রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় নেউরা গরু বাজারটি কার?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৮, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
নেউরা গরু বাজার। কুমিল্লা জেলার সর্ববৃহৎ কোরবানির পশুর হাট হিসেবে পরিচিত। সদর দক্ষিণ উপজেলার নেউরা দাখিল মাদরাসার মাঠে নব্বইয়ের দশকের প্রথম দিকেই এই বাজারের যাত্রা শুরু হয়। শহর সংলগ্ন ও যাতায়াত সুবিধা থাকায় অল্প সময়ে সুনাম লাভ করে বাজারটি।
সময়ের আর্বতনে বাজারটি নেউরা ছেড়ে দক্ষিণ ঢুলিপাড়া এসে কেন্দ্র বেধেছে। বিশাল এ বাজারটি বসে সম্পূর্ণ সড়কের উপর। তাই আশপাশের ১১টি গ্রামের মানুষের যাতায়াতসহ নিয়মিত চলাচল সমস্যা হয়। দীর্ঘদিন ধরে ১১ গ্রামের মানুষ বাজারটি সড়কের উপর থেকে সরিয়ে নিতে বললেও কান দিচ্ছে না স্থানীয় প্রভাবশালী মহল।

জানা যায়, কুমিল্লা দক্ষিণ সিটির মানুষের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সদর হাসপাতাল, রাজগঞ্জ, কান্দিরপাড়, চকবাজার, টমচমব্রিজ, শহরের সকল স্কুল-কলেজে যাতায়াতের একমাত্র সড়ক ঢুলিপাড়া নেউরা ভাড়া দিশাবন্দ সড়ক। এ সড়কে ঢুলিপাড়া, নেউরা, রসূলপুর, সৈয়দপুর, নোয়াপাড়া, রাজাপাড়া, দিশাবন্দ, লক্ষীনগর, কাজীপাড়া, আবাসন প্রকল্প, লইপুরা গ্রামের মানুষের শহরে প্রবেশের একমাত্র পথ।

এছাড়া দক্ষিণ কুমিল্লার সঙ্গে মহানগরী ও আদর্শ সদর উপজেলা থেকে সদর দক্ষিণে যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাও নেউরা সড়ক। কোরবানির পূর্বে ধারাবাহিক ভাবে এ সড়কে গরু বাজার চলে কয়েকদিন। ফলে মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই।

কুমিল্লা ইপিজেড কর্মী লায়লা পারভীন জানান, রাজাপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকি। বাসা থেকে ইপিজেড পকেট গেট আসতে পাঁচ টাকা ভাড়া লাগে। যখন এখানে গরু বাজার থাকে তখন দিশাবন্দ-উনাইশার হয়ে ২নং গেটে বা দিশাবন্দ-কাজীপাড়া-জাঙ্গালিয়া, টমচমব্রিজ হয়ে ১নং গেটে আসতে হয়। দেখা যায় তখন ভাড়া ৩০ টাকা চলে যায়। এবং প্রচুর সময় অপচয় হয়।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, গরু বাজারের সময় আবর্জনা, দুর্গন্ধের ফলে এলাকায় বসবাস ও এ রাস্তায় যাতায়াত করতে অনেক কষ্ট হয়। বাজার কমিটি পরিষ্কারের কাজটুকুও করেন না। বাজার চলাকালিন সময়ে দুদিকে লাঠিয়াল বাহিনী থাকে যারা গাড়ি চলাচলে বাধা তৈরি করে রাস্তা বন্ধ করে দেয়।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জাকির হোসেন বলেন, এ বিষয়ে বাজার কমিটির সঙ্গে কয়েকবার আলোচনা করেছি। বিষয়টি তারা আমলে নিচ্ছেন না। গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটিতে বাজার হওয়ার ফলে মানুষের অনেক কষ্ট হয়। প্রথমদিকে মাদরাসা বাজারের আয়ের একটা অংশ পেত। বাজারটা মাদরাসার নামেই ছিলো। বর্তমানে এটি আর নেই। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনকে জানিয়েছি। পরামর্শ দিয়েছি, গরু বাজার থেকে আধা কিলো দক্ষিণে পুরাতন বিমান বন্দর মাঠ খালি। এখানে বাজারটা করলে আরো জমজমাট হবে। মানুষ ও কষ্ট থেকে বাঁচবে।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসনিক কর্মকার্তা ও বাজার বিষয়ক (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা মো. হারুনুর রশিদ বলেন, কুসিক থেকে চৌয়ারা বাজার, চকবাজার পশুর হাটের জন্য বাৎসরিক ইজারা দেয়া হয়। অস্থায়ীভাবে চাঙ্গিনী পশুর হাঁটের জন্য অনুমোদন দেয়া হয়। এ তিনটি বাজার ছাড়া কুসিক থেকে আর কোনো পশুর হাটের অনুমোদন নেই।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অনুপম পড়ুয়া জানান, নেউরা গরু বাজারের ইজারা সিটি কর্পোরেশন থেকে দেয়া হয়নি। এটি অবৈধ বাজার। গত বছর ডিসিকে অবগত করা হয়েছে। আশা করি সংশ্লিষ্ট সবাই বিবেচনা করবেন।

কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার ইউএনও মিয়া মোহাম্মদ কেয়াম উদ্দিন বলেন, বাজারটি উপজেলার না। আপনারা সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে কথা বলতে পারেন।

কুমিল্লার ডিসি মো. আবুল ফজল মীর বলেন, স্কুল ও রাস্তায় পশুর হাঁট বসানো সরকারি নিয়মের বিপরীত। অবগত হয়েছি। সবার আন্তরিকতায় একটি উদ্যোগ গ্রহণ করা যেতে পারে যা সবার জন্য কল্যাণ হবে।

আর পড়তে পারেন