রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় স্কুলের পাশে গরুর খামার, দূর্গন্ধে শিক্ষার্থীদের পাঠ গ্রহণে সমস্যা!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৯, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
বিদ্যালয়টির মাত্র তিনফুট দূরে গরুর খামার করা হয়েছে। এ খামারের গরুর গোবর গো মূত্রের দুর্গন্ধে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া চরমভাবে ব্যহত হচ্ছে।

শুধু শিক্ষার্থীরাই নয়, দুর্গন্ধে খামারটির আশেপাশে বসবাস করা মানুষজন চরম সমস্যায় রয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয়রা গরুর খামারী মো: শাহ আলমকে জানালে তিনি বলেন, এখানে যত যাই হউক গরুর খামারটি থাকবে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও বিষয়টি জানে। যার সমস্যা হয় সে চলে যাক।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার আমড়াতলী ইউনিয়নের শিমড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্কুলের মাত্র তিনফুট দূরে দক্ষিনপাশে নির্মাণ করা হয়েছে গরুর খামারটি। খামারের আশেপাশে গোবর, গো মূত্র ফেলে রাখা হচ্ছে। বাতাসে গোবরের দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে।

স্কুলের ছোট ছোট কোমলমতি শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে নানান অভিযোগ করে বলেন, গোবরের গন্ধে লেখাপড়া করতে পারি না। সারাক্ষণ নাকে মুখে কাপড় গুজে দিয়ে লেখা পড়া করি। এভাবে লেখাপড়া করতে ভালো লাগে না।

শিমড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো: সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বহু পরিশ্রমের ফলে বিদ্যালয়ের সমাপনীর ফলাফলসহ অন্যান্য সহশিক্ষা কার্যক্রমের মাধ্যমে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অত্র ইউনিয়নে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হবে। কিন্তু গত মাস ছয়েক ধরে স্কুলের পাশে গরুর খামার করায় খামারে গোবরের গন্ধে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের আসা যাওয়া কমিয়ে দিয়েছে। ক্লাশ রুমে বসে মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করতে পারছেনা। যেখানে আশেপাশে বসবাস করা প্রাপ্ত বয়স্করা দূর্গন্ধে বসবাস করতে পারছেনা সেখানে বাচ্চা ছেলে মেয়েরা কিভাবে চার পাচ ঘন্টা বসে থেকে ক্লাশ করবে।

আমি নিজে ঘরে থাকতে পারি না গোবরের দূর্গন্ধে। খামারী মো: শাহ আলমকে অনুরোধ করেছি। কিন্তু খামারী শাহ আলম উল্টো আমাদেরকে হুমকি দিয়ে বলেন এখানে আর যাই কিছু থাকুক না বা না থাকুক, গরুর খামার থাকবে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে ম্যানেজিং কমিটিকে বলেছি। দূর্গন্ধে বাচ্চারা লেখাপড়া করতে পারছে না। আশেপাশের লোকজনও বাসা বাড়াতিতে থাকতে পারছে না। ক্লাশ শেষে আমরা স্টাফ রুমে বসতে পারছি না।

স্থানীয়রা জানান, গরুর গোবরের দূর্গন্ধের কারণে পাশে থাকা দুটি পরিবার শহরে বাসা ভাড়া করে থাকছে। আবাসিক এলাকায় গরুর খামার করে জনগণের শান্তি বিঘ্ন করছে খামারী শাহ আলম। এ বিষয়টি নিয়ে কিছুদিন পূর্বে সরাসরি তদন্তে আসেন কোতয়ালী মডেল থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবু ছালাম মিয়া। পরে তিনি খামারী শাহ আলমকে এখান থেকে খামার সরিয়ে নিতে বললেও অদৃশ্য ক্ষমতাবলে খামারটি স্কুলের পাশেই বহাল তবিয়তে আছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে, খামারী মোঃ শাহ আলম বলেন, এখানে খামার থাকবে। পারলে কে কি করবে করুক। খামার সরাবো না।

আর পড়তে পারেন