রবিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় সাড়ে ৬ মাসে ৮০ খু ন, ১৭০ ধ র্ষণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২১, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে কুমিল্লায়। সেই সাথে বেড়েছে খু ন, ধ র্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনাও। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই’র মাঝামাঝি পর্যন্ত গত সাড়ে ৬ মাসে কুমিল্লায় আশিটিরও বেশি হ ত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ সময়টাতে জেলাজুড়ে ধ র্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন প্রায় পৌনে দুই শ নারী-শিশু; তাদের অনেককেই আবার প্রাণ হারাতে হয়েছে ধ র্ষক কিংবা সহযোগীদের হাতে।

কুমিল্লা জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ সূত্রে হ ত্যা-ধ র্ষণের এ ভয়াবহ চিত্র জানা গেছে।

বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে কুমিল্লার নাগরিক সমাজকেও। জেলার বিশিষ্ট নাগরিকরা বলছেন, ক্রমেই বাড়তে থাকা অপরাধ প্রবণতা রুখতে হলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি আমাদের সামাজিক ও মানবিক মূল্যবোধকে জাগ্রত করতে হবে।

জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সূত্রে জানা যায়, জানুয়ারিতে কুমিল্লায় হ  ত্যাকাণ্ড ঘটে ১৩টি, ফেব্রুয়ারিতে ১১টি, মার্চ-এপ্রিলে কুমিল্লায় খু ন হন প্রতিমাসে ১০ জন করে মোট ২০জন, মে-জুন এ দুই মাসে কুমিল্লায় হ  ত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন প্রতিমাসে ১৫জন করে ৩০জন। চলতি মাসের মাঝামাঝি (১৫ জুলাই) পর্যন্ত কুমিল্লায় খু  ন হন ৬ জন। অর্থাৎ বছরের প্রথম সাড়ে ৬ মাসে কুমিল্লায় হ  ত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে ৮০ জন। যার সর্বশেষটি ঘটেছে কুমিল্লার আদালতের এজলাস কক্ষে, বিচারকের খাসকামরায়। যা নিয়ে দেশব্যাপি চলছে আলোচনা-সমালোচনা; প্রশ্ন উঠেছে আদালতসহ স্পর্শকাতর এলাকাসমূহের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও।

অপরদিকে কুমেক ফরেনসিক বিভাগের তথ্যানুসারে গত ৬ মাসে কুমিল্লায় ধ  র্ষণের শিকার হয়েছে অন্তত ১৭০ জন নারী ও শিশু। এর মধ্যে জানুয়ারী মাসে ২১ জন, ফেব্রুয়ারী মাসে ২৯ জন, মার্চ মাসে ২৬ জন, এপ্রিল মাসে ২৭ জন, মে মাসে ৩২ জন ও জুন মাসে ৩৫ জন ধ  র্ষণের শিকার নারী-শিশুর মেডিকেল পরীক্ষা হয়েছে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. শারমিন সুলতানা জানান, প্রতিদিনই ধ র্ষণ, হ ত্যা ও অপমৃ ত্যুর ঘটনায় কারো না কারো ডাক্তারি পরীক্ষা হচ্ছে। যদিও ধর্ষণের ঘটনাই বেশি। তার ভাষ্য, ‘গত ৬ মাসে কুমেকে ধ র্ষণের ঘটনায় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ৫ বছরের শিশু থেকে ৫০ বছরের নারীও এসেছেন। তবে ১৫ থেকে ২০ বছর বয়সী তরুণী-যুবতীদের সংখ্যাই বেশি।’

কুমিল্লায় হত্যা ও ধর্ষণের এ ভয়াবহ চিত্রে উদ্বিগ্ন বিশিষ্ট নাগরিকেরা। জানতে চাইলে কুমিল্লার বিশিষ্ট নাগরিক ও জেলা বিএমএ’র সাবেক সভাপতি ডা. ইকবাল আনোয়ার বলেন, সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণে অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। পাশাপাশি বিচারহীনতার বিষয়টিও সামনে এসে দাঁড়ায় কিন্তু। প্রেক্ষাপটটা এমন দাঁড়িয়েছে- অপরাধী মনে করে, সে হ  ত্যা-ধ  র্ষণ যা ই করুক; আইনের ফাঁক গলে বেরুতে পারবেই, হচ্ছেও তাই। অপরদিকে বিচারের দীর্ঘসূত্রিতাসহ নানা জটিলতায় ভুক্তভোগী মনে করে- আর বিচার পাওয়া হবে না। কিন্তু এ সময়ের প্রেক্ষাপটে সামগ্রিক দাবি হচ্ছে-অপরাধীকে বিচারের আওতায় আনতে হবে, ভুক্তভোগীকে সাহস যোগাতে হবে। যে কোনো অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। না হলে অচিরেই একটা ভঙ্গুর সমাজচিত্র ভেসে উঠবে সবার সামনে।

নারী নেত্রী দিলনাশি মহসিন বলেন, পুরো সমাজটাই যেনো অস্থির সময় পার করছে। আমরা সবাই গা বাঁচিয়ে চলতে চাই। একের বিপদে অন্যের যেনো কোনো দায় নেই! এমনকি প্রকাশ্যে হ  ত্যাকাণ্ড হলেও কেউ এগিয়ে আসে না।

তিনি বলেন, অপরাধী যখন যথাযথ সাজা পায় না, তখন তার এ প্রবণতা আরো বাড়তে থাকে। তাই অপরাধী যেই হোক, তার সাজা নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি আমাদেরকেও সচেতন হতে হবে। যেকোনো অপরাধের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে, তবেই সমাজে অপরাধ কমে আসবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ্ আল মামুন বলেন, সম্প্রতি কুমিল্লায় যেসকল হ  ত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তার বেশীরভাগই পারিবারিক অথবা ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জের। এসব অন্ত:কলহের বিষয়ে পুলিশের আসলে কিছুই করার থাকে না। তবে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে জেলা পুলিশ সচেষ্ট। অপরাধীরা গ্রেপ্তার হচ্ছে, আদালতের মাধ্যমে সাজাও হচ্ছে। তবে সামাজিক ও পারিবারিক কলহ-কোন্দল নিয়ন্ত্রণে অভিভাবক-সমাজপতিরা আন্তরিকতার সাথে এগিয়ে আসলে অপরাধ কর্মকাণ্ড অনেকাংশেই কমে যাবে। এক্ষেত্রে সচেতনতার বিকল্প নেই।

আর পড়তে পারেন