঠাং শব্দ। কোরবানির পশু জবাই ও মাংস বানাতে ছুরি, চাপাতি, দা, বঁটি, কুড়াল অত্যাবশ্যকীয়। কোরবানির আগে এসব উপকরণ হাতের কাছে না থাকলেই নয়। সেগুলো সংগ্রহ এবং প্রস্তুত রাখতে এখন সবাই ব্যস্ত। এসব উপকরণ তৈরি ও শাণ দেওয়ার জন্য কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ কামারবাড়ী, রসুলপুর, বারেরা বাজার, ভিরাল্লা, মোহনপুর বাজার,ধামতী ও রাজামেহার এলাকায় বেশ আলোচিত। ক্রেতা সামলাতে এসব কামারপাড়ার লোকজন ভীষণ ব্যস্ত। যেন দম ফেলার মত সময় নেই তাদের।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, দেবিদ্বার পুরানবাজার,ভিরাল্লা ও রসূলপুর এলাকার কামারপাড়াজুড়ে এখন ব্যস্ততা। সর্বক্ষণ বাতাসে ভাসছে ঠুংঠাং শব্দ। কথা বলার সময় নেই কারও। কেউ হাপর টানছেন। কেউবা আগুনে কয়লা দিচ্ছেন। জ্বলন্ত আগুন থেকে লোহা তুলে সমানতালে পেটাচ্ছেন তাঁরা। সেই পেটানো তপ্ত লোহা থেকে তৈরি হচ্ছে দা, বঁটি, ছুরি, কুড়াল, চাপাতি। বৃহস্পতিবার সকালে বারেরা বাজারে দা, ছেনি ও বঁটি শাণ দিতে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিনি বলেন, বেশ কয়েক বছর আগে ৪০ কিংবা ৫০ টাকায় দা, বটি শান দিতাম আর এখন ৮০ থেকে ১০০ টাকা পযর্ন্ত দিতে হয়।

এ বিষয়ে ভিরাল্লা গ্রামের মনরঞ্জন কর্মকার’র বলেন, সারা বছরই কাজ থাকে। তবে এখন‘ কোরবানি তো আইছে, অনেকেই নতুন দাও-ছুরি কিনবে। কোরবানির সময় কাজ বেড়ে যায় দ্বিগুণ কিন্তু আয়ও বাড়ে। গৃহস্থ বাড়ির সবাই দা, ছুরি, ছেনি, চাকু, বঁটিতে শাণ দিতে আসেন। তাই এই সময়ের জন্য প্রস্তুতিটাও থাকে একটু ভিন্ন। তিনি আরো বলেন,বছরের এই সময়ে দিনে ৩/৪ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করা যায়।

আর পড়তে পারেন